Browsing Category

সহজ পরামর্শ

আপনার শিশু কি স্বাভাবিকভাবে (চতুর্থ মাসে) বেড়ে উঠছে?

তিন মাস থেকে চার মাসে পদার্পণ করার সময় আস্তে আস্তে আপনার বাবু চারপাশের বিভিন্ন জিনিসের দিকে আরো বেশী কৌতূহলী হবে। রঙিন এবং সচল জিনিসপত্রের প্রতি আকৃষ্ট হবে, এসময় তাকে নিরাপদ বিভিন্ন সফট-টয় , শব্দ যুক্ত খেলনা যেমন র‍্যাটল বা ঝুনঝুনি জাতীয় খেলনা দেবেন। মোবাইল এবং অন্যান্য ডিভাইসের রঙিন ছবি এবং মিউসিকের প্রতি আকৃষ্ট হবে, তবে, এসব ডিভাইস থেকে বাচ্চাদের যথাসম্ভব দূরে রাখতে হবে তাদের সঠিক শারীরিক ও মানসিক বিকাশের জন্য। মনে রাখবেন, এসব ডিভাইসের র‍্যাডিয়েশান

আপনার শিশু কি স্বাভাবিকভাবে (তৃতীয় মাসে) বেড়ে উঠছে?

যদিও আপনার শিশু তার তিন চার দিন বয়স থেকেই আপনাকে চিনতে পারে কিন্তু এ মাসে সে তা প্রকাশ করতে শুরু করবে। হয়তো সে অপরিচিত কারো সাথে হাসবে যারা তার সাথে হাসে বা শব্দ করে কিন্তু সে তার প্রিয় মানুষদের ক্ষেত্রে অন্য ধরণের অনুভূতি প্রকাশ করবে। প্রায় অর্ধেক শিশুই এ সময় বা মাকে দেখলে বা তাদের গলা শুনলে প্রতিক্রিয়া ব্যাক্ত করে। আপনার শিশু আপনার সাথে শান্ত থাকবে এবং চোখে চোখ রাখবে বা রুমে আপনাকে খুঁজে বেড়াবে।

আপনার শিশু কি স্বাভাবিকভাবে (দ্বিতীয় মাসে) বেড়ে উঠছে?

নবজাতকের জন্মের পর থেকে প্রথম কয়েক মাস সময়টি বাবা মায়েদের জন্য  একটু কঠিন, তবে যেহেতু এক মাস অতিক্রম হয়েছে, আপনি অনেকটাই নবজাতকের দেখাশনায় একটু একটু করে পারদর্শী হয়ে উঠছেন। রাত জাগা আর গর্ভকালীন শারীরিক ধকলের কারণে আপনার শরীর ও মন কিছুটা বিক্ষিপ্ত থাকলেও , এই সময়ের সবচেয়ে আনন্দময় যে ব্যাপারটি হয়ে থাকে, তা হোল আপনার সদ্য এক মাস পেরুনো ছানাটি হাসতে শেখা শুরু করবে। হ্যাঁ, জন্মের পর থেকে নবজাতক মাঝে মাঝেই একটু হেসে ওঠে ,

আপনার শিশু কি স্বাভাবিকভাবে (প্রথম মাসে) বেড়ে উঠছে?

জন্মের প্রথম মাস থেকেই আপনার শিশুর চেহারা ও শারীরিক বৃদ্ধি ছাড়াও তার ইন্দ্রিয় ও মোটর স্কিল এর উন্নতি হতে থাকে। গবেষণায় দেখা গেছে একটি চার সপ্তাহ বয়সের শিশু ও “মা” এবং “না” শব্দের মধ্যে পার্থক্য বুঝতে পারে। এখনই তারা বিভিন্ন ধরণের শব্দের মাধ্যমে তাদের অনুভূতি প্রকাশ করতে পারে। অনেক মা এটা ভেবে চিন্তিত থাকেন যে বাচ্চা পরিমান মত দুধ পাচ্ছে কিনা, কারণ বাচ্চা হয়ত কিছুক্ষন পরপরই কাঁদছে। এটা খুবই স্বাভাবিক কারণ খাওয়ার ঘণ্টা দুয়েক এর

ঝকঝকে স্টিলের থালাবাটি

ঝকঝকে স্টিলের থালাবাটি

স্টিলের থালাবাটি ঝকঝকে তকতকে রাখতে কে না চায়! ঘরে অতিথি এলে এখনকার সময়ে নতুন ট্রেন্ড হলো বাঙালীর গ্রামবাংলার আদলে মাটির এবং স্টিলের বাসনকোসনে খাবার সার্ভ করা। কিন্তু বেশীরভাগ সময়েই যে্টা হয়, স্টিলের থালাবাটি ঠিকভাবে পরিষ্কার করে না রাখাতে বা ঠিকভাবে সংরক্ষন না করার ফলে এর গ্লেজ নষ্ট হয়ে যায়। ঝকঝকে ভাবটা হারিয়ে যায়। যেটা নিজের কাছেও ভাল লাগেনা আর অতিথির সামনে তো আরো আগেই না(মাটির তৈজসপত্র নিয়ে পরবর্তী আর্টিকেলে লিখা হবে)। আবার দীর্ঘদিন ব্যবহার করার

