ভিন্ন স্বাদের মটরশুটির পরোটা রেসিপি

ভিন্ন স্বাদের মটরশুটির পরোটা রেসিপি

মটরশুটির পরোটা হচ্ছে ভারতের একটা জনপ্রিয় ডিশ। আরো নির্দিস্ট করে বলতে গেলে বলতে হয় যে এটি মূলত ভারতের পাঞ্জাব প্রদশের একটি খাবার। আসলে পাঞ্জাবে পরোটা খুব জনপ্রিয় একটি খাবার। আমাদের দেশে আমরা সাধারণত সাধারণ পরোটাই খেয়ে থাকি। খুব বেশি হলে হয়তো অনেকে আলু পরো্টা বাসায় বানিয়ে থাকেন। কিন্তু পাঞ্জাবে পরোটা অনেক জনপ্রিয় একটা খাবার। ওখানকার লোকেরা বিভিন্ন রকম ভাবে পরোটা বানিয়ে থাকেন। আলু পরোটা, মুলা পরোটা, মেথি পরোটা, আরো কত কি? এরকমই একটি পরোটার প্রকার হচ্ছে মটরশুটির পরোটা।

এই মটরশুটির পরোটা আপনি এমনিই খেতে পারবেন। আনুসঙ্গিক কোন কিছু ছাড়াই এই মটরশুটির পরোটা খেতে যথেষ্ঠ টেস্টি লাগে। তবে এই পরোটার সাথে যদি একটু আমের আচার কিংবা টক দই এর রায়তা দেয়া হয় তবে খেতে আরো ভাল লাগবে। আপনি ইচ্ছা হলে মটরশুটির পরোতার সাথে বিভিন্ন রকম আলুর দমও সার্ভ করতে পারেন। মটরশুটির পরোটার সাথে আলুর দম খুব ভাল যায়।

মটরশুটির পরোটা অনেকে অনেক ভাবেই বানিয়ে থাকেন। কেউ কেউ অনেক বেশি ধরনের মশলা ব্যবহার করে থাকেন। তবে আমি নিজে মটরশুটির পরোটা বানাবার সময় খুব বেশি ধরনের মশলা ব্যবহার কর পছন্দ করিনা। কারণ মটরশুটির নিজস্ব একটা দারুণ টেস্ট আছে। খুব বেশি ধরনের মশলা ব্যবহার করা হলে নানা রকম মশলার টেস্টের ভীড়ে মটরশুটির আসল টেস্ট হাড়িয়ে যাবার সম্ভাবনা থেকেই যায়।

আসুন কি কি উপকরণ ব্যবহার করে এই মটরশুটির পরোটা বানাতে হয় তা জলদি জলদি দেখে নেয়া যাক। চলুন একই সঙ্গে এই মটরশুটির পরোটা বানাতে হবে তাও দেখে নেই।

মটরশুটির পরোটা বানাতে যে যে উপকরণ লাগবে

পরোটা ডো বানাতে যা যা লাগবে

  • ময়দা ২ কাপ
  • লবণ অল্প পরিমাণে
  • সয়াবিন তেল ২ টেবিল চামচ
  • পানি ১/৩ কাপ থেকে ১/২ কাপ অথবা পরিমাণ মত

মটরশুটির পুর বানাতে যে যে উপকরণ লাগবে

  • মটরশুটি ১/৫ কাপ
  • আস্ত জিরা ১/২ চা চামচ
  • বেসন ১ টেবিল চামচ
  • মিহি করে কুচি করে রাখা ধনে পাতা ১ টেবিল চামচ
  • মিহি করে কুচি করে রাখা কাঁচা মরিচ ২ চা চামচ
  • হিং এক চিমটি
  • ভাজা গরম মশলা গুড়া ১/৪ চা চামচ (অপশনাল)
  • লবণ পরিমাণ মত
  • সয়াবিন তেল কিংবা ঘি পরিমাণ মত

