একটু ভিন্ন ধরনের ব্রেড বাটার পুডিং

একটু ভিন্ন ধরনের ব্রেড বাটার পুডিং

ব্রেড পুডিং খুব কমন একটা ডেজার্ট আইটেম। যদিও এটি আমাদের দেশীয় কোন ডেজার্ট আইটেম না। তবুও আমাদের দেশে সবাই কম বেশি ব্রেড পুডিং বানাতে পারে। তবে আজ আমি আপনাদের সাথে যেই ব্রেড বাটার পুডিং এর রেসিপি শেয়ার করব সেটি ট্রাডিশনাল ব্রেড পুডিং থেকে একেবারেই আলাদা। ট্রাডিশনাল ব্রেড পুডিং এর রেসিপি আপনি এই লিঙ্কে পাবেন।

আমি যেই ব্রেড বাটার পুডিং এর রেসিপি শেয়ার করব তাতে উপকরণ খুবই কম লাগে। আর উপকরণ গুলোর সাথে ট্রাডিশনাল ব্রেড পুডিং এর উপকরণের যথেষ্ঠ মিলও আছে। তাহলে আপনি ভাবতে পারেন এই রেসিপিটা আলাদা কোন দিক থেকে। আসলে এই ব্রেড বাটার পুডিং বানানোর পদ্ধতিটা একটু অন্যরকম। এই ভাবে পুডিং বানানো হলে আপনি বুঝতে পারবেন না যে এটি একটি ব্রেড বাটার পুডিং। কারণ এই পুডিং এর টেক্সচার সাধারণ ডিমের পুডিং এর মত ভেলভেটি আর সফট হয়। কিন্তু পুডিং টি খাওয়ার সময় ব্রেড আর বাটারের খুব সুন্দর একটা ফ্লেভার পাওয়া যায়।

এই ব্রেড বাটার পুডিং বানাতে যে সমস্ত উপকরণ লাগে সেগুলোর সবটাই আমাদের প্রায় প্রত্যেকের বাড়ির ফ্রিজেই সব সময় পাওয়া যায়। আর এই ব্রেড বাটার পুডিং বানাতে সময়ও যে খুব বেশি লাগে তা কিন্তু নয়। অন্তত এই ব্রেড বাটার পুডিং বানাবার প্রস্তুতির জন্য খুব বেশি সময় কিংবা পরিশ্রমের কোন প্রয়োজন হয় না। বাদ বাকি চুলায় বসানোর পর আধা ঘন্টা থেকে ৪৫ মিনিট সময় লাগতে পারে। কিন্তু এই সময়টাতে আপনাকে কিছু করতে হবে না। তাই এই ব্রেড বাটার পুডিং কিন্তু আমার জানা মতে অত্যন্ত সহজ আর ঝামেলা মুক্ত একটি ডেজার্ট আইটেম।

আসুন দেরি না করে এই ব্রেড বাটার পুডিং বানাতে কি কি উপক্রণ লাগবে তা আগে জেনে নেই। এরপর এই ব্রেড বাটার পুডিং কয়টি ধাপে এবং কিভাবে বানাতে হবে তা জেনে নেয়া যাবে।

ব্রেড বাটার পুডিং বানাতে যে যে উপকরণ দরকার হবে

ক্যারামেল করার জন্য যা যা লাগবে

  • চিনি ২ টেবিল চামচ
  • বাটার ১ চা চামচ

মূল পুডিং বানাতে যা যা লাগবে

  • তরল দুধ ৩ কাপ
  • ডিম ৩টি
  • চিনি ১/২ কাপ
  • ব্রেড ২ পিস
  • বাটার ২ চা চামচ
  • ভ্যানিলা এসেন্স ২ ফোটা
  • কাজু বাদাম ৩ থেকে ৪টি
  • চেরি ৩ থেকে ৪টি

