Browsing Category

ঘরের শোভা

ঘর পরিস্কার রাখার জন্য কিছু সহজ টিপস

ঘর পরিস্কার রাখার জন্য কিছু সহজ টিপস

ঘর হচ্ছে আমাদের জন্য সব জন্য থেকে শান্তির জায়গা। দিন শেষে সব কাজ সম্পন্ন করে আমরা একটু শান্তির খোজে আমাদের ঘরে প্রবেশ করি। এই কারণে আমাদের ঘর হওয়া উচিত পরিস্কার আর পরিচ্ছন্ন। তবে রোজকার দিনের কাজ গুলোর মধ্যে ঘর তো আগোছালো হয়েই যায়। অপরিস্কারও হয়ে যায়। তাই আমাদের উচিত ঘর খুব বেশি নোংরা হবার আগেই তা যতটা সম্ভব পরিস্কার করে ফেলা। আমরা অনেক সময় ঘর পরিস্কার করে রাখাটাকে অনেক কঠিন একটা কাজ বলে মনে করি।

অল্প খরচে বাসা হবে আধুনিকভাবে সজ্জিত

নতুন সংসার শুরু করা বা বাসা সংস্কার করার সময় আমরা নিত্যনতুন এবং হালের আসবাবপত্র দিয়ে বাসা সাজিয়ে থাকি। কিন্তু কয়েক মাস যাওয়ার পর সেসব আবার একঘেয়েমি লাগতে লাগে। আর ২-১ বছর পরে সেগুলো আবার পুরনো হয়ে যায়। কিন্তু বারবার বা ঘনঘন আসবাব পত্র পরিবর্তন করা সম্ভব হয়ে উঠে না অধিকাংশের পক্ষেই। এক্ষেত্রে আমরা কি করবো? এক ঘেয়েমি জীবন মেনে নিবো? আমার মতামত যদি জানতে চান তাহলে বলবো, মোটেও মেনে নেওয়া উচিত নয়। এতে মনে অবসাদ

ছোট ঘর বড় দেখাবে যেভাবে

ফ্ল্যাট বাসাগুলো এত ছোট হয় যে কয়েকটা আসবাবপত্র রাখার পরে আর জায়গা থাকে না, ঘরগুলো বন্ধ বন্ধ লাগে। আবার কোন কোন বাসায় জায়গা এতই ছোট হয়ে যায় যে শুধু হাঁটাচলা করার জায়গাটুকুই অবশিষ্ট থাকে। কিন্তু ঢাকা শহরে যেখানে মানুষের দাঁড়ানোর জায়গা নেই সেখানে আপনি বড় বাসা আশাই বা করবেন কীভাবে! তাই এই বাসার সাথেই মানিয়ে চলতে হবে। কিন্তু এত বদ্ধভাবে থাকা যায় না, তা আমি জানি। তাই আজ ঘর সাজানোর কিছু টিপস শেয়ার করবো আপনাদের

বড়দিনে আপনার পরিপাটি ঘর

বড়দিনে আপনার পরিপাটি ঘর

বছর ঘুড়ে চলে এলো সেই কাঙ্ক্ষিত দিন। খ্রিস্টধর্মালম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উত্‍সব বড়দিন। অন্যান্য উৎসবের মত এদিনেও সবাই চায় নিজেদের সুন্দর ভাবে সাজানোর পাশাপাশি নিজেদের ঘরটাও সুন্দর, পরিপাটী ও নান্দনিক ভাবে সাজাতে-গুছাতে। পশ্চিমা দেশ গুলোর মতো জমকালোভাবে পালন না করা হলেও আমাদের দেশেও দিনটি উদযাপন করা হয় নানান আনুষ্ঠানিকতার মধ্য দিয়ে। নিজেদের পরিসরের মধ্যে সবাই চেষ্টা করে ভাল আয়োজনটি করতে। ক্রিসমাস ট্রি সাজানো হলো বড়দিনের অন্যতম আকর্ষন। ধর্ম-বর্ণ-নির্বিশেষে যে কোনো উত্‍সবে সবাই এক হয়ে যাওয়া বাঙালীর

সুরভিত ও সতেজ ঘর

সুরভিত ও সতেজ ঘর

ঘর সুরভিত বা সুগন্ধে সতেজ থাকুক তা আমরা কে না চাই! এলো শীত। শীতে বাহিরের অতিরিক্ত ঠান্ডা থেকে বাচিয়ে ঘরকে উষ্ণ রাখতে আমরা দিনের বেশিরভাগ সময়টাই দরজা জানালা বন্ধ করে ঘরে বাইরের আলো বাতাস চলাচল বন্ধ রাখি। এতে ঘরের ভেতরটায় এক গুমোট ব্যাপার বিরাজ করে। আর এতে সতেজ গন্ধটাও অনুভূত হয়না। অথচ আমরা চাই ঘর থাকুক উষ্ণ এবং সুরভিত। এছাড়াও বিভিন্ন কারণে আমাদের ঘরে দুর্গন্ধ অনুভূত হয়ে থাকে। ঘরের এই দুর্গন্ধ পরিবারের মানুষজনের জন্যে যেমন

