টমেটো সস

বাজারের টমেটো সস এখন বাড়িতে

টকটকে লাল পাকা বা সবুজ কচকচে কাচা টমেটো একই সাথে ফল এবং সবজি দুইভাবে গ্রহনযোগ্য।এই খাবারটা পছন্দ করে না এমন মানুষ খুব কম পরিমানেই আছে।আর এই লাল পাকা টমেটো থেকে তৈরি করা যায় মজাদার টমেটো সস।

টমেটো থেকে যেমন সস তৈরি করে খাওয়া যায় তেমনি কাচা অবস্থায়ও টমেটো খাওয়া যায়।বিষেজ্ঞের মতে সবুজ কাচা টমেটোর চেয়ে লাল পাকা টমেটোতে বেশি পরিমানে ভিটামিন থাকে।টমেটো সস যেমন নিজে সুস্বাদু তেমনি অন্য খাবারের সাধ বৃদ্ধিতেও এর জুরি নেই।

এতে রয়েছে ভিটামিন এ,বি,সি,কে,ক্যালসিয়াম,পটাশিয়াম।ভিটামিন ককে,পটাশিয়াম আমাদের হাড় মজবুদ করতে সাহায্য করে।আমরা বাজার থেকে কিনে টমেটো সস খেয়ে থাকি।বাড়িতে টমেটো সস তৈরি করলেও তা থেকে বাজারের মত স্বাধ পাওয়া যায় না।আজকে আমরা দেখবো কিভাবে বাজারের স্বাধের টমেটো সস বাড়িতে তৈরি করা যায়।

প্রয়োজনীয় উপকরন :

  • ২ কেজি লাল পাকা টমেটো
  • পেয়াজ ২ টি
  • চিনি ২ টেবিল চামচ
  • লবন পরিমানমতো
  • দারুচিনি ২ টুকরা
  • লং ৫ টি
  • ভিনেগার বা সাদা সিরকা আধা কাপ

ধাপ ১ :

প্রথমে টমেটোগুলো ভালো করে ধুয়ে নিন।এরপর টমেটোরর বোটার অংশ কেটে ফেলে দিন।কারন বোটার অংশ রেখে দিলে টমেটো সস তারাতারি নষ্ট হয়ে যাবে।টমেটো সস তৈরির জন্য চেষ্টা করবেন টকটকে লাল টমেটো নিতে।কারন এতে সসের কালারটা অনেকে ভালো আসে।
টমেটো গুলোকে হাল্কা সিদ্ধ করে নিতে হবে।এজন্য টমেটোগুলোকে একটি প্যানে নিয়ে দুইকাপ পানি দিন।মিডিয়াম আচে ৮ থেকে ১০ মিনিট সিদ্ধ করুন।সিদ্ধ হয়ে গেলে ঠন্ডা হওয়ার জন্য কিছুটা সময় নিন।
এবার চিমটা বা হাতের সাহায্যে উপরের খোসা ছাড়িয়ে নিন।খোসা ছাড়িয়ে নিলে বেলেন্ডারে ব্লেন্ড করতে সুবিধা হবে।সবগুলোর খোসা ছাড়ানো হলে টমেটো গুলোকে বেলেন্ডারে দিন এবং সাথে পিয়াজ কুচি দিন।এবার ভালো করে ব্লেন্ড করুন।বেলেন্ডারে ব্লেন্ড করতে না চাইলে হাত দিয়েও ভালো ভাবে পেষ্ট করে নিতে পারেন।

ধাপ ২ :

পেষ্ট করা টমেটো একটি ছাকনির সাহায্যে ভালো করে ছেকে নিন।ছেকে ফেলার পর এগুলো একটি প্যানের মধ্যে নিন।এর সাথে ২ টেবিল চামচ চিনি,দুই টুকরা দারুচিনি, পরিমান মতো লবন এবং ৫ টি লং দিন।এখন হাই হিটে নেড়ে নেড়ে রান্না করুন।খেয়াল রাখতে হবে যেন পুড়ে বা লেগে না যায়।পুড়ে গেলে বা লেগে গেলে সম্পূর্ন টমেটো সসের স্বাধ, গন্ধ নষ্ট হয়ে যাবে।
টমেটোর পানি কমে আসলে আধা কাপ পরিমানে ভিনেগার বা সাদা সিরকা দিন।টমেটো সস কিছুদিন ভালো রাখার জন্য ভিনেগার দেয়া হয়েছে।এখানে দুই কেজি টমেটোর জন্য আধা কাপ ভিনেগার নেয়া হয়েছে।আপনি যদি দুই কেজির বেশি টমেটো দিয়ে সস তৈরি করেন তাহলে সেই অনুযায়ী ভিনেগার দিবেন।
টমেটো সস রান্নার শেষ পর্যায় চামচ দিয়ে দারুচিনি গুলো বেছে ফেলে দিন।রান্না শেষ হয়ে গেলে চুলা থেকে তুলে আনুন।এবার ঠান্ডা হওয়ার জন্য কিছুক্ষন রেখে দিন।ভিনেগার দেয়ার কারনে আমাদের এই সস ৩ মাস পর্যন্ত সংরক্ষন করা যাবে।

বাজারের টমেটো সসে সুন্দর কালার আনার জন্য আলাদা কালার ব্যবহার করে থাকে।কিন্তু বাড়িতে তৈরির সময় কালার ব্যবহার করার প্রয়োজন নেই।কারন কালার শরীরের জন্য ক্ষতিকর।পাকা লাল টমেটো ব্যবহার করলে কালার প্রাকৃতিক ভাবেই সুন্দর আসবে।

টমেটো সস সংরক্ষন :

ভিনেগার বা সাদা সিরকা দিয়ে টমেটো সস সংরক্ষন করা যায়।কিন্তু এই পদ্ধতিতে ২ থকে ৩ মাসের বেশি সময় সংরক্ষন করা সম্ভব হয় না।বাজারের সসে প্রিজারভেটিভ ব্যবহার করে বেশি দিন সংরক্ষনের ব্যবস্থা করা হয়।আপনি যদি প্রিজারভেটিভ দিয়ে সস সারা বছর সংরক্ষন করতে চান তাহলে আপনাকে পরিমানমত প্রিজারভেটিভ প্রয়োগ করতে হবে।পরিমানের তুলনায় বেশি প্রয়োগ করলে তা স্বাস্থের জন্য খারাপ প্রভাব ফেলেতে পারে।এবার দেখে নিন কি পরিমানে প্রিজারভেটিভ প্রয়োগ করতে হবে।

প্রিজারভেটিভের পরিমান :

১ কেজি টমেটো সসের জন্য এসিটিক এসিড ৫ মি.লি এবং পরিষ্কার পানিতে সোডিয়াম বেনজয়েড মিশিয়ে তা আধা গ্রাম পরিমান মিশাতে হবে।এখানে ১ কেজির জন্য প্রিজারভেটিভ মিশানো হয়েছে।আপনি বেশি বা কম টমেটো দিয়ে সস তৈরি করলে সেই পরিমান অনুযায়ী আনুপাতিক হারে প্রিজারভেটিভ মিশাবেন।এই পদ্ধতি ব্যবহার করে সংরক্ষন করলে টমেটো সস এক বছর পর্যন্ত সংরক্ষন করা যাবে।তবে স্বাস্থ্য ঝুকির কথা চিন্তা করে প্রিজারভেটিভ পদ্ধতিতে সংরক্ষন না করা ভালো।

মন্তব্যসমূহ

মন্তব্য করুন