রূপচর্চায় তিসির জেল !

তিসি দানা ভিটামিন এ , ভিটামিন বি ওমেগা 3 সহ নানান পুষ্টি উপাদানে ভরপুর ।তিসির জেল আপনার রূপের যত্নে রাখতে পারে গুরত্বপূর্ণ ভূমিকা। তিসি ফ্ল্যাক্সসীড নামেও পরিচিত ৷ চলুন দেখে নেই তিসির সাহায্যে আপনি কিভাবে আপনার ত্বক ও চুলের যত্ন নিতে পারবেন।

এর আগে দেখে নেওয়া যাক কিভাবে তিসির জেল বানাবেন …

তিসির জেল বানানোর পদ্ধতিঃ

তিসির জেল বানাতে এক কাপের অর্ধেক পরিমাণ তিসি দানা খুব ভালো করে ধুয়ে নিন। এবার এক কাপ পরিমাণ পরিষ্কার পানি চুলোতে ফুটতে দিন। পানি ফুটে উঠলে তিসির দানা পানিতে ছেড়ে দিন। প্রথমে আঁচ বাড়িয়ে দিন এরপর মাঝারি আঁচে জ্বাল দিন ২০ মিনিটের মতোন। পানি কমে আসবে এবং তিসি থেকে জেল বের হয়ে আসবে। মিশ্রণ ঘন হয়ে আসলে চুলো অফ করে দিন। এবার জেল ছেঁকে নিন ঠান্ডা হয়ে গেলে জেল একটি এয়ার টাইট পাত্রে নিয়ে ফ্রিজে রেখে দিন।

মনে রাখবেন,

তিসির জেল কখনোই রুম ট্যাম্পারেচারে রাখবেন না অবশ্যই ফ্রিজে সংরক্ষণ করুন। জেল এক সপ্তাহের মতো ফ্রিজে ভালো থাকবে। আর অবশ্যই জেল বানানোর সময় পরিষ্কার ছাকনি, পাত্র ব্যবহার করুন।

১ঃ ঘন কালো চুলের জন্যঃঃ

চুলের জন্য সেরা খাবার হতে পারে তিসির জেল।  তিসিতে উপস্থিত ভিটামিন ভিটামিন বি,জিংক, প্রোটিন ওমেগা 3 আপনার মলিন চুলে পুনরায় প্রাণ ফেরাতে পারে। এছাড়া ন্যাচারাল ভাবে চুল স্ট্রেট করতেও জুড়ি নেই তিসির ! সপ্তাহে অন্তত তিন দিন তিসির জেল চুলে ব্যবহার করতে পারেন। আপনার চুল এতে দ্রুত লম্বা হবে আর চুলে আসবে দিগুণ শাইন।

ব্যবহার বিধিঃ 

তিন টেবিল চামচ তিসির জেলের সাথে আধা চা চামচ আমন্ড অয়েল মিশিয়ে চুলের আগা থেকে গোড়া পর্যন্ত ম্যাসেজ করে লাগিয়ে নিন। বিশেষ করে মাথার তালুতে যেনো জেল ভালো করে লাগে তা খেয়াল রাখুন। দু তিন ঘন্টা পর রেগুলার শ্যাম্পু দিয়ে চুল ধুয়ে নিন। এক সপ্তাহ নিয়ম মেনে তিসির জেল ব্যবহার করলে চুলে দারুণ পরিবর্তন লক্ষ্য করবেন।

২ঃত্বকের যত্নেঃ

ত্বকের কালো দাগ,রোদে পোড়া দাগ, ব্রণের দাগ সহ যাবতীয় দাগ দূর করে তিসি আপনার মুখের ত্বককে করে তুলবে উজ্জ্বল ও মসৃন। এক কথায় মুখের সব সমস্যার সমাধানই আছে তিসির জেলে।

ব্যবহারবিধিঃ

তিন টেবিল চামচ তিসির জেলের সাথে একটি ভিটামিন ই ক্যাপসুল মিশিয়ে ফ্রিজে রেখে দিন। প্রতিদিন বাইরে থেকে ফিরে এই জেল হাতে নিয়ে দু থেকে তিন মিনিট ম্যাসেজ করুন। অথবা মানানসই ফেসপ্যাকের সাতে এক টেবিল চামচ জেল মিশিয়ে ব্যবহার করুন। নিয়মিত ব্যবহারে আপনার ত্বক হয়ে উঠবে ফর্সা। চাইলে এই জেল সপ্তাহে ৭ দিনই ব্যবহার করতে পারবেন।তবে প্রতিদিন ফেসপ্যাক হিসেবে ব্যবহার না করে ম্যাসেজ করলে ভালো হয়।

তিসির জেল,

  • বলিরেখা দূর করে ত্বককে টানটান করে তুলবে।
  • শুষ্ক ত্বকে ময়েশ্চারাইজ ধরে রাখবে ।
  • ব্রণের পরিমাণ অনেকটা কমাবে ।
  • মুখের লোমকূপ স্মিত করবে ।

৩ঃ নখের যত্নেঃ

নখের যত্নেও ভূমিকা রাখতে পারে তিসির জেল। যাদের নখ সহজে ভেঙে যায় অথবা লম্বা হয়না তারা ব্যবহার করতে পারেন তিসির জেল। তসির জেলের ওমেগা ৩ ও ফ্যাটি এসিড আপনার নখে পুষ্টি যোগাবে।

ব্যবহারবিধিঃ

এক চা চামচ তিসির জেলের সাথে দু থেকে তিন ফোটা ল্যাবেন্ডার এসেন্সিয়াল অয়েল মিশিয়ে নিন। এবার এই জেল নখে ম্যাসেজ করুন ৫ মিনিটের মতো। জেল নখে শুকানো পর্যন্ত অপেক্ষা করুন। এরপর হাত ভালো করে ধুয়ে নিন।

ব্যস, এই ছিলো তিসির জেলের রূপ কথন । যেকোন সুপার শপ বা পাইকারি বাজারে খুব অল্প দামে তিসি কিনতে পাবেন।আশা করি পোস্ট টা কিছুটা হলেও কাজে আসবে। ভালো থাকুন সবাই। আর নিত্যদিনের টিপস পেতে অবশ্যই চটপটের সাথেই থাকুন!

 

 

 

 

 

মন্তব্যসমূহ

বর্তমানে শিক্ষার্থী এছাড়া আর কিছু করছি না। সিলেটে থাকি। লেখালেখি আমার পুরাতন শখ। আর কখনোই এই শখ বাদ দিতে চাই না। এছাড়া বলার মতো আর কিছু আপাতত খুঁজে পাচ্ছি না।

মন্তব্য করুন