অন্যরকম স্বাদে টক ঝাল মিষ্টি চিংড়ি খিচুড়ি রেসিপি

অন্যরকম স্বাদে টক ঝাল মিষ্টি চিংড়ি খিচুড়ি রেসিপি

বাঙ্গালি আর বৃস্টিকে যদি এক সাথে কল্পনা করা হয় তাহলে আর একটা জিনিস আপনার কল্পনায় আসতে বাধ্য। সেটি হচ্ছে গরম গরম এক প্লেট খিচুড়ি। বাঙ্গালি মাত্রই খিচুড়ি প্রেমী। তাই ঘরের বাইরে ঝম ঝম করে বৃস্টি হবে, আর ঘরের ভিতরে রান্নার চুলায় খিচুড়ি রান্না হবে না, এ আমাদের জন্য এক অসম্ভব ব্যাপার। বাঙ্গালির এই খিচুড়ি প্রেমকে উতসাহ দিতেই আমার আজকের রেসিপি। রেসিপিটি হচ্ছে মজাদার টক ঝাল মিষ্টি চিংড়ি খিচুড়ি রেসিপি।

রেসিপির নাম শুনে কি একটু আধটু অবাক লাগছে? আপনি বোধ হয় ভাবছেন চিংড়ি খিচুড়ি তো বুঝলাম, কিন্তু খিচুড়ি তো হয় ঝাল ঝাল। সেখানে খিচুড়ি আবার টক ঝাল মিষ্টি হবে কেন? খেতে ভাল লাগবে তো? এই প্রস্ন গুলোর উত্তরে বলব এই রেসিপিটা স্টেপ বাই স্টেপ ফলো করে চিংড়ি খিচুড়ি বানিয়েই দেখুন না। আপনার বাসার সদস্যদের এই খিচুড়ি এতই মজা লাগবে যে তারা আর কখনোই সাধারণ খিচুড়ির জন্য আপনার কাছে ডিমান্ড করবে না। আপনার কাছে সব সময় এই মজাদার টক ঝাল মিষ্টি চিংড়ি খিচুড়ির আবদারই আসবে।

এই রান্নাটা বেশ কয়েকটা ধাপে করতে হয়। যেমন মশলা রেডি করা, চিংড়ি কষিয়ে রান্না করা, খিচুড়ি রান্না করা ইত্যাদি। এজন্য একটু ধৈর্য ধরে রান্নাটা করতে হবে। আপনি সময় বাচিয়ে রান্নাটা করতে চাইলে এই রেসিপির স্পেশাল মশলা আগের রাতে তৈরী করে রাখতে পারেন। তাহলে চিংড়ি খিচুড়ি বানাতে আপনার সময় কম লাগবে। টক ঝাল মিষ্টি চিংড়ি খিচুড়ি বানাবার রেসিপি ও উপকরণ নিয়ে নিচে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে।

টক ঝাল মিষ্টি চিংড়ি খিচুড়ি বানাতে যা যা লাগবে

চিংড়ি খিচুড়ির মশলা বানাবার উপকরণ

  • কালো গোল মরিচ ১০টি
  • তেজপাতা ১টি
  • ছোট এলাচ ৩টি
  • দারচিনি এক টুকরা
  • লবঙ্গ ৩টি
  • শুকনা মরিচ ২টি
  • নারকেল কোরানো ১/৪ কাপ
  • আস্ত মেথি ১ চা চামচ
  • কাসৌরি মেথি ( মেথি গাছের শুকনো পাতা) ১ চা চামচ
  • আস্ত ধনে ১ চা চামচ
  • আস্ত জিরা ১ চা চামচ
  • আস্ত মৌরি ১ চা চামচ
  • ভিনেগার ২ টেবিল চামচ

চিংড়ি খিচুড়ির মূল রান্নার উপকরণ

  • সরষের তেল ৩ টেবিল চামচ
  • শুকনা মরিচ ২টি
  • আস্ত কালো সরষে ১/২ চা চামচ
  • কারি পাতা ৬ থেকে ৭টি
  • মাঝারি সাইজের চিংড়ি ১০ থেকে ১৫টি
  • পেঁয়াজ মিহি করে কুচি করা ১/৪ কাপ
  • পেঁয়াজ বাটা ২ টেবিল চামচ
  • রসুন বাটা ১ চা চামচ
  • আদা বাটা ১ চা চামচ
  • কাঁচা মরিচ বাটা ১ চা চামচ
  • বানানো মশলা দুই টেবিল চামচ
  • হলুদ গুড়া ১ চা চামচ
  • পোলাও চাল ২ কাপ
  • মুগ ডাল ১/২ কাপ
  • মসুর ডাল ১/২ কাপ
  • নারকেলের দুধ ২ কাপ
  • পানি প্রয়োজন মত
  • লবণ প্রয়োজন মত
  • চিনি ১/২ চা চামচ
  • তেঁতুলের ক্বাথ ২ চা চামচ

