মজাদার ভেজিটেবল কাঠি রোল রেসিপি

মজাদার ভেজিটেবল কাঠি রোল রেসিপি

ভেজিটেবল কাঠি রোল মূলত একটি জনপ্রিয় ভারতীয় স্ট্রীট ফুড। মূলত পশ্চিম বাংলায় এই কাঠি রোল অত্যন্ত জনপ্রিয়। কাঠি রলের নানা রকম ভ্যারাইটি আছে। যেমন এগ কাঠি রোল, চিকেন কাঠি রোল কিংবা মিক্সড কাঠি রোল। এসব ভ্যারাইটির মধ্যেই একটা ভ্যারাইটি হচ্ছে ভেজিটেবল কাঠি রোল যেটা মূলত তাদের জন্যই বানানো হয় যারা আমিষ খান না। তবে এই কাঠি রোলে কোন আমিষ নেই বলে ভাববেন না যে এটি খেতে মজা না। অন্য সব মজাদার স্ট্রীট ফুডের মত এই ভেজিটেবল কাঠি রোলও অনেক অনেক মজার আর মুখরোচক।

বাচ্চাদের টিফিন নিয়ে মুশকিলে পরেন নাই এমন মা খুজে পাওয়া দূরহ একটা ব্যাপার। বাচ্চার টিফিন যদি টেস্টি না হয় তবে বাচ্চা টিফিন ফেরত নিয়ে আসবে, খাবে না। আবার বাচ্চাদের টিফিন পুষ্টিকর হওয়াটাও অনেক জরুরি। কিন্তু স্বাদ আর পুষ্টির মেল বন্ধন করাতা যে কতটা কঠিন সেটা সকল মায়েরাই বোঝেন। মায়েদের এই সমস্যা দূর করতেও এই ভেজিটেবল কাঠি রোল অনেক কাজে দেবে। টিফিন বক্সে মজাদার কাঠি রোল দেখেবাচ্চারা আগ্রহ নিয়ে মজা করে টিফিন শেষ করবে। আবার এই ভেজিটেবল কাঠি রোলে অনেক রকম সবজি থাকার কারণে বাচ্চারা প্রচুর পুষ্টিও পাবে। এই ভেজিটেবল কাঠি রোল যে আপনি শুধু বাচ্চাদের টিফিনের জন্য বানাতে পারবেন তা কিন্তু নয়। সন্ধ্যার চা অথবা কফির সাথেও কিন্তু ভেজিটেবল কাঠি রোল খুব ভাল যাবে। শুধু কি তাই? সকালের নাস্তাতেও আপনি এই ভেজিটেবল কাঠি রোল বানাতে পারেন। পেট তো ভরবেই। সেই সাথে সকালের রোজকার একঘেয়ে নাস্তায় কিছুটা নতুনত্বও আসবে।

ভেজিতেবল কাঠি রোল বানাতে খুব বেশি উপকরণ লাগে না। তবে এই রেসিপিটি বেশ কয়েকটি ধাপ অনুসরণ করে করতে হয়। তবে অনেকন গুলো ধাপে রান্নাটি হয় শুনে ঘাবরে যাবেন না। কারণ এই রান্নাটির কিছু অংশ আপনি আগে থেকে র্বডি করে রেখে দিতে পারেন। যেমন আপনি যেদিন ভেজিটেবল কাঠি রোল বানাবেন বলে ঠিক করেছেন তার আগের রাতে রোলের পুরটা রেডি করে রেখে দিতে পারেন। এতে করে পরদিন ভেজিটেবল কাঠি রোল বানাতে গেলে আপনার প্রিপারেশন টাইম কমে গিয়ে প্রায় অর্ধেক হয়ে যাবে। তাহলে চলুন আর কথা না বাড়িয়ে ভেজিতেবল কাঠি রোল বানাতে কি কি লাগে তা দেখে নেই। সেই সাথে ভেজিটেবল কাঠি রোল বানাবার ধাপ গুলো সম্পর্কেও পরিচিত হয়ে নেয়া যাক।