ঝকঝকে স্টিলের থালাবাটি

ঝকঝকে স্টিলের থালাবাটি

স্টিলের থালাবাটি ঝকঝকে তকতকে রাখতে কে না চায়! ঘরে অতিথি এলে এখনকার সময়ে নতুন ট্রেন্ড হলো বাঙালীর গ্রামবাংলার আদলে মাটির এবং স্টিলের বাসনকোসনে খাবার সার্ভ করা। কিন্তু বেশীরভাগ সময়েই যে্টা হয়, স্টিলের থালাবাটি ঠিকভাবে পরিষ্কার করে না রাখাতে বা ঠিকভাবে সংরক্ষন না করার ফলে এর গ্লেজ নষ্ট হয়ে যায়। ঝকঝকে ভাবটা হারিয়ে যায়। যেটা নিজের কাছেও ভাল লাগেনা আর অতিথির সামনে তো আরো আগেই না(মাটির তৈজসপত্র নিয়ে পরবর্তী আর্টিকেলে লিখা হবে)। আবার দীর্ঘদিন ব্যবহার করার

শিশুর ঘর গুছিয়ে রাখবেন যেভাবে

শিশুদের ঘর গুছিয়ে রাখা মোটেও সহজ কাজ না। আমার মনে হয়, বাসার কাজগুলোর মধ্যে এইটা সবচেয়ে কঠিন কাজ কারণ খেলনা, বই-খাতা এসব জিনিস ছড়িয়ে ছিটিয়ে রাখে বাচ্চারা। নিজেরা যেমন গুছিয়ে রাখতে পারে না, তেমনই মা-বাবারাও কাজ সামলে ওদের ঘর গুছিয়ে দেওয়ার সময় পান না। অগোছালো ঘরে বড় হতে থাকলে কিন্তু বাচ্চা বড় হয়েও ঘর অগোছালো রাখবে। বাচ্চাকে ছোট থেকেই ঘর গুছিয়ে রাখতে শেখালে বড় হয়ে নিজেরাই গুছিয়ে রাখবে। জেনে নিন কী ভাবে ওদের ঘর গুছিয়ে

বাসার ভেতরটা হোক মোহনীয়

ঘরে সাজাতে আমরা সবাই পছন্দ করি কিন্তু কিভাবে সাজালে ভালো লাগবে তা সবাই বুঝে উঠতে পারে না। কারণ বাসায় আলো-বাতাসের পরিমাণ, ঘরগুলোর সাইজ, দেওয়ালের কালার, আসবাবপত্র ইত্যাদি বিষয়ের সামঞ্জস্যের উপর নির্ভর করে একটি বাসার সৌন্দর্য। তাই সব বাসা গুছানোর জন্য যদি আপনি একটি নীতি ফলো করেন তাহলে অবশ্যই বাসার সৌন্দর্য ফুটিয়ে তুলতে ব্যর্থ হবে। তবে কিছু বেসিক নিয়ম আছে যা মেনে বাসা সাজালে আপনার বাসা যেমনই হোক, বেশ চমৎকার দেখাবে। সেসকল বেসিক টিপস আজ আমি

ঘরের টুকটাক কাজের আরও কিছু টিপস

  এর আগেও আমি আপনাদের সাথে টুকটাক ঘরোয়া কাজের কিছু টিপস শেয়ার করেছি। আশা করি সেগুলো আপনাদের কাজে এসেছে। আসুন, আজ ঘরের কাজের আরও কিছু টিপস জেনে নেই।   বাসায় বা ঘরে পাখি বাসা দূর করতে করনীয়ঃ অনেকেই কাছেই শুনেছি, বাসার কার্নিশের ফাঁকে চড়ুই পাখি বাসা বাঁধছে। তাদের কিচির মিচিরে রাতের ঘুম নষ্ট হয় এবং বাসাও নোংরা হয় কিন্তু এ থেকে পরিত্রাণের উপায় খুঁজে পাচ্ছে না বিধায় পাখিদের উৎপাত সহ্য করে যাচ্ছে। আজ তাদের এই

বাসার টুকটাক কাজের সহজ উপায়

  বাড়িঘর গুছিয়ে, রান্নাঘর সামলায়ে, আসবাবপত্রের যত্ন করে, নিজের খেয়াল রাখাটা আমাদের বেশ কষ্টকর হয়ে পড়ে আমাদের জন্য। আমিও বেশ হয়রান হয়েছি এসকল কাজ গুছিয়ে উঠতে। কিন্তু আপনাদের হয়রান হতে হবে না, কোন ঝামেলাও পোহাতে হবে না কারণ আপনাদের হয়রানি কমানোর জন্য আমি আপনাদের কিছু সহজ ও ছোটখাটো ট্রিকস শেখাবো যা আমি খুঁজে পেয়েছি। চলুন শুনে নেওয়া যাক। হাত থেকে পেয়াজ ও রসুনের গন্ধ দূর করতে করণীয়ঃ পেয়াজ ও রসুন কাটার পর হাতে গন্ধ থেকে