দারুণ মজার ভেটকি মাছের বিরিয়ানি

দারুণ মজার ভেটকি মাছের বিরিয়ানি

বিরিয়ানি দেখে খুশি হন না এমন মানুষ আপনি সারা দুনিয়ায় কোথাও খুজে পাবেন না। ছোট বড় সকলের কমন ফেভারিট একতা খাবার হচ্ছে বিরিয়ানি। তবে বিরিয়ানি কিন্তু ঘুরে ফিরে মাত্র তিন ধরনেরই হয়ে থাকে। চিকেন বিরিয়ানি, বিফ বিরিয়ানি আর মাটন বিরিয়ানি। আজ আমি আপনাদের সাথে অন্য রকম একটা বিরিয়ানি রেসিপি শেয়ার করব। সেটি হচ্ছে দারুণ মজার ভেটকি মাছের বিরিয়ানি।

এই রেসিপিটি ট্রাডিশনাল হায়দ্রাবাদি বিরিয়ানি স্টাইলে বানানো হয়। তবে এক্ষেত্রে চিকেন কিংবা মাটনের পরিবর্তে ভেটকি মাছ ব্যবহার করা হয়ে থাকে। এই রেসিপিটা অন্যান্য বিরিয়ানি রেসিপি থেকে অনেক বেসি সহজ। সেই সাথে এই বিরিয়ানি বানাতে সময়ও অনেক কম লাগে। এর প্রধান কারণ হচ্ছে ভেটকি মাছের বিরিয়ানি বানানোর সময় অন্যান্য বিভিন্ন বিরিয়ানি রেসিপির মত মাছকে মেরিনেট করে ঘন্টার পর ঘন্টা রেখে দেবার কোন প্রয়োজন হয় না। এছাড়া ভেটকি মাছ বেশ নরম মাছ হওয়ায় মাছ রান্না হতে সময়ও অনেক কম লাগে। এজন্য ঝটপট সব কিছু রেডি করে রান্না শুরু করে দিলেই হল। ভেটকি মাছের বিরিয়ানি হতে সর্বোচ্চ ৪৫ মিনিট সময় লাগে।

এই মাছের বিরিয়ানি রেসিপিটাতে আমি টকদই ব্যবহার করেছি। তবে আমি মাঝে মাঝে টকদই এর বদলে নারকেলের দুধও ব্যবহার করে থাকি। দুই ক্ষেত্রেই স্বাদ অনেক সুন্দর হয়। আর আমরা সবাই জানি মাছের সাথে নারকেলের দুধ খুব ভাল কম্বিনেশন। আমি দুটি উপকরণেরই পরিমাণ উপকরণের লিস্টে দিয়ে দিয়েছি। আপনি আপনার কাছে যেটি থাকবে সেটি ব্যবহার করতে পারবেন।

আসুন আর কথা না বাড়িয়ে এই মজাদার ভেটকি আছের বিরিয়ানি বানাতে কি কি উপকরণ লাগবে তা পরিমাণ সহ জেনে নেই। সেই সাথে চলুন এই ভেটকি মাছের বিরিয়ানি বানাবার প্রণালীও ভাল করে বুঝে নেই।

ভেটকি মাছের বিরিয়ানি বানাতে যা যা উপকরণ লাগবে

ভেটকি মাছ মেরিনেট করতে যা যা লাগবে

  • ভেটকি মাছ ৪ পিস
  • পেঁয়াজ বাটা ১ চা চামচ
  • আদা বাটা ১/২ চা চামচ
  • রসুন বাটা ১/২ চা চামচ
  • টমেটো বাটা ১ টেবিল চামচ
  • হলুদ গুড়া ১/২ চা চামচ
  • লাল মরিচ গুড়া ১/২ চা চামচ
  • বিরিয়ানি মশলা গুড়া ১ চা চামচ
  • লেবুর রস ১ চা চামচ
  • লবণ পরিমাণ মত

ভেটকি মাছের বিরিয়ানির গ্রেভি বানাতে যা যা লাগবে

  • সয়াবিন তেল ৩ টেবিল চামচ
  • তেজপাতা ১টি
  • ছোট এলাচ ৩টি
  • বড় এলাচ ১টি
  • দারচিনি ১ টুকরা
  • লবঙ্গ ৩টি
  • জায়ফল অল্প পরিমাণ
  • জয়িত্রী অল্প পরিমাণে
  • আস্ত শাহী জিরা ১/৪ চা চামচ
  • মিহি করে কুচি করে রাখা পেঁয়াজ ১/২ কাপ
  • আদা বাটা ১ চা চামচ
  • রসুন বাটা ১ চা চামচ
  • বিরিয়ানি মশলা গুড়া ১ চা চামচ
  • ভাজা জিরা গুড়া ১/২ চা চামচ
  • ভাজা ধনে গুড়া ১/২ চা চামচ
  • লাল মরিচ গুড়া ১ চা চামচ
  • ঘন টক দই অথবা নারকেলের দুধ ৩/৪ কাপ
  • কেওড়া জল ১/৪ চা চামচ
  • গোলাপ জল ১/৪ চা চামচ
  • মিহি করে কুচি করা পুদিনা পাতা ১ টেবিল চামচ
  • লবণ পরিমাণ মত
  • জাফরান খুব সামান্য
  • ঘন দুধ ২ টেবিল চামচ

