Browsing Tag

বিউটি টিপস

শীতে ত্বকের পর্যাপ্ত যত্ন

শীতে ত্বকের পর্যাপ্ত যত্ন

বলতে বলতে চলে এলো শীত। আমাদের অনেকেরই প্রিয় ঋতু শীত। তাই শীতকাল নিয়ে আমাদের বেশ আগ্রহ নিয়েই অপেক্ষা করি। তবে এই ঋতুতেই সবথেকে বিড়ম্বনায় পরতে হয় ত্বকের যত্ন নিয়ে। প্রিয় ঋতুতে ত্বকের অপ্রিয় রূপ কে’ইবা দেখতে চায়! শীতে ঠাণ্ডায় শরীরে বিভিন্ন ধরনের পরিবর্তন হয়ে থাকে।শীতকালে শুষ্ক শীতল হাওয়া ও বাতাসে বেড়ে যাওয়া ধুলাবালুর কারণে ত্বক হয়ে যায় খসখসে ও মলিন। এর ফলে দেখা দেয় নানা সমস্যা। তাই শীতকালে ত্বকের সুস্বাস্থ্য রক্ষায় দরকার বাড়তি যত্ন ও

যে ছয়টি কারণে সৃষ্টি হতে পারে ব্রণ।

ব্রণ, যেনো হয়ে উঠেছে নিত্যদিনকার এক সমস্যা। প্রতিদিনের ধুলোবালিতে ত্বকে সৃষ্টি হতে পারে ব্রণ। এছাড়াও ব্রণ সৃষ্টি হতে পারে আরো নানা কারণে। এরকমই ছয়টি কারণ সম্পর্কেই আজকের এই পোস্ট। ১ঃ চকোলেট: এট শোনে অনেকেরই মন ভেঙ্গে যাবে। কিন্তু এটাই সত্য অতিরিক্ত চকোলেট খেলে আপনি কখনোই ব্রণের সমস্যা থেকে মুক্তি পাবেন না। চকোলেটে উপস্থিত উপাদানগুiলো ব্রণ সৃষ্টির অন্যতম কারণ। চকোলেট খাওয়া নিয়ন্ত্রন করতে পারলে আপনি পেতে পারেন উজ্জল ও সুন্দর ত্বক। তাই চকোলেট লাভাররা আজ থেকেই

এই গরমে ত্বকের স্বস্থিতে বরফ কুচির উপকারীতা।

এই গরমে ঘামে নেয়ে ত্বকের অবস্থা যাচ্ছেতাই!  ত্বক যেনো খোঁজে ফিরছে একটু স্বস্থির পরশ। গরমের এই দিনগুলোতে ত্বকের অনেক সমস্যাই দূর করবে বরফ কুচি। চলুন দেখে নেওয়া যাক শুধু মাত্র বরফ কুচি কি কি উপকার করবে আপনার ত্বকের। ১ঃ ব্রণ সারাতে – ত্বকে ময়লা ও ব্যাকটেরিয়ার আক্রমণে জন্ম নেয় ব্রণ। গরমের দিনে ব্রণের আক্রমণ দিগুণ বেড়ে যায়। এ থেকে মুক্তি পেতে ব্রণের উপর লেবুর রস লাগিয়ে নিন। এরপর বরফ কুচি দিয়ে ভালো করে স্কিন ম্যাসেজ

হোম মেইড বডি বাটার ক্রিম।

শুধু কি মুখের ত্বকের যত্ন নিলেই হবে?  উহু,একদম না ! আপনার পুরো স্কিনের চাই পারফেক্ট যত্ন! এজন্য দেখে নিতে পারেন চটপট কিভাবে নিজেই বানিয়ে নিবেন বডি বাটার ক্রিম। আপনাদের জন্য রইলো দু ধরনের বডি বাটার ক্রিম বানানোর পদ্ধতি। ১ঃ কোকোনাট বডি বাটার ক্রিমঃ নারিকেল ত্বকের যত্নে খুবই কার্যকরী এটি ত্বকে ময়েশ্চারাইজার ধরে রাখার পাশাপাশি আপনার ত্বকের টক্সিন ও বের করে দেয়। এছাড়াও নারিকেল তেল ব্যাকটেরিয়া ও ত্বকের ফাঙ্গাল ইনফেকশন দূর করে। উপাদানঃ দুই টেবিল চামচ

হাতের কাছের জিনিস দিয়েই রূপচর্চা।

ত্বক ভালো রাখতে ক্যামিকেল যুক্ত প্রডাক্টের চেয়ে শতগুণ বেশি কার্যকর হতে পারে হাতের কাছে থাকা প্রাকৃতিক উপাদান। আজ দেখে নিবো কিভাবে হাতের নাগালে থাকা উপাদান দিয়ে যত্ন নিবেন ত্বকের। এলোভেরা ও লেবুর রস ঃ এলোভেরা ও লেবুর রস দুটোই ত্বকের জন্য খুবই উপকারী। লেবুর রস প্রাকৃতিক ব্লিচিং হিসেবে কাজ করে। ব্যবহারবিধিঃ এক টেবিল চামচ লেবুর রস ও এক টেবিল চামচ এলোভেরা জেল একসাথে মিশিয়ে ত্বকে লাগিয়ে রাখুন আধা ঘন্টার মতো। এরপর ঠান্ডা পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে

রূপচর্চায় তিসির জেল !

