Browsing Category

সৃজনশীলতা/ ক্রিয়েটিভ ক্রাফট / আপন কারিগর

বোতলের ক্যাপ দিয়ে বানান নান্দনিক টেবিল

বোতলের ক্যাপ দিয়ে বানান নান্দনিক টেবিল

আমাদের অনেকেরই বিভিন্ন কিছু জমানোর শখ যেমনঃ ডাকটিকেট, মুদ্রা, বোতলের ক্যাপ ইত্যাদি   থাকে। এই শখের জিনিসগুলোকে সুন্দরভাবে উপস্থাপন বা সাজিয়ে রাখা নিয়েও কিন্তু আমাদের মধ্যে কত চিন্তা কাজ করে থাকে। আপনার শখ যদিকোমল পানীয়ের বোতলের ক্যাপ জমানো হয়ে থাকে তবে বোতল ক্যাপগুলোকে একটা টেবিলের উপর সাজিয়ে রাখতে পারেন।এইভাবে আপনার পুরনো বা একঘেয়ে টেবিলকে যে কত সুন্দর করে তোলা যায় তা হয়ত আপনি ভাবতেই পারছেন না। কাঁচের বোতলের ক্যাপ বা প্লাস্টিক বোতল দুই ধরনের বোতলের ক্যাপ

হাতে তৈরি শুভেচ্ছাকার্ড

হাতে তৈরি শুভেচ্ছাকার্ড

একটা সময় ছিল কোন বিশেষ দিন বা ঈদে প্রিয়জন, বন্ধুবান্ধবকে শুভেচ্ছাকার্ড দিয়ে শুভেচ্ছা না জানালে যেন উৎসবের আনন্দ অপূর্ণ রয়ে যায়।এখন সে জায়গা দখল করেছে মোবাইলের মেসেজ বা কোন সোশ্যাল মিডিয়ায় ম্যাসেজ আদান-প্রদান।একটু ভেবে দেখুন তো শুভেচ্ছাকার্ডের সেই ভাললাগা কি পুরোপুরি এখন পাওয়া যায় এই ভার্চুয়াল ম্যাসেজ আদান প্রদানে?? শুভেচ্ছাকার্ড কিন্তু এখনও কিনতে পাওয়া যায় দোকানে। বিভিন্ন গিফট সপে বা লাইব্রেরিতে ঈদের আগের নানা ডিজাইনের শুভেচ্ছাকার্ড পাওয়া যায়। সেখান থেকে পছন্দমত কার্ড কিনে বন্ধু-বান্ধবকে দিন।

প্লাস্টিকের বোতল দিয়ে ন্যাপকিন/টিস্যু হোল্ডার

প্লাস্টিকের বোতল দিয়ে ন্যাপকিন/টিস্যু হোল্ডার

আমাদের দৈনন্দিন কাজে আমরা কত রকম যে প্লাস্টিক পণ্য ব্যবহার করে থাকি তার ইয়াত্তা নাই। এরমদ্ধে প্লাস্টিক বোতল অন্যতম। এই প্লাস্টিক বোতলগুলো কিন্তু একবার ব্যবহার উপযোগী করেই বানানো হয়। মানে একবার ব্যাবহার করেই ফেলে দিতে হবে। কিন্তু আমরা প্রায় অনেকেই একই বোতল বারবার ব্যবহার করে থাকি। সেটা মোটেও ঠিক না। তার চেয়ে এইসব প্লাস্টিক বোতল দিয়ে নানা রকম ক্রাফটিং এর কাজ করা যায়। তাই করা ভাল না? একদিকে সুন্দর কিছু জিনিসও বানানো হল আবার প্লাস্টিক

ভাঙ্গা ক্রেয়নের জাদু!!

ভাঙ্গা ক্রেয়নের জাদু!!

ছোট্ট সোনামণি তার ছোট্ট হাতে যখন সাদা কাগজে নানা রঙের ক্রেয়ন নিয়ে বিভিন্ন আঁকিবুঁকি করে কত যে ভাল লাগে! কিন্তু বাচ্চারা আঁকতে যেয়ে প্রায়ই মোমের ক্রেয়নগুলো ভেঙ্গে ফেলে।কারন এই মোমের ক্রেয়নগুলো অনেক নরম ও ভঙ্গুর। বা সুন্দর ক্রেয়নগুলো এক সময় খুব ছোট হয়ে যায়।তাই বলে কত আর নতুন নতুন ক্রেয়নের প্যাকেট কেনা যায়!! তখন সেগুলোকে ফেলে না দিয়ে আপনি খুব সুন্দর সুন্দর ক্রাফট করতে পারবেন আপনার সোনামণিকে সাথে নিয়ে।কি করা যায় তাহলে বলুন তো?? এই

এয়ার কুলার

বাড়িতে বসে প্লাস্টিকের জার দিয়ে বানিয়ে ফেলুন এয়ার কুলার

গ্রীষ্মকাল চলে এসেছে। গ্রীষ্মকালের এই প্রখর গরমে বিরক্ত হয় না এমন মানুষ খুজে পাওয়া দুষ্কর। গরমের এই চরম ক্লান্তির সাথে রয়েছে লোড শেডিং যা এই বিরক্তের মাত্রা আরো বাড়িয়ে দেয়। একটা এয়ার কুলার আপনাকে এই গরমের ক্লান্তির হাত থেকে বাঁচাতে পারে। আপনার নিজের হাতের তৈরি এয়ার কুলার আপনাকে গরমে স্বস্তির নিঃশাস দিতে পারে । এই এয়ার কুলার আপনি সহজেই স্থানান্তর করতে পারবেন – মানে আপনি ঢাকা থেকে বাড়িতে গেলেন ৭ দিনের সফরে, সেখানেও আপনি এয়ার

কাগজ দিয়ে দারুণ দুটি ক্রাফট!