মটরশুটির পরোটা যে পদ্ধতিতে বানাতে হবে

ডো যেভাবে বানাতে হবে

একটা বড় বোল নিতে হবে। এর মধ্যে ময়দা, লবণ আর তেল নিতে হবে। প্রথমে ভাল করে এই তিনটি উপকরণ মিশিয়ে নিতে হবে। হাত দিয়ে ভাল করে এই তিনট উপকরণ মাখতে হবে। দেখবেন ময়দার সাথে সয়াবিন তেল মিশে ময়দার টেক্সচার বদলে দিচ্ছে। ময়দার গুলো দেখবেন বেশ ঝুর ঝুরা মতন হয়ে যাচ্ছে। যেকোন পরোটা বানাবার আগে ময়দা আর তেল মিশিয়ে ময়দাটাকে ঝুর ঝুরা করে নেয়াটা খুব জরুরী একটা স্টেপ। এরকম করা হলে পরোটা খাস্তা হয়। তা না হলে পরোটা মচমচে হয় না। নরম চিপসানো পরোটা তৈরী হয়। আর পরোটা ভাজার সময় তেলও বেশি পরিমাণে শুষে নেয়।

এরপর অল্প অল্প করে ময়দার মধ্যে পানি যোগ করতে হবে আর ময়দা ময়ান দিতে হবে। ময়দা ময়ান দেবার সময় কখনোই একবারে সব পানি দিয়ে দেয়া উচিত না। কারণ পানি একবার বেশি হয়ে গেলে তা আর ঠিক করা খুব মুশকিল হয়ে যায়। এজন্য অল্প অল্প করে পানি যোগ করে নরম করে ময়দা ময়ান দিয়ে নিতে হবে। ময়দা ময়ান দেয়া হয়ে গেলে একটা পরিস্কার ভেজা কাপড় দিয়ে ময়দার ডোটা ঢেকে রাখতে হবে। এই ভাবে ভেজা কাপড় দিয়ে ময়দার ডো ঢেকে রাখতে হবে প্রায় ৩০ মিনিট মত। এর থেকে বেশি সময় রাখার দরকার নেই। এরপর ময়দার ডো পরোটা বানাবার জন্য একদম রেডি।

মটরশুটির পরোটার পুর যেভাবে বানাতে হবে

১ম ধাপ

প্রথমেই মটরশুটি ছিলে পরিস্কার করে নিতে হবে। এরপর মটরশুটি গুলো প্রেশার কুকার কিংবা রাইস কুকারে স্টিম দিয়ে নিতে হবে। এই রান্নাটার একটা গোপন টিপস হল এটাই। অনেকেই মটরশুটি সিদ্ধ করে নেন পানির মধ্যে দিয়ে। তারপর ভর্তা করে মটরশুটির পরোটা বানানোর চেষ্টা করে তাহকেন। কিন্তু এতে করে মটরশুটির ভর্তা অনেক নরম হয়ে যায়। ফলে পরোটা ঠিক মত বেলা যায় না। আর ভিতর থেকে পুর বের হয়ে আসে পরোটা বেলার সময়। এজন্য অবস্যই মটরশুটি স্টিম দিয়ে সিদ্ধ করে নিবেন। ফুটন্ত পানিতে সরাসরি সিদ্ধ করবেন না।

২য় ধাপ

মটরশুটি সিদ্ধ হয়ে গেলে এক পাশে রেখে দিতে হবে। কিছুক্ষণ অপেক্ষা করতে হবে। কিছুক্ষণ পর মটরশুটি গুলো রুম টেম্পারেচারে এসে যাবে তখন একটা পটেটো ম্যাশার দিয়ে এগুলো সুন্দর করে ভর্তা করে নিতে হবে। আপনার কাছে পটেটো ম্যাশার না থাকলে হাত দিয়েও মটরশুটি গুলো ভর্তা করে নিতে পারেন। তবে মটরশুটি অনেক ছোট ছোট হওয়ায় হাত দিয়ে ভর্তা করাটা যথেষ্ঠ কঠিন হয়ে যায়।

৩য় ধাপ

প্রথমে একটা ফ্রাইং প্যানে তেল গরম করতে হবে। তেল গরম হলে এতে আস্ত জিরা ফোড়ন দিতে হবে। জ্রা ফুটে সুন্দর গন্ধ বের হলে তা একটা ঝাঝ্রি দিয়ে ছেকে তুলে নিতে হবে। আগে থেকে ভর্তা করে রাখা মটরশুটির মধ্যে ভাজা জিরা মেশাতে হবে।