অসময়ে চেহারায় বয়সের ছাপ কেন পড়ে

বয়স বৃদ্ধির সাথে সাথে আমাদের মুখের ত্বকও পরিবর্তন হতে থাকে এবং ত্বকে বয়সের ছাপ ধীরে ধীরে ত্বকে বয়সের ছাপ দেখ দেয়। কিন্তু কিছু মানুষ আছে সাথে মুখের ত্বক ভিন্ন। তাই  অল্প বয়স থেকেই তাদের ত্বকে বয়সের ছাপ দেখা দেয়। বয়সের ছাপ কি? মুখের ত্বক কুঁচকে যাওয়া, ঝুলে যাওয়া, ঠোঁট ও চোখের পাশে বলিরেখা দেখা দেওয়া ইত্যাদি মুখের ত্বকে বয়সের ছাপ পড়ার চিহ্ন।   বয়সের ছাপ কেন পড়ে? অল্প বয়সে মুখের ত্বকে বয়সের ছাপ দেখা দেওয়ার

গর্ভাবস্থায় কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করতে…

অন্ত:স্বত্ত্বা অবস্থায় অনেক নারী-ই কোষ্ঠকাঠিন্যে ভোগেন। স্বাভাবিক অবস্থার চেয়ে এই সময়ে কোষ্ঠকাঠিন্য হলে সমস্যাটা প্রকট আকার ধারণ করে। ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় পড়েন অনেক নারী। প্রাকৃতিক কিছু উপায় অবলম্বন করলে এই সমস্যা অনেকটাই কাটিয়ে উঠা সম্ভব। আসুন জেনে নেই, গর্ভাবস্থায় কোষ্ঠকাঠিন্য কমানোর কিছু উপায়- আঁশযুক্ত খাবার বেশি খেতে হবেঃ আঁশযুক্ত খাবার খেলে মল বাড়ে। কাটে কোষ্ঠকাঠিন্যও দূর হয়। গর্ভাবস্থায় কোষ্ঠকাঠিন্য কমানোর প্রথম ধাপ হলো বেশি করে শাকসবজি-ফলমূল খাওয়া। পাশাপাশি হালকা ব্যায়ামও উপকারী। শাকসবজি, ফল, বিচি জাতীয় খাবারে

পেঁয়াজ খাওয়া কেন জরুরী?

দৈনন্দিন জীবনে পেঁয়াজের গুরুত্ব অপরিসীম। রান্নার কাজে ছাড়াও আরও অনেক প্রয়োজনে ব্যবহৃত হয় পেঁয়াজ। জেনে রাখুন পেঁয়াজের উপকারিতা…   যৌন ইচ্ছা বৃদ্ধি করেঃ মানুষের যৌন ইচ্ছা বৃদ্ধি করে পেঁয়াজ। প্রতিদিন এক টেবিল চামচ পেঁয়াজ ও এক চামচ আদার রস মিশিয়ে খেয়ে নিন। দিনে তিনবার। আপনার যৌন ইচ্ছা কয়েকগুণ বৃদ্ধি পাবে।   কাশিতে উপকারিঃ ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী প্রতিদিন পরিমাণমতো পেঁয়াজের রসের সঙ্গে মধু মিশিয়ে খেলে সর্দি-কাশির সমস্যা থাকে না।   অ্যানিমিয়া বা রক্তাল্পতা রোধঃ অ্যানিমিয়া রোধে

যেভাবে যত্নে থাকবে গোলাপ গাছ

ফুল সৌন্দর্য ও ভালোবাসার প্রতীক। কিন্তু ভালোবাসা ও সৌন্দর্যের কথা বললেই প্রথমে মাথায় আসে, গোলাপ ফুলের নাম। আমার কি মনে হয়, জানেন? গোলাপ ফুলটা না থাকলে ভালোবাসার এত ইতিহাস তৈরি হয় না, গোলাপের কাঁটায় ক্ষত হত না কোন প্রেমিক। তবে এটাও অস্বীকার করা যাবে না, গোলাপ গাছ না থাকলে সফল হত না এত এত প্রেম। যাক গে, প্রেমিক-প্রেমিকার ভালোবাসার বাহিরেও গোলাপ ফুল ভালোবাসা বহন ও লালন করে মানুষের মনে। সেই ভালবাসাটা জন্ম হয় স্বয়ং গোলাপ

মুখের ত্বক সতেজ রাখার উপায়

সতেজ-তারুণ্যদীপ্ত চেহারা পাওয়ার আকাঙক্ষা কার না আছে? কিন্তু সবার এই আকাঙক্ষা কি পূরণ হয়? সময়ের স্রোতে ব্যস্ততার ছুটন্ত ঘোড়ায় চেহারার দিকে খেয়াল রাখার ফুসরত ক’জনার হয়ে থাকে। কিন্তু কিছু উপায় অবলম্বন করলে সহজেই নিজেকে সতেজ ও তারুণ্যদীপ্ত রাখা যায়।   ১। প্রতিদিন স্বাস্থ্য সম্মত, প্রষ্টিকর খাবার খান এবং পানি পান করুন। সঠিক পুষ্টি হলো তরুণ দর্শন হওয়ার এবং দীর্ঘ ও সুস্থ জীবন যাপনের শ্রেষ্ঠ উপায়। ২। প্রতি সপ্তায় একবার বাষ্পস্নান করুন। বাষ্পস্নান সপ্তাহে একবার করলে