জিনিস একই কিন্তু,ব্যবহার ভিন্ন !

আপনি জানেন কি?  আপনি নিত্যদিন যে সকল জিনিস ব্যবহার করছেন, তাদের রয়েছে ভিন্নরকম ব্যবহার। আপনি সেই সব সাধারণ জিনিসের, অন্যরকম ব্যবহার জেনে অবাক হবেন। আজ চলুন দেখে নিই কি সেই জিনিসগুলো, আর কিভাবে তা অন্যভাবে ব্যবহার করা যায়!

ঘরোয়া কিছু জিনিস, যা সবসময় আমার আপনার হাতের কাছেই আছে, এই জিনিসগুলো আপনি অনেক ক্ষেত্রে কাজে লাগাতে পারেন একটু ভিন্নভাবে।

দেখে নিন বিস্তারিত…

১: নিউজপেপার :

  • কাঁচের আয়না, চকচকে করতে নিউজপেপার বেশ কার্যকরী। একটি ভেজা কাপড় দিয়ে আয়না হালকা করে মুছে নিন। এর পর ভেজা থাকা অবস্থায় শুকনো খবরের কাগজ দিয়ে মুছে নিন। দেখবেন এক মিনিটের ভেতরই আয়না চকচক করবে!
  • ভেজা জুতো, শুকাতে জুতোর ভেতর সারারাত খবরের কাগজ চেপে রেখে দিন। পরদিন জুতো একদম শুকনো পাবেন!

২: বেবি পাউডার :

  • আপনার ল্যাদারের ব্যাগে যদি তেলের দাগ পরে যায়, তাহলে দাগের উপর সারারাত পাউডার ছড়িয়ে রেখে দিন। পরের দিন দাগ হালকা হয়ে যাবে।
  • তৈলাক্ত চুল ঝরঝরে করার জন্য, চুলের উপর পাউডার ছিটিয়ে ব্রাশ করে নিন। চুল সিল্কি ও ঝরঝরে দেখাবে।

৩: টুথব্রাশ :

  • নখের হলদেটে ভাব দূর করতে একটি টুথব্রাশে সামান্য টুথপেস্ট নিয়ে নখ ঘষে নিন। নখের হলদেটে ভাব দূর হয়ে নখ হবে চকচকে।
  • ত্বকের ব্ল্যাকহেডস দূর করতে একটি নরম ব্রাশ নিন।এতে সামান্য টুথপেস্ট নিয়ে নাক সহ পুরো মুখে হালকা ভাবে ব্রাশ করে সামান্য গরম পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে নিন। দেখবেন ব্ল্যাকহেডস একদম চলে যাবে।
  • চুলে কালার দেওয়ার সময় বা মেহদী দেওয়ার সময় টুথব্রাশ ব্যবহার করুন। এতে আপনার হাতে নষ্ট হবে না।

৪:পুরাতন বোতাম:

  • পুরাতন রঙ বেরঙের বোতাম দিয়ে আপনি ইচ্ছা করলে বানাতে পারেন দারুণ সুন্দর পেন হোল্ডার। একটি টিস্যূ রোলের উপর এসব বোতাম লাগিয়ে বানিয়ে নিন। অসাধারণ পেন হোল্ডার।
  • এছাড়াও, শখের কানের দুল যত্নে ও আগলে রাখতে ব্যবহার করতে পারেন পুরাতন বোতাম। বোতামে কানের দুল গেঁতে রাখতে পারেন। এতে জোড়া জোড়া কানের দুল হারাবে না।
  • অথবা ক্লিয়ার ফোন কভার সাজান পুরাতন কালারফুল বোতাম লাগিয়ে। দেখতে কিন্তু দারুণ লাগবে!

৫: আইস ট্রে :

  • আপনার পছন্দের ফেইস প্যাক বানিয়ে সংরক্ষন করতে পারেন আইস ট্রে তে।এতে বিভিন্ন  ফেইস প্যাক আলাদা ভাবে অনেক দিন সংরক্ষন করতে পারবেন।
  • আপনার সন্তানের লিকুইড কালার বক্স হিসেবে ব্যবহার করুন আইস ট্রে।  এতে সব রঙ একসাথে রাখা যাবে, কিন্তু একটা আরেকটার সাথে মিশবে না।
  • এছাড়াও,  কফি পানিতে গুলে আইস ট্রে তে আইস করে রেখে দিন। যে কোন ধরনের কোল্ড ড্রিংকে আলাদা ফ্লেভার এড করবে, এই কফি কিউব গুলো।
  • পছন্দের ছোট ছোট কানের দুল রাখুন আইস ট্রে তে। হারাবার আর ভয় থাকবে না।

