ত্বক ও চুলের যত্নে হলুদের উপকারীতা।

রূপচর্চায় সেই আদিকাল থেকে ব্যবহৃত হচ্ছে হলুদ। চুলের যত্নে হোক বা ত্বকের যত্নে। হলুদের মতো কার্যকর আর কিছু নেই।

চলুন আজ দেখে নেই হলুদের কিছু উপকারীতা :

👆 ব্রণ সারাতে দারুণ কাজ করে হলুদ। এর এ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল ক্ষমতা আপনার ত্বককে শুধু উজ্জলই করবে না এর এ্যান্টিসেপটিক ক্ষমতা আপনার ত্বককে ব্রণের আক্রমণ থেকে রক্ষা করবে। চন্দন গুড়োর সাথে সমপরিমাণ কাঁচা হলুদের গুড়া মিশিয়ে নিন পানি দিয়ে ঘন পেস্ট তৈরী করে মুখে লাগান। এরপর দশ মিনিট পর হালকা গরম পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে নিন। ব্রণের দাগসহ ব্রণ দুর হবে।

👆 বলিরেখা দুর করতে হলুদের ক্ষমতা প্রচুর! টমেটোর রস/ চালের গুড়া, অথবা গুড়া দুধের সাথে হলুদের গুড়া মিশিয়ে প্যাক তৈরী করুন। এই প্যাক বলিরেখা দুর করার পাশাপাশি ত্বক উজ্জলও করবে।

👈 যারা খুশকীর সমস্যা ভোগছেন তারা ব্যবহার করুন হলুদ। হলুদের এ্যান্টিসেপটিক ক্ষমতা খুশকী তাড়াতে কাজ করবে। অলিভ অয়েলের সাথে সমপরিমাণ হলুদের গুড়া মিশিয়ে মাথায় ম্যাসেজ করুন। এরপর শ্যাম্পু করে নিন। খুশকী কমতে শুরু করবে।

এছাড়াও, কাটাছেড়া বা ত্বকের ইনফেকশন কমাতে হলুদের গুড়া কাজ করবে। সলাসরি হলুদের গুড়ো ত্বকে লাগিয়ে নিন। এছাড়াও প্রতিদিন সকালে হলুদের গুড়া পানিতে মিশিয়ে খেলে আর্থাসাইসিস বা জন্ডিসের হাত থেকে বাঁচাবে। ভেতর থেকে ত্বকের উজ্জলতা ফুটিয়ে তুলবে হলুদ পানীয়।

হলুদ ত্বক ও চুলের জন্য খুব ভালো এক উপাদান। কাঁচা হলুদ রোদে শুকিয়ে গুড়ো করে দীর্ঘদিন সংরক্ষন করতে পারেন।

মন্তব্যসমূহ

বর্তমানে শিক্ষার্থী এছাড়া আর কিছু করছি না। সিলেটে থাকি। লেখালেখি আমার পুরাতন শখ। আর কখনোই এই শখ বাদ দিতে চাই না। এছাড়া বলার মতো আর কিছু আপাতত খুঁজে পাচ্ছি না।

মন্তব্য করুন