তিসি দানা ভিটামিন এ , ভিটামিন বি ওমেগা 3 সহ নানান পুষ্টি উপাদানে ভরপুর ।তিসির জেল আপনার রূপের যত্নে রাখতে পারে গুরত্বপূর্ণ ভূমিকা। তিসি ফ্ল্যাক্সসীড নামেও পরিচিত ৷ চলুন দেখে নেই তিসির সাহায্যে আপনি কিভাবে আপনার ত্বক ও চুলের যত্ন নিতে পারবেন। এর আগে দেখে নেওয়া যাক কিভাবে তিসির জেল বানাবেন … তিসির জেল বানানোর পদ্ধতিঃ তিসির জেল বানাতে এক কাপের অর্ধেক পরিমাণ তিসি দানা খুব ভালো করে ধুয়ে নিন। এবার এক কাপ পরিমাণ পরিষ্কার

সৌন্দর্য্য চর্চায় কফি।

কফি, সকালের শুরু বা সন্ধ্যার পড়ার টেবিলে এক কাপ কফি এনে দিতে পারে স্বস্থি!  ওজন কমাতেও জুরি নেই কফির। চুল রাঙাতেও কাজে আসে কফি। এছাড়াও সৌন্দর্য্য চর্চায়ও কিন্তু কফির আছে নানা গুণ। কথা না বাড়িয়ে এক নজরে দেখে আসি কফির কিছু ভিন্নতর ফায়দা! ১: মসৃন ও কোমল ত্বক : কফি অনেক ভালো বডি স্ক্রাব হিসেবে কাজ করে। কফি ব্লেন্ডারে ব্লেন্ড করে (পানি ছাড়া) আরো মিহি করে নিন এর সাথে ব্রাউন সুগার, দু এক ফোঁটা ভ্যানিলা

ত্বক ও চুলের যত্নে আমলা যখন ভরসা

রমজানে ত্বকের যত্ন।

চলছে পবিত্র মাহে রমজান। আবহাওয়া বেশ গরম এখন। আপনার ত্বকের এ সময় চাই আলাদা যত্ন। কিন্তু রমজান মাসে ঠিক তেমন আয়োজন করে ত্বকের যত্ন নেওয়া হয়ে উঠে না। আজকে দেখে নিন কিভাবে সহজেই বিনা ঝামেলায় আপনি নিজের ত্বকের যত্ন নিতে পারবেন। সহজ কিছু ব্যাপার খেয়াল রাখার মাধ্যমে। ১: রমজান মাসে অবশ্যই খুব বেশী করে পানি খেতে হবে। কেননা, এই সময় সারাদিন পানি খাওয়া হয় না। তাই প্রতিদিন অন্তত ৮ গ্লাস পানি খেতে চেষ্টা করুন। পানির

ঘরে বসেই করে ফেলুন ন্যাচারাল ফেসিয়াল।

ফেসিয়াল আপনার ত্বকের জন্য খুব জরুরী কেননা আজকালকার পলিউশনে ত্বকে ময়লা খুব সহজে জমে। এসব ধুলো -বালি আপনার ত্বকে জমে আপনার ত্বকে হতে পারে ব্রণ এছাড়াও দেখা দিতে পারে আরো নানান সমস্যা। এজন্য সমাধান হিসেবে কাজ করবে ন্যাচারাল ফেসিয়াল।ঘরে বসে স্বল্প কিছু উপাদান দিয়েই আপনি করতে পারেন ন্যাচারাল ফেসিয়াল। চলুন তবে ধাপে ধাপে দেখে নেই কিভাবে করবেন ন্যাচারাল ফেসিয়াল। প্রথমেই, চুল একটা হেয়ার ব্যান্ড দিয়ে চুল পেছনের দিকে টেনে বেঁধে নিন। যাতে চুলের কারণে কোন

চুলের কোমলতা ও মসৃনতা ধরে রাখতে ঘরোয়া কিছু উপাদান।

চুলের যত্নে কি করছেন আপনি?  সপ্তাহে দু দিন তেল?  উহু, এই যথেষ্ট নয়। অযত্ন আর অবহেলায় আপনার প্রাণবন্ত চুল হারাতে পারে এর প্রাণ। চুল খসখসে হয়ে যাওয়াটা ও খুব সাধারন একটা ব্যাপার। প্রাকৃতিক ভাবে চুলের কোমলতা ধরে রাখবে ঘরোয়া কিছু উপাদান। চলুন জেনে নেই বিস্তারিত…. ১: মেয়োনিজ : আমাদের ঘরে প্রায় সবসময়ই এই উপাদানটা থাকে। চুলের কোমলতা ধরে রাখতে দারুণ কাজের এই উপাদানটি। দু টেবিল চামচ মেয়োনিজ ( চুল বড় হলে প্রয়োজনে আরেকটু বেশি দরকার