ঈদের জন্য মজাদার ডেজার্ট আপেলের রাবড়ি রেসিপি

ঈদের জন্য মজাদার ডেজার্ট আপেলের রাবড়ি রেসিপি

ঈদের দিন খাবারের টেবিলে আর কিছু থাকুক কিংবা নাই থাকুক নানা রকম ডেজার্ট আইটেমের সমাহার থাকবেই। তবে এই দিনে বেশির ভাগ বাড়িতেই ডেজার্ট হিসেবে সাধারণত শুধু বিভিন্ন রকম সেমাই রান্না করা হয়ে থাকে। কিন্তু যদি এই দিনে নানা রকম সেমাই এর সাথে একটু অন্য ধরণের ডেজার্ট পরিবেশন করা যায় তাহলে কেমন হবে বলুন তো? আমার তো মনে হয় দারুণ হবে। এজন্য আজ ঈদের দিনে খাবার টেবিলে সার্ভ করার জন্য অন্য রকম এক ডেজার্ট রেসিপির সন্ধান নিয়ে এসেছি। এই রেসিপিটি হচ্ছে মজাদার আপেলের রাবড়ি।

রাবড়ি কিন্তু আমাদের দেশিয় কোন ডেজার্ট নয়। এটি আমাদের পার্শ্ববর্তি দেশ ভারতের খুব জনপ্রিয় একটি ডেজার্ট। মূলত দুধ ঘন করে এর সাথে বিভিন্ন রকম বাদাম আর কিশমিশ মিশিয়ে এই রাবড়ি তৈরী করা হয়ে থাকে। ভারতে প্রায় সব প্রদেশেই বড় বড় মিষ্টির দোকান গুলোতে আপনি রাবড়ি পেয়ে যাবেন। তবে আমাদের দেশে রাবড়ি অত বেশি সহজলভ্য না। তাই এখানে রাবড়ি খেতে হবে বাসাতেই বানিয়ে খেতে হবে। এজন্যই আজ আপনাদের সাথে রাবড়ির রেসিপি শেয়ার করছি। তবে এই রাবড়ির রেসিপিতে একটু টুইস্ট আছে। রাবড়ি বানাবার সাধারণ উপকরণ গুলোর সাথে সাথে এই রেসিপিতে কিছুটা আপেলও যোগ করা হয়েছে। ফলে এই ডেজার্টটি সুস্বাদু হবার সাথে সাথে অনেক বেশি পুষ্টিকরও হয়ে উঠেছে।

আপেলের রাবড়ি বানানো কিন্তু খুব একটা কঠিন কোন ব্যাপার নয়। এই আপেলের রাবড়ি বানাতে খুব বেশি উপকরণেরও দরকার পড়ে না। আপনার হাতের কাছে থাকা খুব অল্প সংখ্যক জিনিস দিয়েই আপনি খুব সহজেই এই আপেলের রাবড়ি বানিয়ে নোট পারবেন। তাহলে চলুন দেরি না করে কিভাবে এই আপেলের রাবড়ি ঘরে বসেই বানানো যায় তা দেখে নেই। সেই সাথে এটি বানাতে কোন কোন উপকরণ কি পরিমাণে দরকার হবে তাও জেনে নেয়া যাক।

আপেলের রাবড়ি বানাতে যে যে উপকরণ দরকার হবে

  • আপেল ১টি বড় সাইজের
  • দুধ ১ কাপ
  • মিহি করে কোড়ানো নারকেল ৩ থেকে ৪ টেবিল চামচ
  • কাজু বাদাম ৪ থেকে ৫টি
  • কিশমিশ ৪ থেকে ৫টি
  • পেস্তা বাদাম ৪ থেকে ৫টি
  • চিনা বাদাম ৪ থেকে ৫টি
  • কাঠ বাদাম ৪ থেকে ৫টি
  • লবণ ১ চিমটি
  • চিনি ২ থেকে ৩ চা চামচ
  • এলাচ গুড়া ১ চিমটি

আপেলের রাবড়ি যে পদ্ধতিতে বানাতে হবে

১ম ধাপ

প্রথমে আপেলটা ভাল করে ধুয়ে পরিস্কার করে খোসা ছাড়িয়ে নিতে হবে। এই রান্নাটির জন্য অতি অবশ্যই পাকা লাল আপেল নিতে হবে। সবুজ আপেল নেয়া যাবে না। এই বার আপেলটা ছোট ছোট টুকরা করে কেটে নিতে হবে। চুলার একটা সস প্যানে এক কাপ মত পানি নিতে হবে। পানি ফুটে উঠলে এর মধ্যে আগে থেকে কেটে রাখা আপেলের টুকরা গুলো দিয়ে দিতে হবে। বেশ খানিকক্ষণ সিদ্ধ করতে হবে। প্রায় পাঁচ থেকে ছয় মিনিটের মধ্যে টুকরো করা আপেল গুলো প্রায় সিদ্ধ হয়ে যাবে। এরপর একটা খুনতি দিয়ে নেড়ে নেড়ে আপেল সিধ করা পানি প্রায় শুকিয়ে ফেলতে হবে। পানি শুকিয়ে আপেল সিদ্ধ হয়ে গেলে একটা বাটিতে নামিয়ে নিতে হবে। কিছুক্ষণ সিদ্ধ আপেল গুলো ঠান্ডা হতে দিতে হবে। প্রায় দশ থেকে বিশ মিনিটের মধ্যে সিদ্ধ আপেলের টুকরো গুলো মোটামুটি ঠান্ডা হয়ে যাবে। তখন হাত দিয়ে এই আপেলের টুকরো গুলি একদম ভর্তা করে নিতে হবে।