চিংড়ি খিচুড়ি বানাবার প্রণালী

১ম ধাপ

প্রথমেই চিংড়ি খিচুড়ির মূল মশলা তৈরী করে নিতে হবে। এর জন্য একটা শুকনো প্যান চুলায় গরম করতে দিতে হবে। প্যান একটু গরম হলে এতে  আস্ত কালো গোল মরিচ, শুকনা মরিচ, তেজপাতা, ছোট এলাচ, দারচিনি আর লবঙ্গ দিতে হবে। একই সাথে আস্ত ধনে আর আস্ত জিরাও দিয়ে দিতে হবে। এবার এতে আস্ত মেথি আর আস্ত মৌরী দিন। দুই থেকে তিন মিনিট অল্প আঁচে এই সমস্ত মশলা ভেজে নিন। এরপর এতে কাসৌরি মেথি দিন।

কাসৌরি মেথি নামক মশলাটি আমাদের দেশে খুব একটা প্রচলিত মশলা নয়। এই মশলাটি আসলে মেথি গাছের পাতা দিয়ে তৈরী করা হয়। মেথি গাছের পাতা কড়া রোদে খুব ভাল করে শুকিয়ে নেয়া হয় কয়েক দিন ধরে। এরপর হালকা গুড়া গুড়া মত করে এই মশলা বাজার জাত করা হয়। এখন যেকোন বড় বড় দোকান কিংবা সুপার শপ হুলোতে খুব সহজেই কাসৌরি মেথি পাওয়া যাচ্ছে। তারপরও আপনি যদি এই মশলাটি না পেয়ে থাকেন তাহলে উপরে বলে দেয়া নিয়মে মেথি শাক যোগার করে বাসাতেই কাসৌরি মেথি বানিয়ে নিতে পারেন।

এই মশলা গুলো অল্প সল্প ভাজা হয়ে গেলে আগে থেকে কুড়িয়ে রাখা নারকেল মশলার মিশ্রণে দিয়ে দিন। হালকা করে ভাজতে থাকুন। মোটামুটি পাঁচ থেকে দশ মিনিট ভাজলেই হবে। দেখবেন ভাজা মশলার মিশ্রণ থেকে কি সুন্দর একটা গন্ধ বের হছে। এসময় চুলা বন্ধ করে দিন। এরপর মশলা আর নারকেল কোরার এই মিশ্রণ আরো দশ থেকে পনেরো মিনিট একই ভাবে রেখে দিন। এই সময়ের মধ্যে এই মশলার মিশ্রণ ঠান্ডা হয়ে যাবে। তখন এই মিশ্রণটি ভিনেগার এর সাথে ব্লেন্ডারে ব্লেন্ড করে নিন অথবা পাটায় পিষে নিন। রেডি আপনার চিংড়ি খিচুড়ির আসল উপকরণ স্পেশাল মশলা। এই মশলাটা বানাবার সময় একটু সতর্ক থাকবেন। মশলা ভাজার পুরোটা সময় চুলার আঁচ মিডিয়াম থেকে লো রাখবেন। মশলা তাড়াতাড়ি ভাজা জন্য আঁচ কখনোই বাড়াতে যাবেন না। তাহলে নারকেন কোড়ানো পুড়ে যাবার ভয় থেকে যাবে। আর এই মশলাটা যদি কোন ভাবে পুড়ে যায় তাহলে পুরো চিংড়ি খিচুড়ির টেস্টটাই এক্কেবারে নষ্ট হয়ে যাবে।

