মজাদার ইলিশ মাছের বিরিয়ানি

 

ইলিশ আমাদের সবার খুবই প্রিয় একটি মাছ। সব মৌসুমেই ইলিশ খেতে ভালো লাগে। আর যে কোন উৎসবে মাংসের পাশাপাশি যদি ইলিশের কোন পদ না থাকে তাহলে যেন একেবারেই চলে না। সামনে ইদ আসছে, এই মহান উৎসবে যদি ইলিশের কোন পদ না থাকে তাহলে কি চলে বলুন? ইলিশের অনেক অনেক রেসিপি আছে। অনেকেই অনেক রকম রেসিপি জানেন। কিন্তু আজ আমি আপনাদের সাথে ইলিশের অন্যরকম মজার একটি রেসিপি শেয়ার করব। আর এটা হলো – মজাদার ইলিশ মাছের বিরিয়ানি। তাহলে চলুন, ইলিশ মাছের মজার এই রেসিপি টি তৈরি করতে কি কি উপকরণ লাগবে এবং কিভাবে এই বিরিয়ানি রান্না করবেন তা দেখে নেয়া যাক।

প্রয়োজনীয় উপকরণ:

 

  • তেলওয়ালা বড় ইলিশ – ৪ পিস ( যদি ডিম থাকে সেটা বাদ দিয়ে দিন),
  • বাসমতী/ পোলাও  চাল – হাফ কেজি
  • পেঁয়াজবাটা –  ৩ টেবিল চামচ
  • পেঁয়াজ কুচি – হাফ কাপ,
  • আদাবাটা-  ১ চা-চামচ,
  • রসুনবাটা –  হাফ চা-চামচ,
  • মরিচ গুঁড়া – পৌনে ১ চামচ
  • টকদই – ১ টেবিল চামচ,
  • নারকেলের ঘন দুধ  – ২ কাপ,
  • কাঁচা মরিচ –  ১২/১৪ টি ( আস্ত)
  • চিনি – হাফ চা-চামচ,
  • কিশমিশ – ২ টেবিল চামচ,
  • জাফরান  রং – খুব সামান্য
  • গরম মসলার গুঁড়া – খুব অল্প
  • লবঙ্গ – ২/৩ টি
  • দারুচিনি – ২ টুকরা
  • এলাচি –  ৩/৪ টি
  • লবণ  -:স্বাদ মতো,
  • তেল –  হাফ কাপ,
  • ঘি –  ১ টেবিল চামচ

 

প্রস্তুত প্রণালী:

ইলিশ রান্না:

  • একটি প্যানে ঘি গরম করে নিয়ে তাতে পেঁয়াজ কুচি গুলো দিয়ে ভেজে বেরেস্তা করে তুলে রাখতে হবে। একই তেলে কিশমিশ গুলোও হালকা ভাবে ভেজে তুলে নিতে হবে । সেই কড়াইয়ের ঘিয়ের সঙ্গেই অর্ধেকটা তেল মিশিয়ে বাটা পেঁয়াজ টা  দিয়ে অল্প ভেজে নিন।
  • এবার এতে মরিচের গুঁড়া ও রসুন বাটা দিয়ে অল্প করে কষিয়ে নিয়ে আগে থেকে লবণ দিয়ে মাখানো ইলিশের টুকরা গুলো দিয়ে দিন। ইলিশের পিস গুলো হালকা করে কষিয়ে নিয়ে আগে থেকে চিনি দিয়ে ফেটানো টক দই দিয়ে ভালো ভাবে মিশিয়ে নিতে হবে।
  • তারপর অল্প করে গরম পানি দিয়ে ঢাকনে দিয়ে ঢেকে প্রায় ১৫ মিনিট এর মত রান্না করে নামিয়ে নিতে হবে। তারপর ইলিশ গুলো নামানোর কিছুক্ষন আগে গরম মসলার গুঁড়া উপরে ছড়িয়ে দিন।

 পোলাও রান্না:

  • এবারে আরেকটি পাত্রে চাল অনুযায়ী  ফুটন্ত গরম পানি, নারকেলের দুধ এবং লবণ এক সঙ্গে ভালো ভাবে মিশিয়ে নিন। তারপর অন্য আরেকটি প্যানে বাকি তেলটা দিয়ে দিন এবং এতে আগে রান্না করে রাখা ইলিশের তেলটাও (শুধু তেল দেবেন, ঝোল বা মসলা দেবেন না) দিয়ে মিশিয়ে নিন।
  • এরপর এই তেলে গরম মসলা দিয়ে ফোড়ন দিয়ে চাল গুলো দিয়ে দিন। এবারে আদা বাটা দিয়ে ৫/৬ মিনিট ভেজে নিয়ে  নারকেলের দুধ, পানি এবং লবণের মিশ্রণ  দিয়ে ভালো করে মিশিয়ে ঢাকনা দিয়ে ভালো ভাবে ঢেকে দিন।
  • একটু পরে প্যানের পানি আর চাল সমান সমান হয়ে আসলে ৪-৫ টি ছাড়া বাকি কাঁচা মরিচ গুলো দিয়ে দিতে হবে । এখন চুলার জ্বাল কিছুটা কমিয়ে দিয়ে প্যানের নিচে একটা তাওয়া দিয়ে পোলাও টা কিছুক্ষণ এর জন্য দমে বসিয়ে নিন।

পরিবেশন:

  • রান্না হয়ে গেলে পোলাও টা নামিয়ে নিয়ে ২ টেবিল চামচ পোলাও নিয়ে এর সঙ্গে জাফরান রং ভালো ভাবে মিশিয়ে রাখুন।
  • তারপর একটা হাঁড়িতে কম করে ঘিয়ের প্রলেপ দিয়ে এতে প্রথমে পোলাও য়ের স্তর দিন তারপর হালকা করে অল্প জাফরান রঙের পোলাও, তার উপরে  পেয়াজ বেরেস্তা আর ভাজা কিশমিশ  গুলো ছড়িয়ে দিন।
  • তারপর এর উপরে আবার দিন পোলাওয়ের স্তর, তারপর দিয়ে দিন  রান্না করে রাখা ইলিশের মসলার স্তর দিয়ে দিন এবং আবারও সামান্য জাফরান রঙের পোলাও দিন এবং পেয়াজ বেরেস্তা আর কিশমিশ গুলো ছড়িয়ে দিন।
  • তারপর দিয়ে দিন বাকি মসলা গুলো এবং ইলিশ, বেরেস্তা আর ৫/৬ টি আস্ত কাঁচা মরিচ দিয়ে কিছুক্ষন দমে দিন প্রায়  ২০-২৫ মিনিটের জন্য। তারপর পরিবেশন করার আগে ঢাকনা টা আর না খোলাই ভালো। এতে ভ্লেভার টা অনেক সময় থাকবে।
  • সবশেষে  পরিবেশন করার সময় ইলিশ  মাছের টুকরা গুলো সাবধানে তুলে রেখে তারপর পোলাও এর সাথে হালকা হাতে মিশিয়ে নিয়ে পরিবেশন এর পাত্রে তুলে নিন। তারপর উপরে ইলিশের টুকরা গুলোকে সাজিয়ে নিয়ে গরম গরম পরিবেশন করুন মজাদার
    ইলিশ বিরিয়ানি।http://মজাদার ইলিশ মাছের বিরিয়ানি

মন্তব্যসমূহ

আমি একজন শিক্ষার্থী। নতুন কিছু সম্পর্কে জানতে ও শিখতে ভালোবাসি এবং অন্যদের সাথে সেটা শেয়ার করতে ভালো লাগে।

মন্তব্য করুন