এরপর ঐ তেলে বেসন দিতে হবে। খুব অল্প আঁচে কিছুক্ষণ বেসন ভাজতে হবে। এই সময়ে এক ভাবে খুনতি নাড়াতে হবে। তা না হলে বেসন পুড়ে যেতে পারে। কিছুক্ষণ ভাজার পর দেখবেন যে বেসন থেকে কাঁচা কাঁচা ভাব চলে গেছে। এবং ভাজা বেসন থেকে খুব সুন্দর একটা গন্ধ আসছে। এই সময়ে বুঝতে হবে যে বেসন রেডি হয়ে গেছে।

৪র্থ ধাপ

এরপর ঐ ভাজা বেসনের মধ্যে ভর্তা করে রাখা মটরশুটি ও ভাজা জিরার মশ্রণ দিয়ে দিতে হবে। ভাল করে খুনতি দিয়ে নেড়ে চেড়ে মিশিয়ে নিতে হবে। সেই সাথে এর মধ্যে হিং, কাঁচা মরিচ কুচি, ধনে পাতা কুচি আর লবণ দিতে হবে। এই সময়ে আপনা যদি ইচ্ছা হয় তাহলে সামান্য পরিমাণে ভাজা গরম মশলা দিতে পারেন। না দিলেও ক্ষতি নেই। সব উপকরণ এক সাথে খুব ভাল করে মিশিয়ে নিতে হবে। দুই থেকে তিন মিনিট নেড়ে নেড়ে ফ্রাইং প্যানে ভাজা ভাজা করে নিতে হবে। ব্যস আপনার মটরশুটির পরোটার জন্য মটরশুটির পুর রেডি।

পরোটা যেভাবে বানাতে হবে

১ম ধাপ

প্রথমে রেডি করে রাখা ডো থেকে দুটো সমান মাপের লেচ কেটে নিতে হবে। এই বার এই লেচি দুটো থেকে প্রায় ৪ থেকে ৫ ইঞ্চি মাপের দুটো রুটি বেলে নিতে হবে। এই বার একটা রুটির উপর এক টেবিল চামচ পরিমাণ মটরশুটির পুর ছড়িয়ে দিন। রুটির চার পাশে এক ইঞ্চি পরিমাণ জায়গা ফাকা রাখবেন। এই বার আর একটি রুটি এর উপর সমান করে বিছিয়ে দিতে হবে। হাতের আঙ্গুল দিয়ে চেপে চেপে রুটি দুটির চার পাশ জোড়া লাগিয়ে দিতে হবে। এইবার আস্তে আস্তে এটি বেলে নিতে হবে। প্রায় ৬ থেকে সাত ইঞ্চি সাইজের এক একটা পরোটা এই ভাবে বানিয়ে নিতে হবে।

২য় ধাপ

প্রথমে একটা তাওয়া চুলায় গরম করতে দিতে হবে। তাওয়া গরম হয়ে গেলে এতে পরোটা ছেকতে দিতে হবে। মিডিয়াম আঁচে দুই থেকে তিন মিনিট পরোটা ছেকে নিতে হবে। এরপর পরোটা উলটে দিতে হবে। এই সময় উপর থেকে চারপাশে এক চা চামচ ঘি ছড়িয়ে দেয়া যেতে পারে। এই ভাবে আরো দুই থেকে তিন মিনিট পরোটা ছেকে নিতে হবে। পরোটার দুই পাশ সমান ভাবে ভেজে নেয়া হয়ে গেলে চুলা বন্ধ করে দিতে হবে। রেডি আপনার মটরশুটির পরোটা।

 

 

 

মন্তব্যসমূহ

আমি সাদিয়া রিফাত ইসলাম। একজন মা , হোমমেকার এবং ব্লগার। ভালভাসি রান্না করতে, বই পড়তে এবং লেখালেখি করতে।

মন্তব্য করুন