কাগজের খেলা, এক কথায়  যাকে বলে অরিগ্যামি। এই অরিগ্যামির প্রতি অল্প আধটু টান আমাদের অনেকের আছে। আজ দেখে নিন,কাগজ দিয়ে বানানো দারুণ দুটি ক্রাফট আইডিয়া। আর এজন্য কাগজ ছাড়া আর বিশেষ কোন উপাদান ই লাগবে না। ১: কাগজের ফুল : যা যা লাগবে : গ্লু/গাম কালারফুল কাগজ। যেভাবে বানাবেন : ১: একটি স্কয়ার শেপের কাগজকে মাঝখানটায় কেটে অর্ধেক করে নিন। একটি কাগজ রোল করে নিন। গ্লু দিয়ে শেষ প্রান্ত টা লাগিয়ে দিন। ২: এবার অন্য

আয়নায় দিন নতুন লুক!

প্রতিদিন নিজের মুখচ্ছবি আয়নায় না দেখলে যেনো দিনই কাটে না! কমপক্ষে দিনে ৬-১০ বার তো আয়না দেখেই থাকেন আপনি তাই না? কেমন হয় যদি প্রিয় নরমাল আয়নাকেই দিতে পারেন একটু অন্য রকম লুক? চলুন দেখে নেই, কিভাবে আপনি অতি সহজে,খুব সুন্দর একটা আয়না ডেকোরেশন করতে পারবেন। যা যা লাগবে : রাউন্ড শেপের আয়না একটি। কটন গ্লাস ( ওড়না, বা ড্রেসে অনেক সময় এই আয়না ব্যবহার করা হয়ে থাকে) শক্ত পাতলা স্টিলের স্টিকস।১৫-২০ টা। গ্লু পরিমাণমতো।

মেহদী সন্ধ্যায় থালার বাহার

ডিসেম্বর থেকে মার্চ বাংলাদেশে এই তিন মাস হচ্ছে বিয়ের সিজন। বিয়ে,  বাঙালীদের মাঝে এই ব্যাপারটা নিয়ে থাকে তুমুল আগ্রহ। অনুষ্ঠানের ও থাকে না অভাব। শত ঝামেলার মাঝেও সব কিছু হওয়া চাই সেরার চেয়ে ও সেরা। আসলেই তো, বিয়ে ব্যাপারটা জীবনে একবারই আসে তাই কনে পক্ষ বা বড় পক্ষ দু পক্ষের মাঝেই এই নিয়ে থাকে শত প্ল্যান ও আগ্রহ। তবে তাড়াহুড়োর মাঝে সব কিছুই যেনো হয়ে যায় এলোমেলো, এর মধ্যে দ্বিধা সৃষ্টি হয় মেহদির থালা সাজানো

ওয়াসি টেপে নতুন আপনার প্রিয় জিনিস

ওয়াসি টেপে নতুন আপনার প্রিয় জিনিস

বর্তমান সময়ে বিভিন্ন ধরনের ক্রাফটের কাজ খুব জনপ্রিয় হয়েছে। অনেকেই এখন ক্রাফটের কাজে খুব ভালো করছেন। কিন্তু অনেকে যারা আমার মত তারা ক্রাফটের কাজ তেম্ন ভালো পারি না তবে সহজ কিছু হলে করতে চাই। তাদের জন্য সবচেয়ে ভালো পদ্ধতি হল ওয়াসি টেপ  দিয়ে ডেকোরেশন করা। ওয়াসি টেপ  হল এক ধরনের জাপানি অ্যাডহেসিভ ডিজাইন করা টেপ। এটা দিয়ে নিজের মনের মাধুরী মিশিয়ে আপনি নানা ধরনের ডিজাইন করতে পারবেন যে কোন কিছুতে। আবার প্রিয় কোন জিনিস পুরাতন হয়ে

ম্যাচ বক্স দিয়ে তৈরী করুন, অসাধারণ জুয়েলারি বক্স!

ক্রাফট, কারো কাছে হবি, কারো কাছে নেশা, তো কারো কাছে পেশা। আর আমরা, সাধারণত শখের কারণেই ক্রাফট ব্যাপারটাকে ভীষন ভালোবাসি। খুব ছোট ছোট জিনিস দিয়েই বানানো যায় অসাধারণ সব জিনিস। আজকে এমনি একটি ছোট্ট ক্রাফট আইডিয়া শেয়ার করবো শিখে নিবো, কিভাবে ম্যাচ বক্স দিয়ে জুয়েলারি বক্স বানাবেন।তো, চলুন দেখে নেওয়া যাক! যা যা লাগবে : ম্যাচ বক্স ১২ টা। ম্যাচের কাঠি ১২ টা। গ্লু। আর্ট পেপার। স্কেল শক্ত মানের ডেকোরেটিভ আর্ট পেপার। কালার ( অপশনাল)