৬: নেইল -পলিশ:

  • ফোন কভারে ভিন্নত্ব চাইছেন?  একটি ক্লিয়ার ( ট্রান্সপারেন্ট) কভারে নেইল পলিশ দিয়ে ইচ্ছেমতো আর্ট করে নিজেই বানিয়ে নিন নিজের ফোন কভার!
  • একসাথে অনেকগুলো চাবি রাখলে সাধারণত চাবিগুলো চেনা দায় হয়ে পড়ে। চাবি আলাদা করতে এক এক চাবিতে এক এক রঙের নেইল পলিশ দিয়ে কালার করে নিন। ব্যাস,  ঝামেলা খতম!

৭: বেকিং সোডা:

  • স্টিলের জিনিসপত্র থেকে পানির দাগ তুলতে তা বেকিং সোডা মিশ্রিত পানি দিয়ে ধুয়ে নিন। দাগ চলে যাবে।
  • টাইলসের খাঁজে খাঁজে জমে থাকা ময়লা পরিষ্কার করতে,  বেকিং সোডা, লবন,  লিকুইড বা ডিটারজেন্ট পাউডার একসাথে মিশিয়ে নিন। এবং একটি ব্রাশের সাহায্যে টাইলসের ভেতর ঘষে নিন।ভেতরের দিকের ময়লাও দ্রুত উঠে আসবে।
  • দাঁতের হলদেটে ভাব দূর করতে,  টুথপেস্টের সাথে সামান্য বেকিং সোডা মিশিয়ে ব্যবহার করুন। দাঁতের দাগ দূর হবে। কিন্তু এটি খুব নিয়মিত ব্যবহার না করাই ভালো।

৮:শিমার আই-শ্যাডো :

  • শিমার আই-শ্যাডো আপনি লিপস্টিক হিসেবেও ব্যবহার করতে পারবেন। সামান্য আইশ্যাডো হাতে নিয়ে ভ্যাসেলিনের সাথে মিশিয়ে ঠোঁটে লাগিয়ে নিন।
  • চুলে আলাদা মাত্রা যোগ করতে পারে আপনার শাইনি আই-শ্যাডো। চুলে হেয়ার স্প্রে করে নিন। এরপর সামান্য আই-শ্যাডো ব্রাশের সাহায্যে চুলে লাগিয়ে নিন। চুল ও শাইন করবে আর সাথে আপনিও!
  • আইশ্যাডা ফেইস হাইলাইটার হিসেবেও ব্যবহার করতে পারবেন।তবে এক্ষেত্রে রঙ বেরঙের আইশ্যাডো ব্যবহার না করে বেছে নিন ব্রাউন, গোল্ডেন শেডের রঙ। এবং ব্রাশ দিয়ে টি-জোনে এবং চিক বোনে ইংরেজি “3” এর শেপ একে নিন।ফেইস হাইলাইট হয়ে যাবে।

৯:ডিম :

  • ডিমের খোসা গাছের জন্য দারুন কার্যকরী। ডিমের খোসা গাছকে দ্রুত বেড়ে উঠতে সাহায্য করে।
  • ডিমের সাদা অংশ মুখে লাগিয়ে নিন। ভেজা থাকা অবস্থায় এর উপর টিস্যূ চেপে বসিয়ে দিন। শুকিয়ে গেলে টিস্যূ টেনে তুলে আনুন। এতে ব্ল্যাকহেডস দূর হবে! সপ্তাহে অন্তত দু দিন ব্যবহার করে দেখুন।
  • ডিমের কুসুম চুলের জন্য হতে পারে সেরা একটি প্যাক। ডিমের প্রোটিন চুলের জন্য খুব বেশি উপকারী।

১০: ফেসিয়াল ওয়াইপস :

  • ফার্নিচারে লেগে থাকা পানির দাগ বা যেকোন ময়লা খুব সহজে তুলে আনতে ব্যবহার করুন ফেসিয়াল ওয়াইপ।
  • কোন কিছুর বোতল( কোক, ড্রিংক) সহজে ঠান্ডা করতে চাইলে তা একটি ফেসিয়াল ওয়াইপ দিয়ে মুড়ে ফ্রিজে রেখে দিন। দ্রুত ঠান্ডা হবে।
  • ল্যাদারের ব্যাগ, জুতো ইত্যাদি সহজে ও দ্রুত ক্লিন করার জন্য, ফেসিয়াল ওয়াইপসের চেয়ে ভালো আর কি হতে পারে!