ভেজিটেবল কাঠি রোল বানাতে যা যা লাগবে

সিদ্ধ করবার জন্য যেসব ভেজিটেবল লাগবে

  • ফুলকপি ছোট ছোট টুকরো করে কাটা ১ কাপ
  • আলু ছোট ছোট টুকরো করে কাটা ১/২ কাপ
  • গাজর ছোট ছোট টুকরো করে কাটা ১/২ কাপ
  • মটরশুটি ১/৩ কাপ
  • বরবটি ছোট ছোট টুকরো করে কাটা ১/৪ কাপ
  • পানি ১ কাপ সিদ্ধ করার জন্য

ভেজিটেবল কাঠি রোল বানাতে যা যা মশলা লাগবে

  • সয়াবিন তেল ২ টেবিল চামচ
  • জোয়ান ১/৪ চা চামচ
  • আস্ত জিরা ১/৪ চা চামচ
  • পেঁয়াজ মিহি করে কুচি করা ১/৩ কাপ
  • পেঁয়াজ বাটা ১ চা চামচ
  • আদা বাটা ১ চা চামচ
  • রসুন বাটা ১ চা চামচ
  • টমেটো কিউব করে কাটা ১/২ কাপ
  • ক্যাপসিকাম কিউব করে কাটা ১/৩ কাপ
  • হলুদ গুড়া ১/২ চা চামচ
  • কাশ্মিরি লাল মরিচ গুড়া ১ চা চামচ
  • ভাজা জিরা গুড়া ১ চা চামচ
  • ভাজা ধনে গুড়া ১/২ চা চামচ
  • ভাজা গরম মশলা গুড়া ১ চা চামচ
  • ধনেপাতা মিহি করে কুচি করা ১/৩ কাপ
  • পনির মিহি করে গ্রেট করা ১/৩ কাপ
  • লবণ প্রয়োজন মত

ভেজিটেবল কাঠি রোলের রুটি বানাতে যা যা লাগবে

  • ময়দা ২ কাপ
  • লবণ ১ চা চামচ
  • সয়াবিন তেল ১/৪ কপ
  • উষম গরম পানি পরিমাণ মত (নরম ডো বানাতে যতটুকু লাগবে)
  • ঘি অথবা সয়াবিন তেল রুটি ভাজার জন্য

ভেজিটেবল কাঠি রোলের টপিং বানাতে যা যা লাগবে

  • মিহি করে কেটে রাখা পেঁয়াজ একটি
  • চাট মশলা ১/২ চা চামচ
  • কাশ্মিরি লাল মরিচ গুড়া ১/৪ চা চামচ
  • লেবুর রস ১/২ চা চামচ
  • গ্রেট করে রাখা পনির ১ টেবিল চামচ (অপশনাল)

ভেজিটেবল কাঠি রোল যেভাবে বানাতে হবে

১ম ধাপ

প্রথমেই সবজি গুলো পুর বানাবার জন্য রেডি করে নিতে হবে। এজন্য সবজি গুলোকে যতটা সম্ভব একই সাইজে কেটে নেয়াটা খুবই জরুরী। কারণ রোল খাবার সময় যদি ফুলকপি এক সাইজের হয় আবার আলু তার চেয়ে দ্বিগুণ সাইজের হয় তাহলে খেতে একদমই ভাল লাগবে না। এবার সবজি গুলো ধুয়ে পরিস্কার করে নিতে হবে। একটা বড় প্রেশার কুকারে সব সবজি গুলো একসাথে দিয়ে দিতে হবে। এর মধ্যে এক কাপ পানি দিতে হবে। প্রেশার কুকারের ঢাকনা বন্ধ করে মিডিয়াম থেকে একটু বেশি আঁচে চুলা জ্বালিয়ে দিতে হবে। খুব দ্রুতই দুটা সিটি উঠবে। আপনার প্রেশার কুকারের উপর নির্ভর করবে আসলে কত দ্রুত সিটি উঠবে। তবে প্রেশার কুকার ভেদে পাঁচ থেকে দশ মিনিটের মধ্যে দুটো কিংবা তিনটা সিটি উঠে যাবার কথা। এরপর চুলার জ্বাল বন্ধ করে দিতে হবে। ভেজিটেবল গুলো খুব বেশি সিদ্ধ করা যাবে না। এমন ভাবে সিদ্ধ করে নিতে হবে যেন সবজি গুলো নরম হয়ে যাবে, কিন্তু এর শেপ গুলো ঠিক ঠাক থাকে।

