প্যান পিজ্জা এখন সহজে ঘরে বসে

প্যান পিজ্জা এখন সহজে ঘরে বসে

পিজ্জা ছোট বড় কম বেশি সবারই প্রিয় খাবার। বাইরের আনহাইজেনিক পরিবেশে বানানো পিজ্জা থেকে বাসায় যদি পিজ্জা বানানো যায় তাহলে সেইটা হবে খুব কম খরচে এবং স্বাস্থ্যকর। আমরা নিজেদেরকে ফিট রাখার জন্য কত কিছুই না করি। সেই জন্য আমরা অনেক ধরনের খাবার এভয়েড করি। বাইরের বানানো যেকোনো খাবার যতই সুস্বাদু হোকনা কেন সাস্থের জন্য ক্ষতির কারন। কিন্তু মাঝে মাঝে ডায়েটের বাইরে গিয়েও কিছু খাবার এর জন্য ক্রেভিং হয়, পিজ্জা হল তার মধ্যে একটি। বাইরে যতই সুস্বাদু করে বানানো হোক না কেন পিজ্জা যদি বাসায় বানানো যায় তাহলে তা সুস্বাদুর সাথে সাথে হেলদি ও হবে। আজকে আমরা দেখব কিভাবে সহজে ঘরে বসে প্যান পিজ্জা বানানো যায়। এই রেসিপি টা যাদের বাসায় অভেন নাই মুলত তাদের জন্য।