১১: মধু :

  • আপনার ত্বকের জন্য সেরা ফেসিয়াল হতে পারে মধু দিয়ে যেকোন ফেইস প্যাক। যেমন : মধু-দুধ,  দই-মধু, বেসন – মধু, লেবুর রস-মধু ইত্যাদি।
  • লিপবাম বানাতে সামান্য মধু যোগ করুন। ঠোঁট প্রাকৃতিকভাবে গোলাপী থাকবে।
  • চামড়ার ক্ষত বা জিহবা জলসে গেলে সেখানে মধু লাগিয়ে নিন। দ্রুত সেরে যাবে।

১২: হেয়ার ড্রায়ার :

  • কম্পিউটারের প্রিয় কী-বোর্ড পরিষ্কার করা কিন্তু বেশ কঠিন ব্যাপার। এই কঠিন কাজকে সহজ করতে আছে হেয়ার ড্রায়ার। খুব সহজেই হেয়ার ড্রায়ারের গরম বাতাস কী-বোর্ডের ভেতরে জমে থাকা ময়লা পরিষ্কার করবে।
  • আপনার খুব টাইট হিল জুতো একটু ঢিলা করার দরকার হলে সাহায্য নিন হেয়ার ড্রায়ারের। হেয়ার ড্রায়ার দিয়ে টাইট জুতোর ভেতরে বাতাস প্রবেশ করালে জুতো অনেকটাই ঢিলে হবে এবং পড়তেও আরাম পাবেন।

১৩: মাউথ-ওয়াশ :

  • কাটা ছেড়ায় ব্যবহার করুন লিস্টারিন মাউথ ওয়াশ। এটি খুব ভালো এন্টিস্যাপটিক হিসেবে কাজ করে।
  • ঘরের মেঝে জীবাণু মুক্ত রাখতে পানিতে সামান্য লিস্টারিন মিশিয়ে ঘরের মেঝে  মুছে নিন।

এছাড়াও জেনে রাখুন :

১: কন্ডিশনার শেভিং ফোমের বিকল্প হিসেবে ব্যবহার করতে পারেন।

২: চুল কালার করতে মেহদির সাথে কফি ব্লেন্ড করে মিশিয়ে নিলে। চুলে হালকা বাদামি শেড আসবে।

৩: ফার্নিচারকে একদম পলিশ করা লুক দিতে চাইলে মেয়োনিজ দিয়ে মুছে নিন। একদম নতুনের মতো চকচক করবে।

৪: শার্টের কলার বা বোতামের মাঝখানের অংশ আয়রন করতে ছোট প্লেটের আয়রন ব্যবহার করুন।খুব সহজেই আয়রন করতে পারবেন।

৫: ঠোঁটে মরা চামড়া তুলতে স্কচট্যাপের আঠালো অংশ ঠোঁটে চেপে রাখুন। মরা চামড়া সহজে উঠে আসবে। এছাড়াও নখের উপর স্কচট্যাপ লাগিয়ে বিভিন্ন শেডের নেইল পলিশের রঙ ট্রাই করে দেখতে পারেন।

৬: আইল্যাশের মতো লুক পেতে মাশকারা লাগানোর আগে চোখের পাপড়িতে সামান্য ভ্যাসলিন লাগিয়ে তারপর মাশকারা লাগান।

৭:  মাথার বা কপালের ত্বক যদি কখনো কোন কারণে পুড়ে যায় তখন সেখানে ঠান্ডা দই লাগিয়ে রাখলে দ্রুত সেরে উঠবেন।

ব্যাস, এই ছিলো দৈনন্দিন জীবনে ব্যবহৃত কিছু জিনিসের অন্যরকম ব্যবহার। আশা করি এই পোস্টটির মাধ্যমে আপনারা উপকৃত হবেন। এবং হাতের কাছে থাকা এই উপাদানগুলো ভিন্নভাবে কাজে লাগাবেন। ভালো থাকুন, এবং অবশ্যই চটপটের সাথেই থাকুন।

 

মন্তব্যসমূহ

বর্তমানে শিক্ষার্থী এছাড়া আর কিছু করছি না। সিলেটে থাকি। লেখালেখি আমার পুরাতন শখ। আর কখনোই এই শখ বাদ দিতে চাই না। এছাড়া বলার মতো আর কিছু আপাতত খুঁজে পাচ্ছি না।

মন্তব্য করুন