ত্বকের যত্নে দারুণ একটি তরমুজ এর প্যাক

ত্বকের যত্নে দারুণ একটি তরমুজ এর প্যাক

বাজারে এখন প্রচুর পরিমাণে তরমুজ কিনতে পাওয়া যাচ্ছে। এই তরমুজ কিন্তু অত্যন্ত উপকারি একটি ফল। বলা যায় গরম কালের জন্য তরমুজ একটি আশির্বা স্বরূপ। তরমুজে থাকে ৯৩% পর্যন্ত পানি। এজন্য এই ফলটি আমাদের শরীর ঠান্ডা করতে অত্যন্ত কার্যকরী। তাছাড়াও তরমুজে আছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন ও মিনারেলস। তাই এটি শরীরের পক্ষে অত্যন্ত উপকারি। তবে আপনারা কি জানেন তরমুজ আমাদের শরীরের সাথে সাথে ত্বকের জন্যও অনেক উপকার বয়ে আনতে পারে। যদি সঠিক উপায়ে সঠিক উপকরণের সাথে তরমুজের রস আমাদের ত্বকে লাগানো যায় তবে এটি য়ামাদের ত্বকের অনেক সমস্যা সমাধানে কাজ করে। বিশেষ করে ত্বকে যদি ব্রণ কিংবা ব্রণের দাগ থাকে তবে তরমুজের সাহায্যে খুব সহজেই সেই দাগ দূর করা যায়। আজ আমি এমন একটি তরমুজ এর প্যাক নিয় কথা বলব যেটি আপনার ত্বক থেকে ব্রণ ও ব্রণের দাগ দূর করতে অনেক সাহায্য করবে। চলুন কিভাবে প্যাকটি ব্যবহার করতে হবে তা দেখে নেই।

তরমুজ এর প্যাক বানাতে যে যে উপকরণ লাগবে

  • তরমুজের রস ১ চা চামচ
  • শশার রস ১/২ চাচামচ
  • লেবুর রস ১/২ চা চামচ
  • টকদই ১/২ চা চামচ
  • বেসন ১ চা চামচ

তরমুজ এর প্যাক যেভাবে বানাতে হবে

প্রথমে একটা বাটিতে তরমুজের রস, শশার রস, লেবুর নিয়ে নিতে হবে। এই তিনটি উপকরণ ভাল করে মিশিয়ে নিতে হবে। এরপর এর মধ্যে টক দই মিশিয়ে নিতে হবে।লিকুইড উপকরণ গুলো ভাল ভাবে মেশানো হয়ে গেলে এর মধ্যে বেসন মেশাতে হবে। খুব ভাল করে সব উপকরণ গুলো একে অন্যের সাথে মিশিয়ে নিতে হবে। একটা ঘন পেস্ট তৈরী করতে হবে। খেয়াল রাখতে হবে যেন কোন লাম্পস তৈরী না হয়।

তরমুজ এর প্যাক যেভাবে ব্যবহার করতে হবে

প্রথমে মুখ ও গলার ত্বক খুব ভাল করে পরিস্কার করে নিতে হবে। সুধু পানি দিয়ে পরিস্কার করলে হবে না। ফেস ওয়াশ ব্যবহার করতে হবে। এরপর একটা পরিস্কার শুকনা তোয়ালে দিয়ে মুখ ও গলা মুছে নিতে হবে। এরপর এই প্যাকটি সমান করে মুখে ও গলার ত্বকে লাগিয়ে নিতে হবে। ২০ মিনিট থেকে আধা ঘন্টা অপেক্ষা করতে হবে। এই সময়ের মধ্যে ফেস প্যাকটী সম্পূর্ণ শুকিয়ে যাবে। যদি এই সময়ের মধ্যে প্যাকটি না শুকায় তাহলে আরো দুই থেকে পাঁচ মিনিট অপেক্ষা করা যেতে পারে। এরপর ঠান্ডা পানি দিয়ে খুব ভাল ভাবে সম্পূর্ণ মুখ ও গলার ত্বক পরিস্কার করে নিতে হবে ভাল ভাবে। খেয়াল রাখবেন ত্বকের কোথাও যেন শুকনো ফেস প্যাক লেগে না থাকে। ত্বক ভাল মত পানি দিয়ে পরিস্কার করা হয়ে গেলে মুখ মুছে শুকিয়ে নিন। সপ্তাহে অন্তত তিন দিন এই তরমুজ এর ফেস প্যাক ব্যবহার করতে হবে। তাহলেই এর ফলাফল লক্ষণীয় হতে শুরু করবে।