উপকরণঃ

১- হাফ কাপ পরিমান লিকুইড দুধ।

২- হাফ টেবিল চামুচ চিনি।

৩- দুই টেবিল চামুচ ইস্ট।

৪- দুই কাপ ময়দা।

৫- লবন সাধমত।

৬- দেড় টেবিল চামুচ পরিমান অলিভ অয়েল।

৭- ডিম একটা।

৮- এক টেবিল চামুচ সয়াবিন তেল।

৯- হাফ চা চামুচ পেঁয়াজ বাটা।

১০- হাফ চা চামুচ রসুন বাটা।

১১- হাড় ছাড়া মুরগির মাংশ এক কাপ।

১২- হাফ চা চামুচ গোলমরিচের গুরা।

১৩- পিজ্জা সস পরিমান মত।

১৪- মজরেলা চিজ।

১৫- ব্লাক অলিভ।

১৬- সুইট কর্ণ।

১৭- কাপসিকাম একটা।

১৮- অরিগান হাফ চা চামুচ।

প্রনালিঃ

প্রথমে একটি বাটিতে হাল্কা উশম গরম দুধ নিতে হবে। দুধ বেশি গরম ও হওয়া যাবে না বেশি ঠাণ্ডা ও হওয়া যাবে না। এরপর এতে চিনি ও ইস্ট মিশাতে হবে। মিশানোর পর হাল্কা নেড়ে দশ মিনিটের জন্য রেখে দিতে হবে। এখন আর একটি বাটিতে ময়দা নিতে হবে। এবার এর মধ্যে দিতে হবে পরিমান মত লবন, দেড় টেবিল চামুচ পরিমান অলিভ অয়েল আপনারা চাইলে নরমাল সয়াবিন তেলও ব্যাবহার করতে পারেন।এরপর সব গুলা মেখে নিতে হবে যেন কোন কিছু কম বেশি না থাকে। এরপর আগে থেকে তৈরি করে রাখা ইস্ট আরা দুধের মিশ্রণটি এর মধ্যে ঢেলে দিতে হবে। তারপর এর মধ্যে দিতে হবে একটি ডিম। এরপর কাই বানাতে হবে। এর মধ্যে এক্সট্রা কোন পানি বা দুধ দেয়া লাগবে না। তারপর যদি মনে করেন কাইটা পারফেক্টলি তৈরি করার জন্য পানি বা দুধের দরকার তাহলে তা অ্যাড করতে পারেন। মিশিয়ে নেয়ার পর এইটাকে একটা খোলা স্পেসে নিয়ে রাখতে হবে। তারপর সেইটা ভাল করে মথে নিতে হবে। আট থেকে দশ মিনিট ভাল করে মথে নিতে হবে যাতে করে কোন লাম্পস না থাকে এর ফলে পিজ্জা অনেক সফট হবে। এর পর যে বাটিতে কাই টা তৈরি করা হয়েছিল তার মধ্যেই কাইটাকে রেখে হাল্কা তেল দিয়ে মেখে নিতে হবে। এর ফলে কাইটা ড্রাই হবে না। এবার এইটাকে কোন ঢাকনা অথবা প্লাস্টিক পেপার দিয়ে ঢেকে রুম টেম্পারেচার এ রেখে দিতে হবে দুই ঘণ্টা। এর পর চিকেনের ফিলিংটা রেডি করার জন্য একটি প্যানে তেল নিতে হবে আপনারা চাইলে বাটার ব্যাবহার করতে পারেন। এর মধ্যা পেয়াজ বাটা, রসুন বাটা দিয়ে কিছুক্ষন ভাজতে হবে। এবার হাড় ছাড়া মুরগির মাংশ দিয়ে তার মধ্যে গোলমরিচের গুরা দিতে হবে। এখন সব কিছু নেড়েচেড়ে মিশিয়ে দিতে হবে। মুরগির মাংশ খুব বেশি ভাজা যাবে না হাল্কা সাদাটে ভাব থাকবে এমন সময় নামায় ফেলতে হবে।চিকেন ব্রেস্ট হতে এমনিও বেশি সময় লাগে না, আলাদা পানিও লাগে না। তারপর যদি আপনারা মনে করেন সিদ্ধ করার জন্য পানি দরকার তাহলে হাল্কা পানি দিতে পারেন। অন্য দিকে তৈরি করে রাখা কাইটা নিতে হবে। কাইটা ফুলে দিগুন হয়ে যাবে দুই ঘণ্টায়। এর পর কাইটার ভেতর থেকে যে বাতাস আছে যার কারনে কাইটা ফুলেছে বাতাস হাত দিয়ে চেপে চেপে বের করে দিতে হবে। যেই প্যানে আপনি পিজ্জা তৈরি করবেন তাতে হাফ চা চামুচ সয়াবিন তেল ছরিয়ে দিতে হবে। এরপর এক ভাগ কাই নিয়ে প্যানটার মধ্যে প্যানটা যত বড় তত বড় করে কাইটা ছরিয়ে নিতে হবে। এরপর কাটা চামুচ দিয়ে কয়েকটা ছিদ্র করে নিতে হবে কাইতে, এতে করে যখন পিজ্জা তৈরি করবেন তখন ফুলে এদিক ওদিক হটাত করে ফুলে উঠবে না, ফলে ক্রাস্ট সুন্দর হবে, এরপর দশ মিনিট প্লাস্টিক পেপার দিয়ে ঢেকে রাখতে হবে তাহলে সুন্দর ফুলে উঠবে বেসটা। এরপর এর মদ্দে পিজ্জা সস আপনার পছন্দমত দিবেন, এবং একে একে মাংসের কিমা, ব্লাক অলিভ, কাপ্সিকাম কুচি, সুইট কর্ণ এবং পছন্দমত মজরেলা চিজ দিতে হবে। এরপর পিজ্জা এর বাইরের রুতির অংশে ডিমের কুসুম ব্রাশ করে দিতে হবে। যেহেতু চুলায় বানানো হচ্ছে সেহেতু উপর থেকে তাপ আসবে না এইজন্য রুটির পাশে ডিমের কুসুমের অংশ দেয়া হয় ফলে সুন্দর একটা ব্রাউন কালার আসে। এরপর উপরে হাল্কা অরিগান ছরিয়ে দিয়ে প্যানটা ঢেকে দিতে হবে। প্রথমে চুলার আচ মিডিয়ামে রেখে দিতে হবে পাচ মিনিট, এরপর চুলার আচ একদম কমিয়ে দশ থেকে বারো মিনিট অপেক্ষা করলেই তৈরি হয়ে যাবে ঘরে বসে তৈরি করা রেস্টুরেন্ট কোয়ালিটি পিজ্জা।

 

 

 

মন্তব্যসমূহ

আমি স্টুডেন্ট। পড়াশুনার পাশাপাশি টুকটাক লিখতে ভালবাসি।

মন্তব্য করুন