২য় ধাপ

এই বার একটা শুকনো ফ্রাইং প্যান নিতে হবে। ফ্রাইং প্যানে কাজু বাদাম, পেস্তা বাদাম, কাঠ বাদাম আর চিনা বাদাম ভেজে নিতে হবে। এই সময়ে চুলার আঁচ একদম কম রাখতে হবে। সেই সাথে বাদাম গুলো খুনতি দিয়ে এক ভাবে নাড়া চাড়া করতে থাকতে হবে। তা না হলে বাদাম গুলো পুড়ে যেতে পারে। মোটামুটি চার থেকে পাঁচ মিনিট বাদাম গুলো ভেজে নিতে হবে। তারপর একটা প্লেটে ঢেলে নিয়ে হালকা করে ভেঙ্গে নিতে হবে। এই সময় একটা ব্যাপার খেয়াল রাখতে হবে। ভাজা বাদাম গুলো একেবারে গুড়ো গুড়ো করে ফেলবেন না। মোটামুটি আধা ভাঙ্গা করে রাখতে হবে। যাতে করে রাবড়ি খাবার সময় এগুলো গালে বাধে।

৩য় ধাপ

এই বার একটা সস প্যানে লিকুইড দুধ নিতে হবে। দুধ কিছুক্ষণ জ্বাল দিতে হবে। মোটা মুটি পাঁচ থেকে সাত মিনিট মৃদু আঁচে দুধ জ্বাল দেবার পর দুধ একটু ঘন হয়ে আসবে। তখন আগে থেকে সিদ্ধ করে রাখা আপেল দিয়ে দিতে হবে। কিছুক্ষণ জ্বাল দিতে হবে। এরপর আগে থেকে মিহি করে কুড়িয়ে রাখা নারকেল দিতে হবে। সেই সাথে ভেজে আধা ভাঙ্গা করে রাখা বাদাম গুলোও দিয়ে দিতে হবে। কিশমিশ যোগ করতে হবে। ভাল করে নেড়ে চেড়ে সব উপকরণ একসাথে মিশিয়ে নিতে হবে। এই পর্যায়ে খুব সামান্য এক চিমটি লবণ দিতে পারেন। সেই সাথে চিনিও এই সময়ে দিয়ে দিতে হবে। চিনির পরিমাণ সম্পুর্ণ আপনার ইচ্ছা। আমি এক কাপ দুধে দুই থেকে তিন চা চামচ চিনি দেই। আপনি ইচ্ছা হলে কম বেশি করে চিনি দিতে পারেন।

এই বার সব উপকরণ মৃদু আঁচে বেশ খানিকক্ষণ রান্না করতে হবে। এই সময়ে এক ভাবে খুনতি দিয়ে রাবড়ির মিশ্রণ নাড়া চাড়া করতে থাকতে হবে। তা না হলে সস প্যানের তলায় দুধের মিশ্রণ লেগে যেতে পারে। এই সময়ে ফ্লেভারের জন্য খুব সামান্য এক চিমটি মত এলাচ গুড়া যোগ করতে হবে। এলাচ গুড়া যোগ করার পরে আরো দুই থেকে তিন মিনিট নাড়া চাড়া করতে হবে। তারপর যখন দেখবেন রাবড়ি অনেক ঘন হয়ে এসেছে তখন চুলা বন্ধ করে দিতে হবে। এরপর একটা সার্ভিং ডিশে ঢেলে নিতে হবে। মোটামুটী এক থেকে দেড় ঘন্টা রুম টেম্পারেচারে রেখে দিতে হবে এই আপেলের রাবড়ি। তারপর এটি যখন রুম টেম্পারেচারে এসে যাবে তখন ফ্রিজে আবার দুই ঘন্টার জন্য রেখে দিতে হবে। রাবড়ি ফ্রিজে রাখার পর আরো কিছুটা ঘন হয়ে যাবে। এরপর ঠান্ডা ঠান্ডা পরিবেশন করতে হবে মজাদার ডেজার্ট আপেলের রাবড়ি।

 

মন্তব্যসমূহ

আমি সাদিয়া রিফাত ইসলাম। একজন মা , হোমমেকার এবং ব্লগার। ভালভাসি রান্না করতে, বই পড়তে এবং লেখালেখি করতে।

মন্তব্য করুন