ভেটিকি মাছের বিরিয়ানির ভাত রান্না করতে যা যা লাগবে

  • বাসমতি চাল বা পোলাও চাল দেড় কাপ
  • লবণ পরিমাণ মত
  • চিনি সামান্য
  • পানি পরিমাণ মত

ভেটকি মাছের বিরিয়ানি যেভাবে বানাতে হবে

বিরিয়ানির ভাত রেডি করা

প্রথমে চাল ধুয়ে পাইতে ভিজিয়ে রাখুন ২০ মিনিট। এর চেয়ে বেশি সময় চাল ভিজিয়ে রাখবেন না। তাহলে বিরিয়ানি ঝরঝরে হবে না। এরপর সাড়ে চার কাপ থেকে পাঁচ কাপ পানিতে চাল সিদ্ধ করে নিন। এই সময়ে পানির মধ্যে পরিমাণ মত লবণ আর সামান্য চিনি যোগ করে দিবেন। আপনার যদি ইচ্ছা হয় তবে এই সময়ে ফ্লেভারের জন্য পানিতে একটা এলাচ, অল্প শাহী জিরা কিংবা একটা তেজপাতাও ছেড়ে দিতে পারেন। চাল এমন ভাবে সিদ্ধ করবেন যেন এটি এক তৃতীয়াংশ গলে যায়। কারণ পরে মাছের সাথেমিশে এই ভাত আর একটু নরম হবে। এজন্য পুরোপুরি সিদ্ধ করা যাবে না।

বিরিয়ানির মাছ রেডি করা

১ম ধাপ

বিরিয়ানির চাল ভিজিয়ে রেখে মাছ রেডি করে নিতে হবে। প্রথমে মাছ একটু লবণ মেখে ভাল করে ধুয়ে নিতে হবে। এতে করে মাছের মধ্যে থেকে আশটে গন্ধ একেবারেই চলে যাবে। এরপর এওটা পাত্রে মাছ গুলো নিতে হবে। এই মাছের মধ্যে একে একে পেঁয়াজ বাটা, আদা বাটা, রসুন বাটা আর টমেটো বাটা দিয়ে দিতে হবে। সেই সাথে বিরিয়ানি মশলা গুড়া, লাল মরিচ গুড়া, লবণ, হলুদ গুড়া আর লেবুর রসও দিয়ে দিতে হবে। খুব ভাল করে সব উপক্রণ এক সাথে মাখাতে হবে। মাখানোর সময় একটা ব্যাপারে সতর্ক থাকবেন। খুব বেশি তাড়াহুড়ো করতে যাবেন না। ভেটকি মাছ খুব নরম একটা মাছ। বেশি জোরে নাড়া চাড়া করলে এই মাছ ভেঙ্গে যেতে পারে। ার চেষ্টা করবেন যেন সব মশলা সমান ভাবে প্রতিটা মাছের গায়ে লেগে থাকে।

২য় ধাপ

এবার একট ফ্রাইং প্যানে এক টেবিল চামচ সয়াবিন তেল নিতে হবে। তেল হালকা গরম হলে এতে মাছের পিস গুলা এক এক করে ভাজতে হবে। মিডিয়াম আঁচে একটু সময় নিয়ে ভাজতে হবে। ভেটকি মাছ ভাজার সময় একটা ব্যাপারে খুব সতর্ক থাকবেন। কোন ভাবেই চুলার জ্বাল খুব বেশি বাড়াবেন না। চুলার জ্বাল খুব বেশি বাড়িয়ে দিলে মাছের গায়ে লেগে থাকা মশলা গুলো পুড়ে যেতে পারে। মাছ গুলো এপিঠ ওপিঠ সুন্দর করে ভাজা হয়ে গেলে এগুও একটা প্লেটে তুলে রাখুন। খুব ভাল হয় যদি আপনি মাছ ভাজার জন্য ননস্টিক ফ্রাইং প্যান ব্যবহার করেন। তাহলে মাছ আর ফ্রাইং প্যানের গায়ে লেগে যাবার সম্ভাবনা থাকবেনা।

ভেটকি মাছের বিরিয়ানির গ্রেভি রেডি করা

এবার একটা কড়াতে বাকি সয়াবিন তেল নিয়ে নিন। এতে একে একে তেজপাতা, ছোট এলাচ, বড় এলাচ, দারচিনি আর লবঙ্গ ফড়ন দিন। সেই সাথে আস্ত শাহী জিরা, জায়ফল এবং জয়িত্রীও ফোড়ন দিয়ে দিন। দেখবেন একটু পরেই মশলা গুলো ফুটতে শুরু করবে এবং খুব সুন্দর একটা গন্ধ আসবে। তখন এই তেলের মধ্যে মিহি করে কুচি করে রাখা পেঁয়াজ দিয়ে দিন। মিডিয়াম আঁচে লাল লাল না হওয়া পর্যন্ত পেঁয়াজ ভাজতে থাকুন।