তরমুজ এর প্যাক ব্যবহার করার উপকারিতা

তরমুজের রসের উপকারিতা

তরমুজে আছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন এ, ভিটামিন বি৬ আর ভিটামিন সি। শুধু তাই নয়। তরমুজের মধ্যে আরো রয়েছে কপার, পটাশিয়াম, ম্যাগনেশিয়াম ও বায়োটিন। এসব উপাদানই আমাদের স্বাস্থ্যে সাথে সাথে আমাদের ত্বকের জন্য প্রচুর পুষ্টি যোগায়। ফলে তরমুজের রস মুখে লাগালে আমাদের ত্বক আস্তে আস্তে স্বাস্থ্যোজ্জ্বল হয়ে ওঠে। আর তরমুজের রস ত্বক থেকে জেদী দাগ রিমুভ করতেও অনেক সাহায্য করে থাকে।

শশার রসের উপকারিতা

শশার রস মূলত তৈলাক্ত ত্বকের জন্য বেশি উপকারি।শশার রস নিয়মিত ব্যবহার করলে তা ত্বক থেকে অতিরিক্ত তেল শুষে নিতে সাহায্য করে। ফলে তৈলাক্ত ত্বক অনেক বেশি ফ্রেশ আর প্রাণোবন্ত দেখায়। তাছাড়া ত্বকের যত্নে বিভিন্ন ফেস প্যাকের সাথে নিয়মিত শশার রস ব্যবহার করলে তা ত্বকে নতুন করে তেল তৈরী হতেও বাধা দেয়।

লেবুর রসের উপকারিতা

লেবুর রস হচ্ছে অতি কার্যকারী একটা প্রাকৃতিক ব্লিচিং এজেন্ট। যেকোন কেমিকেল ব্লিচের মতই লেবুর রস আপনার ত্বকের রঙ ধীরে ধীরে হালকা করে দিতে সাহায্য করে। তাছাড়া লেবুতে আছে এন্টি ব্যাকটেরিয়াল প্রপার্টিজ। ফলে লেবু আমাদের ত্বকের গভীরে লুকিয়ে থাকা জীবাণুর বিরুদ্ধে খুব ভাল কাজে দেয়। ফলে ত্বকের যত্নে নিয়মিত লেবুর রস ব্যবহার করলে ত্বক ফর্সা হবার সাথে সাথে ত্বকে নতুন কোন ব্রণের আক্রমণ হতে পারে না। সেই সাথে ত্বকে থাকা পুরোনো ব্রণ এর দাগও ধীরে ধীরে কমতে শুরু করে।

টক দই এর উপকারিতা

যে কোন ধরনের ত্বকের জন্য টক দই হচ্ছে একটা আশির্বাদ স্বরূপ। নিয়মিত যদি ত্বকের যত্নে টক দই ব্যবহার করা হয় তাহলে তা আমাদের ত্বক আস্তে আস্তে অনেক ফর্সা হয়ে যাবে। কারণ টক দইতে আছে ল্যাকটিক এসিড নামের একটি উপকরণ। এটির জন্য আমাদের ত্বক আস্তে আস্তে হালকা করে দেয়। আর ল্যাকটিক এসিড ত্বকের উপর মাইল্ড স্ক্রাবের মত কাজ করে। ফলে ত্বকের উপর থেকে মরা কোষের পরত দূর হয়ে যায়।

বেসনের উপকারিতা

বেসন হচ্ছে তৈলাক্ত ত্বকের বেস্ট ফ্রেন্ড। তবে সেই সাথে এটি অন্যান্য ত্বকের জন্যও খুব ভাল কাজে দেয়। বেসন ত্বক থেকে বাড়তি তেল শুষে নেয়। সেই সাথে এটি ত্বককে আস্তে আস্তে ফর্সা করতেও কাজে দেয়।

মন্তব্যসমূহ

আমি সাদিয়া রিফাত ইসলাম। একজন মা , হোমমেকার এবং ব্লগার। ভালভাসি রান্না করতে, বই পড়তে এবং লেখালেখি করতে।

মন্তব্য করুন