Browsing Category

বহুরূপী পণ্যগুলো

ফলিক এসিডের আত্মকাহিনী

ফলিক এসিড ফোলেট নামেও পরিচিত। সবুজ পাতা জাতীয় শাকসবজি, টক ফল ও ডাল জাতীয় খাবারে ফলিক এসিড প্রচুর পরিমাণে বিদ্যমান থাকে। উন্নত বিশ্বে আটা, ময়দা, চাল জাতীয় খাবারের সঙ্গে কৃত্রিমভাবে ফলিক এসিড সংমিশ্রণ করে সরবরাহ করা হয়। সবুজ পাতা সমৃদ্ধ খাবার যেমন- পুঁইশাক, পাটশাক, মুলাশাক, সরিষা শাক, পেঁপে, লেবু, ব্রকলি, মটরশুঁটি, শিম, বরবটি, বাঁধাকপি, গাজর  ইত্যাদি। আম, জাম, লিচু, কমলা, আঙ্গুর, স্ট্রবেরি ইত্যাদি। বিভিন্ন ধরনের ডাল যেমন- মসুর, মুগ, মাষকালাই, বুটের ডাল ইত্যাদিতে ফলিক এসিড

ফিটকিরির গুণ ও গান

ফিটকিরি নানা কাজে ব্যবহৃত হয়ে থাকে। আমরা জানি পানি পরিশ্রুত করতে ফিটকিরির ব্যবহার করা হয়৷ কিন্তু শুধু তাই নয় ফিটকিরির রয়েছে বিভিন্ন উপকারিতা৷ আপনি হয়ত জানেনই না ত্বকের যত্ন নিতে ব্যবহার করা হয়ে থাকে ফিটকিরি৷ তাই অতি সহজেই কীভাবে ত্বকের যত্ন নেবেন দেখে নিন৷ ১। মুখে ব্রণ হয়েছে? একটার পর একটা ফেসওয়াস বদলাচ্ছেন? কিন্তু কিছুতেই ব্রণ কমছে না? তাহলে নিয়মিত ব্রণতে একটু ফিটকিরি ঘষে নিন৷ প্রতি মাসে মুখের ট্যান পরিষ্কার করার জন্য পার্লারে টাকা খরচা

কন্ডিশনারের কোয়্যালিফিকেশন

কন্ডিশনার আমাদের নরম, হাইড্রেটেড চুল পেতে সাহায্য করে। শ্যাম্পু ব্যবহার করার পর কন্ডিশনার ব্যবহার না করলে চুলে একটা খসখসে ভাব যেন থেকেই যায় সেটা যত স্মুদ আর শাইনি চুলই হোক না কেন। তবে চুলের যত্ন ছাড়াও কন্ডিশনার যে আরো বিস্ময়কর কিছু কাজে ব্যবহার করা যায় সেটা হয়তো অনেকেই জানেন না। হ্যাঁ, কন্ডিশনারের এমন কিছু অদ্ভুত ব্যবহার রয়েছে যা জানলে সত্যিই আপনি খুব অবাক হবেন। তাহলে চলুন দেখে নেয়া যাক কন্ডিশনারের ৮ টি ভিন্নধর্মী ব্যবহার সম্পর্কে।

ম্যাচ বক্স দিয়ে তৈরী করুন, অসাধারণ জুয়েলারি বক্স!

ক্রাফট, কারো কাছে হবি, কারো কাছে নেশা, তো কারো কাছে পেশা। আর আমরা, সাধারণত শখের কারণেই ক্রাফট ব্যাপারটাকে ভীষন ভালোবাসি। খুব ছোট ছোট জিনিস দিয়েই বানানো যায় অসাধারণ সব জিনিস। আজকে এমনি একটি ছোট্ট ক্রাফট আইডিয়া শেয়ার করবো শিখে নিবো, কিভাবে ম্যাচ বক্স দিয়ে জুয়েলারি বক্স বানাবেন।তো, চলুন দেখে নেওয়া যাক! যা যা লাগবে : ম্যাচ বক্স ১২ টা। ম্যাচের কাঠি ১২ টা। গ্লু। আর্ট পেপার। স্কেল শক্ত মানের ডেকোরেটিভ আর্ট পেপার। কালার ( অপশনাল)

ফেলনা সবজির খোসায় সুস্বাদু ভর্তা

সবজি কেটে আমরা সাধারণত খোসা ফেলেই দিই। কিন্তু খোসাতেই বেশি পুস্টি বেশি একথা তো সবাই জানি। কিছু কিছু সবজির যেমন- মিস্টি কুমড়া, কাচাঁ কলা, লাউ, পটলেরর খোসাও খাওয়া যায়। চলুন সবজির খোসার মজাদার ও সুস্বাদু ভর্তার উপকরণ ও প্রক্রিয়া দেখে নিন। মিস্টি কুমড়ার খোসা ভর্তা * মিস্টি কুমড়ার খোসা – ১ কাপ, শুকনা মরিচ/ কাচাঁ মরিচ – ৪/৫ টি,  লবন- স্বাদমত, পেঁয়াজ কুচি – ২টেবিল চামচ, রসুন কুচি – ১ টেবিল চামচ, ধনেপাতা কুচি-১ টেবিল চামচ, সরিষার তেল -১ টেবিল চামচ, কালোজিরে – ১/২ চা চামচ (ইচ্ছা) । – মিস্টি কুমড়ার খোসা সিদ্ধ করে, পানি শুকিয়ে নিন। কালোজিরে আলাদা টেলে নিন। এবার সব উপকরণ একসাথে বেটে নিন। অথবা সরিষা তেল গরম করে খোসা সিদ্ধ ও সব উপকরণ ভেজে নিয়ে বেটে নিন। চাইলে চিংড়ি শুটকিও দেয়া যায়। লাউয়ের খোসা ভর্তা * লাউয়ের খোসা – ১ কাপ, চিংড়ি মাছ কুচি – ২ টেবিল চামচ, শুকনা মরিচ টালা – ৪/৫ টি, পেঁয়াজ কুচি – ২ টেবিল চামচ, রসুন কুচি – ১ টেবিল চামচ, সরিষার তেল – ১ টেবিল চামচ, হলুদ গুড়াঁ- সামান্য , লবন- পরিমানমত ধনেপাতা কুচি