২য় ধাপ

এই বার একটা বড় গামলায় ময়দা নিন। এর সাথে লবণ ও তেল দিয়ে দিন। হাত দিয়ে ভাল করে এগুলো মেখে নিন। বেশ ঝুরা ঝুরা হবে। এটা খুব জরুরী একটা স্টেপ। এই রকম ঝুরা ঝুরা করে ফেললে পরে কাঠি রোলের রুটি বা পরোটা খাস্তা হবে।

এরপর এই ময়দা ও তেলের ঝুরা ঝুরা মিশ্রণে অল্প অল্প করে হালকা উষম পানি যোগ করতে হবে। সেই সাথে হাত দিয়ে সুন্দর করে ময়ান দিতে থাকতে হবে। ময়দা বা আটা ময়ান দেবার সময় কখনোই একবারে সব পানি দিয়ে দেয়া উচিত নয়। কারণ আপনি যদি একবারে সব পানি ময়ানে্র মধ্যে দিয়ে দেন আর পানি যদি প্রয়োজনের চেয়ে বেশি হয়ে যায় তাহলে ঐ ডোটা একদম নষ্ট হয়ে যাবে। আর ময়দা বা আটার ডো একবার নষ্ট হয়ে গেলে সেটা আর ঠিক করা যায় না।

হাত দিয়ে মেখে মেখে খুব সুন্দর নরম আর মলায়েম একটা ডো বানাতে হবে। এবার এই ময়দার ডোটা একটা ভেজা কাপড় দিয়ে মুড়ে এক পাশে আধা ঘন্টার জন্য রেখে দিতে হবে।

৩য় ধাপ

ডোটা ৩০ মিনিট ফার্মেন্ট হতে হতে ভেজিটেবল কাঠি রোলের স্টাফিং রেডি করে নিতে হবে। এজন্য প্রথমে একটা প্যানে তেল গরম করতে দিতে হবে। তেল গরম হয়ে গেলে এতে জোয়ান আর আস্ত জিরা ফোড়ন দিতে হবে। জোয়ান আর আস্ত জিরা ফুটে উঠলে মিহি করে কুচি করে রাখা পেঁয়াজ দিয়ে দিতে হবে। অল্প আঁচে কিছুক্ষণ ভাজতে হবে। পেঁয়াজ কুচি একদম লাল লাল করে ভাজার দরকার নেই। পেঁয়াজ কুচি নরম হয়ে গেলেই হবে। এরপর পেঁয়াজ কুচির সাথে পেঁয়াজ বাটা, রসুন বাটা আর আদা বাটা দিতে হবে। এই বার কিছুক্ষণ নেড়ে নেড়ে ভাজতে হবে যাতে করে পেঁয়াজ বাটা, আদা বাটা আর রসুন বাটা কাঁচা কাঁচা গন্ধ একেবারেই চলে যায়। এরপর টমেটো কিউব দিয়ে দিতে হবে। তিন মিনিট মত অল্প আঁচে টমেটো স্যঁতে করতে হবে।

এরপর একে একে সব গুড়া মশলা মানে হলুদ গুড়া, কাশ্মিরি লাল মরিচ গুড়া, ভাজা জিরা গুড়া, ভাজা ধনে গুড়া আর ভাজা গরম মশলা গুড়া দিয়ে দিতে হবে। ভাজা গরম মশলা গুড়ার মধ্যে আছে সমপরিমাণ ছোট এলাচ, দারচিনি, লবঙ্গ আর কালো গোল মরিচ। এই সব উপকরণ একসাথে ভেজে গুড়ো করে নেয়া হয়েছে।