ব্রেড বাটার পুডিং যেভাবে বানাতে হবে

ক্যারামেল বানাবার পদ্ধতি

প্রথমে যে পাত্রে আপনি পুডিং বসাবেন সেই পাত্রটি নিয়ে নিন। খেয়াল রাখবেন পাত্রটি যেন একদম শুকনা থাকে। এলুমিনিয়ামের পাত্র নিলে ভাল হয়। এছাড়াও আপনি চাইলে ননস্টিক এর পুডিং ডাইসও নিতে পারেন। এই বার এই পাত্রের মধ্যে দুই টেবিল চামচ চিনি ছড়িয়ে দিন পাত্রটি খুব অল্প আঁচে চুলার উপর বসিয়ে দিন। অল্প সময় অপেক্ষা করুন। দেখবেন কিছুক্ষণ পরই চিনি গলতে শুরু করেছে। চিনি গলতে শুরু করলে পাত্রটি আগুনের উপর ঘুরিয়ে ঘুরিয়ে বাকি চিনি গুলোও সাবধানে গলিয়ে নিবেন। এই ক্যারামেল বানাবার প্রক্রিয়াটা খুব গুরুত্ব পূর্ণ। সেই সাথে এই প্রক্রিয়াটা সব থেকে কঠিনও বতে। এজন্য এই কাজটা খুব সাবধানে করতে হবে। একটু অসাবধান হলেই চিনি পুড়ে যাবে। এবং চিনি পুড়ে গেলে পুরো খাবারটাই তেতো লাগবে খেতে।

পুরো চিনি টুকু এই ভাবে গলিয়ে নিতে হবে। এরপর এর মধ্যে এক চা চামচ বাটার দিয়ে দিতে হবে। বাটার গলে যাবার সাথে সাথেই চুলা বন্ধ করে দিতে হবে। এই ভাবে ক্যারামেলের মিশ্রণটা কিছুক্ষণ রেখে দিতে হবে। কিছুক্ষণ পর দেখবেন পাত্রের তলায় ক্যারামেল জমে গেছে। তখন বুঝবে এর উপর পুডিং এর মিশ্রণ ঢালার সময় হয়ে গেছে।

মূল ব্রেড বাটার পুডিং বানাবার পদ্ধতি

১ম ধাপ

প্রথমে একটা হাড়িতে দুধ জ্বাল দিতে দিন। দুধ ফুটে একটু ঘন হয়ে আসলে এতে চিনি দিয়ে দিন। এখন আপনার মনে হতে পারে দুধের সাথে চিনি জ্বাল দেবার কি দরকার? এতে করে তো দুধ ঘন হতে সময় বেশি লাগবে।। চিনি তো সব উপকরণের সাথে একবারে ব্লেন্ডারে ব্লেন্ড করে নিলেই চলে। তাহলে চলুন আজ আপনাদের সাথে একটা টিপস শেয়ার করি। আময়াদের মধ্যে অনেকেই অভিযোগ করেন ঘন দুধ ব্যবহার করে পুডিং বানাবার পরেও তাদের পুডিং থেকে পানি ছেড়ে দেয়। এর মূল কারণ হচ্ছে চিনি দুধের সাথে জ্বাল না দেওয়া। চিনি জ্বাল না দিয়ে যখন একবারে সব কিছুর সাথে মিশিয়ে পুডিং ডাইসে বসিয়ে দেয়া হয় তখনি মূলত তাপে চিনি থেকে পানি ছেড়ে দেয়। ফলে পুডিং বানাবার পর দেখা যায় এর থেকে পানি পানি বের হচ্ছে। এজন্য সব সময় পুডিং এর জন্য দুধ জ্বাল দিয়ে ঘন করার সময়ই এতে চিনি যোগ করে দিতে হয়।

দুধ ও চিনির মিশ্রণ বেশ কিছুক্ষণ জ্বাল দিতে হবে। এই সময় চুলার আঁচ একদম মিডিয়াম রাখতে হবে। সেই সাথে অনবরত খুনতি দিয়ে নাড়তে থাকতে হবে। তা না হলে হাড়ির তলায় দুধ লেগে যেতে পারে। ৩ কাপ দুধ যখন ঘন হয়ে দুই কাপ পরিমাণ মত হয়ে যাবে তখন চুলা বন্ধ করে দিতে হবে। এই অবস্থায় দুধ আর চিনির মিশ্রণ বেশ কিছুক্ষণ রেখে দিতে হবে ঠান্ডা হবার জন্য। দুধ ঠান্ডা না হলে এর মধ্যে ডিম মেশানো যাবে না। দুধ গরম থাকা অবস্থায় যদি এতে ডিম মেশানো হয় তাহলে ডিম ফেটে যাবে কিংবা স্ক্রাম্বেল হয়ে যাবে। তখন আর পুডিং জমাট বাধবে না।

