সরষে দিয়ে বেগুন ভুনা

সরষে দিয়ে বেগুন ভুনা

আমাদের দেশের সব থেকে সহজলভ্য সবজি গুলোর মধ্যে বেগুন অন্যতম। বছরের যেকোন সময়ই আপনি বাজারে যান না কেন, ঝুড়ি ভরে ভরে টাটকা তাজা বেগুন আপনার চোখে পড়বেই পড়বে। শীত, গ্রীষ্ম কিংবা বর্ষা, আর কোন সবজি পাওয়া যাক বা না যাক, বেগুন পাওয়া যাবেই যাবে। কালো বেগুন, গোল বেগুন, লম্বা বেগুন, মোটা বেগুন, কত রকম এর বেগুন যে আমাদের দেশের বাজারে পাওয়া যায় তার ইয়ত্তা নেই। তবে বেগুন রান্না করার পদ্ধতিতে কিন্তু খুব একটা রকমফের আমাদের দেশের রাধুনীদের মধ্যে দেখা যায় না। সেই ঘুরে ফিরে বেগুনের ঝাল তরকারি কিংবা বেগুন ভাজা। অথচ এই সাধারণ সবজিটাকেই একটু অন্যরকম ভাবে রাধলে এটি যে একেবারেই অসাধারণ হয়ে ওঠে তা বোধ হয় অনেকেই জানেন না। আজ আমি এরকম অসাধারণ একটা বেগুনের রেসিপি শেয়ার করব। এটি হচ্ছে সরষে দিয়ে বেগুন ভুনা।

বেগুন আমরা অনেক ভাবেই সাধারণত ঝোল করে থাকি। যেমন ইলিশ মাছ দিয়ে ঝোল, বড়ি দিয়ে বেগুনের ঝোল ইত্যাদি। অনেকে আবার ডিম দিয়েও বেগুনের তরকারি রেধে থাকেন। কিন্তু বেগুন ভুয়া কিন্তু খুব একটা করা হয়ে ওঠে না। আমরা বাঙ্গালিরা সাধারণত সবজি ভুনা করে খেতে অভ্যস্ত না। তাও আবার সরষে দিয়ে ভুনা। তবে সব সময় হালকা পাতলা ঝোল তরকারি খেয়ে খেয়ে বোর না হয়ে মাঝে মাঝে এরকম করে সরষে দিয়ে ভুনা করে খেয়ে দেখতে পারেন। সত্য করে বলছি খেতে কিন্তু মন্দ লাগবে না। আসুন দেরি না করে কি কি উপকরণ ব্যবহার করে সরষে দিয়ে বেগুন ভুনা বানাবেন তা দেখে নেই। সেই সাথে এই রান্না করার পুরো প্রসেসটাও জেনে নেই চলুন।

সরষে দিয়ে বেগুন ভুনা বানাতে যা যা লাগবে

  • বেগুন ২টি
  • হলুদ গুড়া পরিমাণ মত
  • লবণ পরিমাণ মত
  • লাল মরিচ গুড়া ১ চা চামচ
  • সরষের তেল পরিমাণ মত
  • মিহি করে কুচি করে রাখা পেঁয়াজ ২ টেবিল চামচ
  • মিহি করে কুচি করে রাখা রসুন ২ চা চামচ
  • মিহি করে কুচি করে রাখা টমেটো ২ টেবিল চামচ
  • মিহি করে কুচি করে রাখা কাঁচা মরিচ ১ চা চামচ
  • ভাজা জিরা গুড়া ১/২ চা চামচ
  • ভাজা ধনে গুড়া ১/৪ চা চামচ
  • কালো গোল মরিচ গুড়া ১/২ চা চামচ
  • চিনি অল্প পরিমাণে
  • সরষে বাটা ২ চা চামচ
  • পানি অল্প পরিমাণ
  • আস্ত কাঁচা মরিচ ৩টি থেকে ৪টি

সরষে দিয়ে বেগুন ভুনা যে পদ্ধতিতে বানাতে হবে

১ম ধাপ

প্রথমেই বেগুন ভেজে নিতে হবে। এজন্য বেগুন লম্বা লম্বা টুকরো করে কেটে নিতে হবে। অবশ্য আপনি চাইলে গোল গোল করেও কেটে নিতে পারেন। এরপর বেগুনের টুকরা গুলো ভাল করে ধুয়ে সাফ করে নিতে হবে। বেগুনের টুকরা গুলোকে লবণ, হলুদ গুড়া ও লাল মরিচ এর গুড়া দিয়ে মেখে নিতে হবে। একতা ফ্রাইং প্যানে পরিমাণ মত সরষের তেল গরম করতে দিতে হবে। সরষের তেল গরম হয়ে গেলে এতে বেগুনের টুকরা গুলো সুন্দর করে ভেজে নিতে হবে। বেগুন ভাজা হয়ে গেলে সরষের তেল থেকে উঠিয়ে একটা প্লেটে রাখতে হবে।