এবার ফেলনা টুথব্রাশ দিয়েই হয়ে যাক দারুণ কিছু

একি করছেন? আপনার পুরোনো টুথব্রাশ টি ফেলে দিচ্ছেন?তাহলে থামুন । ফেলে দেয়ার আগে আরেকবার ভাবুন। যদি এই ফেলনা টুথব্রাশ দিয়ে আপনি অন্য অনেক জিনিস পরিস্কার করার পাশাপাশি আপনার রূপচর্চায় ও ব্যবহার করতে পারেন, তাহলেও আপনি এটি ফেলে দিবেন? নিশ্চয় ই নয়। ফেলে দেয়া টুথব্রাশ দিয়ে আপনি এমন অনেক কিছুই করতে পারেন, যা একই সাথে  আপনার সময়, শ্রম ও টাকা বাঁচাবে । তাহলে দেরি কেন? আসুন জেনে নেই ফেলে দেয়া টুথব্রাশ ( ফেলনা টুথব্রাশ ) এর

ময়দার শত ফায়দা!

ময়দা, রুটি বা পরোটা প্রিয় মানুষের কাছে শ্রেষ্ট উপাদান ময়দা। তবে এই ময়দা আরো অনেক পটু। নানান কাজে আসবে আপনার। ভিন্ন ভাবে ছোট ছোট ক্ষেত্রে কাজে লাগান ময়দা। এক নজরে দেখে নিন কি কাজে আসতে পারে ময়দা… তেল পরিষ্কার করতে: তেলের বোতল উল্টে সব তেল মাটিতে পড়ে গেছে? তেলতেলে ভাব উঠানো খুব বেশি ঝামেলা। তবে ময়দা এই কাজকে পানির মতো সহজ করে দেবে। তেলের উপর ময়দা ছিটিয়ে দিন। ময়দা সব তেল শুষে নেবে। এরপর ভেজা

চালের ভিন্ন রকম কিছু কাজ জেনে নিন।

চাল, এক কথায় সবাই চিনি। ভাত রান্না হয় অতি প্রয়োজনীয় এই উপাদান দিয়ে। নিত্যদিনের সাথে আষ্টেপৃষ্টে জড়িয়ে আছে চাল ! ছোট একটি শব্দ “চাল” কিন্তু তা যে কতখানি কাজে আসবে আজ জেনে নিন। আপনি একটু অবাকই হবেন হয়তো। 👉 ব্লেন্ডার নষ্ট হয়ে গেছে? ব্লেড ভালোভাবে কাজ করছে না? নতুন ব্লেন্ডার কেনার চিন্তা মাথা থেকে ঝেড়ে ফেলুন। আধা কাপ চাল ব্লেন্ডারে ছেড়ে দু মিনিট ব্লেন্ড করুন। এরপর দেখবেন ব্লেন্ডার আবার আগের জায়গায় চলে এসেছে। নতুন কেনার

আপনার ফ্রিজে রাখা আইস ট্রে কাজে লাগান অন্যভাবে।

ফ্রিজে রাখা আইস-ট্রে গরমের দিনে দারুণ কাজে দেয়। তবে এই আইস-ট্রে বরফ ছাড়া আরো অনেক কিছু তৈরী করতে পারে। একটু অন্যভাবে কিভাবে আইসট্রে কাজে লাগাবেন দেখে নিন এক ঝলক। লেবু ও পুদিনা টুকরো : সফট ড্রিংক বা যেকোন ধরনের শরবতে একটু লেবুর ফ্লেভার চাই? অথবা ত্বকে একটু পুদিনা পাতার রস লাগাতে হবে? এক কাজ করুন আইসট্রেতে লেবুর রস ঢালুন। বরফ হয়ে গেলে এই লাইম ফ্লেভার যেকোন শরবতে যোগ করুন। চিনির স্ক্রাব টুকরো : জানেন? চিনির

বেকিং সোডার কত কি!

বেকিং সোডা শুধু খাদ্য তৈরীতে নয় আরো অনেক কাজে আসে। দেখে নিন এক ঝলক …….. 👉 বেকিং সোডা এবং হাইড্রোজেন পার-অক্সাইড মিশিয়ে ঘন টুথপেস্ট তৈরী করুন। এই টুথপেস্ট ব্যবহার করলে দাঁত পরিষ্কার থাকবে। 👉 তরতাজা নিঃশ্বাসের জন্য দু কাপ পানিতে এক টেবিল চামচ বেকিং সোডা এবং সমপরিমাণ লেবুর রস মিশিয়ে মাউথওয়াশ হিসেবে ব্যবহার করুন। 👉 পোঁকা মাকড়ের কামড় খেলে ক্ষতস্থানে সাথে সাথে বেকিং পাউডার পানিতে মিশিয়ে লাগিয়ে নিন। সাথে সাথে জ্বালাপোড়া কমে যাবে। 👉 সাবান