২য় ধাপ

এই বার ব্রেড রে ডি করবার পালা। প্রথমে ব্রেডের উপর বাটার লাগাতে হবে। একটু পুরু করেই বাটার লাগাতে হবে। এক পিস ব্রেডের জন্য প্রায় এক চা চামচ মত বাটার ব্যবহার করতে হবে। এরপরঙ্গেই ব্রেড পিস গুলো ব্লেন্ডারে দিয়ে ব্লেন্ড করে নিতে হবে। ব্রেডের সাথে বাটার মিশিয়ে ব্লেন্ড করা হয়েছে বলে দেখবেন খুব সুন্দর একটা টেক্সচার আসবে। পুরোপুরি পাউডার হবেনা ব্রেড পিসগুলো। একটু ঝুর ঝুরা থাকবে। আর ব্রেড গুড়া গুড়া করার পর এর থেকে অসাধারণ একটা গন্ধ বের হবে।

৩য় ধাপ

এই বার ঝুর ঝুরে করে রাখা ব্রেডের মধ্যে ডিম ফেটে দিয়ে দিতে হবে। একবার ডিমের সাথে ব্রেড ব্লেন্ড করে নিতে হবে। এরপর এই ডিম ও ব্রেডের মিশ্রণের মধ্যে ভ্যানিলা এসেন্স, বাদাম আর চেরি দিয়ে দিতে হবে। আর একবার বেন্ড করে নিতে হবে। এবার ঘন করে ঠান্ডা করে রাখা দুধ ও চিনির মিশ্রণ এই ডিমের মিশ্রণের মধ্যে ঢেলে দিতে হবে। খুব ভাল করে সব কটি উপকরণ এক সাথে ব্লেন্ড করে নিতে হবে।

এরপর পুডিং ডাইসে আগে থেকে রেডি করে রাখা ক্যারামেলের উপর এই ডিম ও দুধের মিশ্রণ ঢেলে দিতে হবে। ঢাকনা দিয়ে ঢেকে দিতে হবে। এবার একটা বড় হাড়িতে বা কড়াতে পানি ফুটতে দিতে হবে। পানি ফুটে গেলে এর উপর পুডিং ডাইস বসিয়ে দিতে হবে। খেয়াল রাখতে হবে পানি যেন পুডিং ডাইসের অর্ধেকের বেশি উপরে না যায়। এবার একটা ঢাকনা দিয়ে বড় হাড়ি কিংবা কড়াটা ঢেকে দিতে হবে। চুলার আঁচ মিডিয়াম করে দিতে হবে। এই অবস্থায় ৪০ থেকে ৪৫ মিনিট রেখে দিতে হবে। এর মধ্যে একবার ঢাকনা খুলে চেখ করতে হবে পুডিং হয়ে গেছে কিনা। চেক করার জন্য একটা কাঠি নিয়ে পুডিং এর মধ্যে ধুকাতে হবে। যদি কাঠিটা পরিস্কার থাকে তার মানে পুডিং হয়ে গেছে। আর যদি কাঠির গায়ে কিছু লেগে থাকে তার মানে পুডিং এখনো পুরোপুরি রান্না হয়নি। তখন প্রয়োজন মত আর একটু সময় অপেক্ষা করতে হবে।

পুডিং হয়ে গেলে একটা প্লেটে উলতা করে ঢেলে নিতে হবে এবং সার্ভ করতে হবে।

মন্তব্যসমূহ

আমি সাদিয়া রিফাত ইসলাম। একজন মা , হোমমেকার এবং ব্লগার। ভালভাসি রান্না করতে, বই পড়তে এবং লেখালেখি করতে।

মন্তব্য করুন