কাঁচামরিচের ঝালেই উপকার !

কাঁচামরিচ খেতে আমরা সবাই কম বেশি পছন্দ করি। বাঙ্গালীদের কাছে তো এই কাঁচামরিচ আরেকটু বেশিই পছন্দের। কাঁচামরিচের ঝাল কোন ক্ষতিকর কিছু নয়, আমরা অনেকেই মনে করি কাঁচামরিচের ঝালে আমাদের ক্ষতি হতে পারে। আসলে ব্যাপারটা তা নয়। বরং এই ঝাল আপনার অনেক উপকার ও করতে পারে। চলুন এক নজরে দেখে নেওয়া যাক কাঁচামরিচের কিছু উপকারীতা।

১: কাঁচামরিচ খাওয়ার তিন ঘন্টার মধ্যেই আপনার শরীরের মেটাবলিজম বৃদ্ধি পায়। কাঁচামরিচ শরীরের মেটাবলিজম ক্ষমতা ৫০% বেশি বৃদ্ধি করতে সক্ষম।

২: কাঁচামরিচে আছে এ্যান্টি অক্সিডিয়েন্ট যা ক্যান্সার প্রতিরোধক হিসেবে কাজ করে। ক্যান্সারের সাথে লড়াই করতে পারে কাঁচামরিচে উপস্থিত এ্যান্টি অক্সিডিয়েন্ট।

৩: কাঁচামরিচ রক্তের কোলেস্টরল নিয়ন্ত্রণে রাখে। যার ফলে হার্ট এ্যাটাকের ঝুঁকি অনেকটাই কমে যায়।

৪: সাইনাসের সমস্যা, মাথা ব্যাথা, বা ঠান্ঢা লাগা সারাতে জুড়ি নেই কাঁচামরিচের !

৫: যারা অতিমাত্রায় গ্যাস্ট্রিকের সমস্যায় ভোগছেন তারা কাঁচামরিচ খেলে গ্যাস্ট্রিকের ব্যাথা থেকে মুক্তি পেতে পারেন। এই ঝাল খেলে আপনার কোন ক্ষতি হবে না । কারণ কাঁচামরিচের ঝাল ব্যাথা সারাতে দারুণ কাজ করে।

৬: কাঁচামরিচে আছে ভিটামিন সি ও বিটা ক্যারোটিন যা চোখের জন্য ভালো। কাঁচামরিচের ভিটামিন ঠিকিয়ে রাখতে এই মরিচ তুলনামূলক অন্ধকার স্থানে রাখুন। কারণ উজ্জল আলো, বাতাস কাঁচামরিচের ভিটামিন সি নষ্ট করে দিতে পারে।

৭: অবসাদ কাটাতে ও ইমিউনিটি সিস্টেম ভালো রাখতেও বেশ কাজের জিনিস কাঁচামরিচ !

৮: কাঁচামরিচে প্রচুর পরিমাণ আয়রন আছে যা আপনাকে রক্ত শূন্যতা থেকে মুক্তি দেবে। এ্যানিমিয়ার রোগীরা বেশি করে এই মরিচ খেতে পারেন।

৯: এই মরিচে উপস্থিত ভিটামিন “কে” অধিক রক্তক্ষরণ থেকে রক্ষা করে। যার ফলে কোনভাবে আপনি আঘাতপ্রাপ্ত হলে অতিরিক্ত রক্তক্ষরণ হবে না।

১০: এই মরিচে প্রচুর পরিমাণ ভিটামিন সি রয়েছে যার ফলে এটি ত্বকের জন্য ভালো। এই মরিচ ত্বকের উজ্জলতা বৃদ্ধি করবে এবং আপনাকে স্কিন ইনফেকশনের হাত থেকে রেহাই দেবে।

১১: রক্তে সুগারের পরিমাণ নিয়ন্ত্রণে রাখবে কাঁচামরিচ এ কারণে ডায়েবেটিকস রোগীরাও প্রতিদিন অন্তত একটি করে কাঁচামরিচ খাওয়ার চেষ্টা করুন।

১২: কাঁচামরিচ তাড়াতাড়ি খাবার হজম করতে সহায়তা করবে।

১৩: কাঁচামরিচ ফ্যাট কমাতে কাজ করে। যার ফলে যারা অতিরিক্ত ওজনের সমস্যায় ভোগছেন তারা কাঁচামরিচ খেতে চেষ্টা করুন।

দেখলেন তো কাঁচামরিচ ক্ষতিকারক মনে হলেও আসলে এর অনেক গুণ রয়েছে। এই ঝাল খেলে অপকার নয় বরং উপকারই হবে আপনার।

 

মন্তব্যসমূহ

বর্তমানে শিক্ষার্থী এছাড়া আর কিছু করছি না। সিলেটে থাকি। লেখালেখি আমার পুরাতন শখ। আর কখনোই এই শখ বাদ দিতে চাই না। এছাড়া বলার মতো আর কিছু আপাতত খুঁজে পাচ্ছি না।

মন্তব্য করুন