পেঁইয়াজের রঙ গোল্ডেন ব্রাউন হয়ে গেলে এতে পেঁয়াজ বাটা, আদা বাটা ও রসুন বাটা দিয়ে দিন। ভাল করে ভেজে নিন যাতে বাটা মশলার কাঁচা গন্ধ একেবারে চলে যায়। এরপর একে একে হলুদ গুড়া, লাল মরিচ গুড়া, ভাজা জিরা গুড়া আর ভাজা ধনে গুড়া দিয়ে দিন। ভাল করে সব মশলা একসাথে মিসিয়ে নিন। এই সময়ে বিরিয়ানি মশলা গুড়াও দিয়ে দিন। ভাল করে কষুন। কিছুক্ষণ পর টক দই দিয়ে দিন। আপনার কাছে যদি নারকেলের দুধ থাকে তাহলে টক দই এর বদলে নারকেলের দুধও দিতে পারেন। বেশি টেস্টি হবে। এই সময়ে পরিমাণ মত লবণ ও চিনিও গ্রেভির মধ্যে দিয়ে দিন। খুব ভাল করে কষতে থাকুন। প্রয়োজনে অল্প অল্প পানি দিতে পারেন। যখন আপনা মনে হবে গ্রেভি থেকে মশলা গুলোর কাঁচা কাঁচা গন্ধ একেবারে দূর হয়ে গেছে আর গ্রেই ঘনহয়ে গেছে তখন চুলা বন্ধ করে দিন।

একটা পাত্রে দুই টেবিল চামচ দুধ নিন। এর মধ্যে কেওড়া জল দিন। আর জাফরান দিন। েই ভাবে রেখে দিন ১০ মিনিটের জন্য।

বিরিয়ানি বানাবার ফাইনাল স্টেপ

এই বার বিরিয়ানি সুন্দর করে লেয়ার করতে হবে। এর জন্য প্রথমে একটা হেভি বটম হাড়িতে অর্ধেকটা সিদ্ধ ভাত দিতে হবে। এর উপর ভেজে রাখা মাছের পিস গুলো দিতে হবে। এরপর উপর থেকে রেডি করে রাখা গ্রেভি চারিদিকে সমান করে ছড়িয়ে দিতে হবে। সেই সাথে কেওড়া জল ও জাফরান ভিজানো দুধ ঢেলে দিতে হবে। মিহি করে কুচি করে রাখা পুদিনা পাতাও এই সময়ে উপর থেকে ছড়িয়ে দিতে হবে। এই বার বাকি সিদ্ধ করে রাহা ভাত দিয়ে এই সমস্ত উপকরণ ঢেকে দিতে হবে। এবার একটা গরম তাওয়ার উপর এই বিরিয়ানির হাড়ি রেখে ১০ মিনিট দমে রাখতে হবে। দশ মিনিট পর সার্ভিং ডিশে সার্ভ করে দিন দারুণ মজার ভেটকি মাছের বিরিয়ানি।

 

 

মন্তব্যসমূহ

আমি সাদিয়া রিফাত ইসলাম। একজন মা , হোমমেকার এবং ব্লগার। ভালভাসি রান্না করতে, বই পড়তে এবং লেখালেখি করতে।

২ টি মন্তব্য
  1. Reply পাঁচফোড়নে ট্যাংরা মাছের তেল ঝাল | চটপট - এসো নিজে করি এপ্রিল ২৩, ২০১৮ তারিখে ১১:৩৭ পূর্বাহ্ন

    […] দেশের অতি সহজ লভ্য মাছ গুলোর মধ্যে ট্যাংরা মাছ অন্যতম। […]

  2. Reply মজাদার নবাবি বিরিয়ানি রেসিপি | চটপট - এসো নিজে করি মে ১৬, ২০১৮ তারিখে ৫:৩৬ অপরাহ্ন

    […] বিরিয়ানি এমন একটা খাবার যেটা এক এক জন এক এক ভাবে বানিয়ে থাকে। আপনি এক এলাকা থেকে বিরিয়ানি খেয়ে অন্য এলাকায় যাবেন। দেখবেন বিরিয়ানির স্বাদ সম্পূর্ণ বদলে গেছে। এর কারণ হচ্ছে এলাকা ভেদে বিরিয়ানি বানাবার প্রক্রিয়া কিন্তু ভিন্ন ভিন্ন হয়। একে একে এলাকায় এক এক রকম মশলা ব্যবহার করা হয়। এরকমই একটা অন্য ধাচের বিরিয়ানির রেসিপি আজ এখানে শেয়ার করব। এই রেসিপিটি হচ্ছে মজাদার নবাবি বিরিয়ানি। […]

মন্তব্য করুন