এবার এই মশলার মিশ্রণে কিউব করে কেটে রাখা ক্যাপ্সিকাম দিয়ে দিতে হবে। খুব ভাল করে সব কিছু মিশিয়ে নিতে হবে। দুই মিনিট মত ক্যাপসিকাম সব মশলার সাথে স্যঁতে করতে হবে।

এই বার সিদ্ধ করে রাখা সবজি গুলো এই মশলার মিশ্রণে ঢেলে দিতে হবে। সিদ্ধ হওয়া সবজির মধ্যে যদি কোন পানি থেকে থাকে তাহলে সেই পানিটাও এতে যোগ করে দিতে হবে। কারণ এই পানিটা যদি ফেলে দেয়া হয় তাহলে প্রচুর পরিমাণে সবজির পুষ্টি অপচয় হয়ে যাবে। যেটা কখনোই আমাদের কাম্য নয়। এই পর্যায়ে পরিমাণ মত লবণ ও চিনি দিতে হবে।

খুব ভাল করে সব কিছু একসাথে মিশাতে হবে। এই অবস্থায় চার থেকে পাঁচ মিনিট সবকিছু একসাথে স্যঁতে করতে হবে। খেয়াল রাখবেন যেন কোন ঝোল না থাকে। পানি শুকিয়ে সবজি একটু ড্রাই হতে হবে।এরপর উপর থেকে মিহি করে কুচি করে রাখা ধনে পাতা ছড়িয়ে দিতে হবে। সেই সাথে গ্রেট করে রাখা পনিরও দিয়ে দিতে হবে। ভাল করে মিক্ষ করে আরো দুই মিনিট রান্না করতে হবে। রেডি আপনার কাঠি রোলের জন্য ভেজিটেবল পুর। শেষে পনির যোগ করাটা সম্পূর্ণ আপনার ইচ্ছা। আপনি অতিরিক্ত ক্যালোরি এড়িয়ে যেতে চাইলে পনির নাও দিতে পারেন।

৪র্থ ধাপ

এইবার টপিংটাও বানিয়ে নিন। একটা ছোট বাটিতে পেঁয়াজ কুচি, কাস্মিরি লাল মরিচ গুড়া, লেবুর রস আর চাট মশলা এক সাথে মেখে নিতে হবে।

৫ম ধাপ

এইবার রেডি করে রাখা ডো থেকে ছোট ছোট লেচি কেটে রুটির মত বেলে নিতে হবে। গরম শুকনো তাওয়ায় প্রথমে রুটির এক পিঠ সেকে নিতে হবে। এরপর রুটি উলটে দিতে হবে। উপর থেকে কিছুটা তেল বা ঘি ছড়িয়ে দিতে হবে। হালকা মচমচে করে স কয়টি রুটি সেকে নিতে হবে।

৬ষ্ঠ ধাপ

এইবার আসল ভেজিটেবল কাঠি রোল রেডি করার পালা। প্রথমে একটা রেডি করে রাখা রুটি নিন। এর উপর লম্বালম্বি ভাবে ভেজিটেবল স্টাফিং স্প্রেড করে দিন। এই স্টাফিং এর উপর এক চিমটি চাট মশলা ছড়িয়ে দিন। এবার এই স্টাফিং এর উপর তৈরী করে রাখা পেঁইয়াজের টপিং এক চা চামচ পরিমাণ ছড়িয়ে দিন। এইবার খুব টাইট করে রুটিটা রোল করে নিন। রেডি আপনার ভেজিটেবল কাঠি রোল।

 

মন্তব্যসমূহ

আমি সাদিয়া রিফাত ইসলাম। একজন মা , হোমমেকার এবং ব্লগার। ভালভাসি রান্না করতে, বই পড়তে এবং লেখালেখি করতে।

মন্তব্য করুন