২য় ধাপ

প্রথমে একটা বড় কড়াতে সরষের তেল গরম করে নিতে হবে। এতে শুকনো মরিচ আর আস্ত কালো সরষে ফোড়ন দিতে হবে। সরষে দানা ফুটে উঠলে কারি পাতা দিয়ে দিতে হবে। এবার চিংড়ি মাছ গুলো এই ফোড়ন সহ তেলে দিয়ে দিতে হবে। খেয়াল রাখবেন চিংড়ি মাছে যেন ধুয়ে পানি ঝড়িয়ে রাখা থাকে। এবার অল্প নুন ও হলুদ গুড়া উপর থেকে ছড়িয়ে দিতে হবে। চিঙড়ি মাছ গুলো চার থেকে পাঁচ মিনিট ভাজতে হবে। পাঁচ মিনিটের বেশি চিংড়ি মাছ ভাজা যাবে না। কারণ চিংড়ি মাছ চাল আর ডালের সাথে পরে আরো কিছুক্ষণ রান্না হবে। আর আমরা সবাই জানি চিংড়ি মাছ যদি প্রয়োজনের থেকে বেশি রান্না করা হয় তাহলে কিছুটা শক্ত হয়ে যায়। তখন আর সেই স্বাদ টা পাওয়া যায় না।

৩য় ধাপ

চিংড়ি মাছ পাঁচ মিনিট ভাজা হয়ে গেলে খুনতি দিয়ে কড়ার চারপাশে মাছ গুলো সরিয়ে মাঝখানে তেলের অংশটা ফাকা করে দিতে হবে। এবার এই তেলে প্রথমে মিহি করে কুচি করে রাখা পেঁয়াজ দিতে হবে। পেঁয়াজ কুচি হালকা লাল লাল করে ভাজা হয়ে গেলে এতে একে একে পেঁয়াজ বাটা, রসুন বাটা, আদা বাটা আর কাঁচা মরিচ বাটা দিয়ে দিতে হবে। এই বাটা মশলার মিশ্রণ খুনতি দিয়ে নেড়ে চেরে কিছুক্ষণ কষাতে হবে। এরপর আগে থেকে বানিয়ে রাখা মশলার পুরোটাই দিয়ে দিতে হবে। খুব ভাল করে সব মশলা মিশিয়ে সরষের তেলে ভাজতে হবে।

৪র্থ ধাপ

বাটা মশলা গুলো তেলে ভাজা হয়ে গেলে এবার হচ্ছে গুড়া মশলা দেবার পালা। মশলার মিশ্রণে একে একে হলুদ গুড়ো, লবণ ও চিনি দিতে হবে। সব কিছু এক সাথে মিশিয়ে নিয়ে খুব ভাল করে কষাতে হবে। প্রয়োজনে একটু পর পর অল্প অল্প করে পানি যোগ করে নিতে হবে।

যখন সব মশলা ভাল করে কষে এর থেকে তেল বের হওয়া শুরু হবে তখন এই মশলার মিশ্রণ ধুয়ে পানি ঝরিয়ে রাখা পোলাও চাল, মুগ ডাল আর মসু ডাল দিয়ে দিতে হবে। খুব করে খুনতি দিয়ে নেড়ে চেড়ে চাল আর ডালের মিশ্রণ ভেজে নিতে হবে। বেশিক্ষণ ভাজা লাগবে না। পাঁচ থেক সাত মিনিট ভাজলেই হবে। এরপর আগে থেকে গরম করে রাখা পানি দিয়ে দিতে হবে। সেই সাথে নারকেলের দুধও এই সময়ে দিয়ে দিতে হবে। ভাল করে সবকিছু মিশিয়ে নিতে হবে। সব কিছু একসাথে ফুটে উঠলে চুলার জ্বাল একেবারে কমিয়ে দিতে হবে। এরপর ঢাকনা দিয়ে ঢেকে দিতে হবে। কিছুক্ষণ পর চিংড়ি খিচুড়ি যখন প্রায় হয়ে আসবে তখন ঢাকনা খুলে তেঁতুলের ক্বাথটা ঢেলে খুব ভাল করে মিশিয়ে দিতে হবে। খেয়াল রাখবেন তেঁতুলের ক্বাথ যেন এক জায়গায় আটকে না থাকে। সম্পূর্ণ খিচুড়িতে যেন ভাল ভাবে মিশে যায়। এরপর খিচুড়ি হয়ে গেলে চুলা বন্ধ করে দিন। আরো ধশ মিনিট ঢাকনা না খুলে দমে রাখুন। তারপর গরম গরম আচারের সাথে পরিবেশন করুন মজাদার টক মিষ্টি ঝাল চিংড়ি খিচুড়ি।

মন্তব্যসমূহ

আমি সাদিয়া রিফাত ইসলাম। একজন মা , হোমমেকার এবং ব্লগার। ভালভাসি রান্না করতে, বই পড়তে এবং লেখালেখি করতে।

মন্তব্য করুন