প্লেটের উপর একটি কিংবা দুটি টিস্যু পেপার বিছিয়ে তার উপর বেগুন গুলো তুলে রাখলে খুব ভাল হয়। কারণ বেগুন এমনিতেই ভাজার সময় প্রচুর তেল টেনে নেয়। বেগুন গুলো ভেজে যদি একটা টিস্যু পেপার এর উপর রাখা হয় তবে টিস্যু পেপার এই বাড়তি তেলটা শুষে নিতে পারে। এতে করে খাবারট একটু কম অস্বাস্থ্যকর হবে। আর বেগুনে অতিরিক্ত তেল না থাকার কারণে সরষে দিয়ে বেগুন ভুনার কালার ও টেস্ট দুটোই ভাল হবে।

২য় ধাপ

এই বার বেগুন ভেজে তুলে নেয়া সরষের তেল এর মধ্যেই বাকি রান্নাটা শেষ করতে হবে। প্রথমে সরষের তেলে মিহি করে কুচি করে রাখা পেঁয়াজ, রসুন ও কাঁচা মরিচ দিতে হবে। এই তিনটি মশলাই খুব ভাল করে লাল লাল করে ভেজে নিতে হবে। মশলা বেশ সুন্দর করে ভাজা ভাজা হয়ে গেলে মিহি করে কুচি করে রাখা টমেটো যোগ করতে হবে। টমেটো গলে যাওয়ার আগ পর্যন্ত নেরে চেড়ে ভাল করে ভাজা ভাজা করে নিতে হবে।

টমেটো যখন গলে যাবে এবং অন্যান্য মশলা গুলোওকষে তেল উপরে উঠে আসবে তখন একে একে গুড়া মশলা গুলো যোগ করতে হবে। ভাজা জিরা গুড়া, ভাজা ধনে গূড়া ও কালো গোল মরিচ গুরা এই সময়ে যোগ করে দিতে হবে। ভাল করে বাকি মশলার সাথে এগুলো কষিয়ে নিতে হবে। দরকার হলে এর সাথে অল্প পানি যোগ করা যেতে পারে। যদি মনে হয় দরকার আছে তাহলে এই সময়ে অল্প লবণ যোগ করা যেতে পারে।

৩য় ধাপ

সব রকম মশলা কষানো হয়ে গেলে আগে থেকে ভেজে তুলে রাখা বেগুন গুলো এর মধ্যে দিয়ে দিতে হবে। বেগুন দেবার পর খুব জোরে নাড়া চাড়া করা যাবে না। যেহেতু ভেজে রাখা বেগুন অনেক নরম হয় তাই বেগুন দেবার পর বেশি নাড়া চাড়া করলে ভেঙ্গে যাবে। খুব সাবধানে হালকা হাতে খুনতি দিয়ে নেড়ে মশলা গুলোর সাথে বেগুন মিশিয়ে দিতে হবে। উপর থেকে সরষে বাটা ছড়িয়ে দিতে হবে। সেই সাথে অল্প একটু পানি দিতে হবে। মনে রাখবে এটা ঝোল ঝোল তরকারি না। শুধু মাত্র মাখা মাখা ভুনা হবে এমন পরিমাণে অল্প একটু পানি উপর থেকে ছড়িয়ে দিতে হবে। সাবধানে নেড়ে মিশিয়ে ঢাকনা দিয়ে ঢেকে দিতে হবে। চুলার জ্বাল একদম কমিয়ে দুই মিনিট থেকে তিন মিনিট রান্না করতে হবে। এরপর একটা সার্ভিং ডিশে ঢেলে গরম গরম ঝরঝরে সাদা ভাত এর সাথে পরিবেশন করতে হবে মজাদার সরষে দিয়ে বেগুন ভুনা।

 

মন্তব্যসমূহ

আমি সাদিয়া রিফাত ইসলাম। একজন মা , হোমমেকার এবং ব্লগার। ভালভাসি রান্না করতে, বই পড়তে এবং লেখালেখি করতে।

মন্তব্য করুন