রুই মাছের বাদামি কোরমা

রুই মাছের বাদামি কোরমা

আমাদের দেশে খুব প্রচলিত একটি প্রবাদ আছে মাছ নিয়ে। সেটা হচ্ছে মাছে ভাতে বাঙ্গালী। এর কারণও আছে। আমাদের দেশে এমন একটা বাড়িও হয়ত খুজে পাওয়া যাবে না যেখানে প্রতি দিন কোন না কোন ভাবে মাছ রান্না করা হয় না। আমিও এর ব্যতিক্রম নই। রোজকার খাবার টেবিলে আমি সব সময় এক কিংবা একাধিক মাছের আইটেম অবশ্যই রাখি। তবে রোজ রোজ যখন একই খাবার খাওয়া হয় তখন ঐ খাবারটির প্রতি আস্তে আস্তে কিন্তু অনীহা আসা শুরু হয়ে যায়। এজন্য রাধুনী হিসেবে আমাদের দায়িত্ব হচ্ছে একই খাবার মাঝে মাঝে একটু ভিন্ন ভাবে উপস্থাপন করা। এতে করে খাবারের প্রতি অনীহা আসার কোন সুযোগই তৈরী হয় না। এই যেমন আজকের রেসিপি। ঝাল ঝাল রুই মাছের ভুনা কিংবা দোপেঁয়াজা তো আমরা সবাই খেয়ে থাকি। কিন্তু রুই মাছের কোরমা কিন্তু খুব একটা খাওয়া হয়ে ওঠে না। তাও আবার রুই মাছের বাদামি কোরমা।আসুন আজ এই রুই মাছের বাদামি কোরমা রেসিপিটাই জেনে নেই।

আমি জানি রুই মাছের বাদামি কোরমা নামটা একটূ হাস্যকর শোনাচ্ছে। মাছের ক্ষেত্রে আমরা সাধারণত কোরমা করি না। তার ওপর আবার বাদামি কোরমা শুনতে অদ্ভুত লাগারই কথা। কিন্তু এই খাবারটা কিন্তু মোটেই অদ্ভুত না। বরং খবই সুস্বাদু একটা খাবার এর নাম হচ্ছে এই রুই মাছের বাদামি কোরমা। আসলে এই রেসিপিটাতে প্রায় চার থেকে আঁচ রকম এর বাদাম আর কিশমিশ ব্যবহার করা হয়েছে। সেই সাথে ই কোরমাটা বানানোর সময় কোন রকম পানি ব্যবহার করা হয়নি। বরং সম্পূর্ণ রান্নাটা দুধ দিয়ে করা হয়ে থাকে। এজন্য এই খাবারটা এরকম নামকরণ।

রুই মাছের বাদামি কোরমা আপনি অনেক ভাবেই খেতে পারেন। এটি গরম গর ঝঝরে সাদা ভাতের সাথেও অনেক ভাল লাগে খেতে। তবে এর থেকেও বেশি ভাল লাগে পোলাও কিংবা বিরিয়ানির সাথে। আসলে পুরো রেসিপিটা মোগলাই স্টাইলে করা হয়ে থাকে। এজন্য পোলাও কিংবা বিরিয়ানির সাথে এটা অত্যন্ত ভাল যায়। রুই মাছের বাদামি কোরমা বানাবার জয় বেশ কয়েকটি স্পেশাল উপকরণ দরকার হয়। তবে এই উপকরণ গুলো যদি আপনি গুছিয়ে নিয়ে রান্নাটা শুরু করেন তবে রান্নাটা শেষ করতে খুব বেশি বেগ পেতে হয় না। আসুন রুই মাছের বাদামি কোরমার উপকরণ ও প্রস্তুত প্রণালী জেনে নেই।

রুই মাছের বাদামি কোরমা বানাতে যা যা লাগবে

স্পেশাল বাদাম পেস্ট বানাতে যা যা লাগবে

  • কাজু বাদাম ২ থেকে ৪টি
  • পেস্তা বাদাম ২ থেকে ৪টি
  • চিনা বাদাম ২ থেকে ৪টি
  • কাঠ বাদাম ২ থেকে ৪টি
  • কিশমিশ ২ থেকে ৪টি

কোরমা বানাতে যা যা লাগবে

  • রুই মাছের পিস ৬ থেকে ৭টি
  • সয়াবিন তেল ৩ টেবিল চামচ
  • ঘি ১ চা চামচ
  • মিহি করে কুচি করে রাখা পেঁয়াজ ৩ টেবিল চামচ
  • মিহি করে কুচি করে রাখা টমেটো ৩ টেবিল চামচ
  • পেঁয়াজ বাটা ২ চা চামচ
  • আদা বাটা ১ চা চামচ
  • রসুন বাটা ১ চা চামচ
  • হলুদ গুড়া ১/২ চা চামচ
  • লাল মরিচ গুড়া ১ চা চামচ
  • ভাজা জিরা গুড়া ১ চা চামচ
  • ভাজা ধনে গুড়া ১ চা চামচ
  • আস্ত চেরা কাঁচা মরিচ ৩ থেকে ৪টি
  • পেঁয়াজ বেরেস্তা ২ চা চামচ
  • লবণ পরিমাণ মত
  • দুধ ১ কাপ

রুই মাছের বাদামি কোরমা যে পদ্ধতিতে বানাতে হবে

স্পেশাল বাদাম পেস্ট যে পদ্ধতিতে বানাতে হবে

প্রথমে কিশমিশ গুলো একটা পাত্রে পানি দিয়ে ভিজিয়ে দিতে হবে। অন্তত দশ মিনিট থেকে পনেরো মিনিট পর্যন্ত এই কিশমিশ গুলো পানিতে ভিজিয়ে রাখতে হবে। এরপর একটা শুকনা ফ্রাইং প্যান নিতে হবে। এর মধ্যে কাজু বাদাম, কাঠ বাদাম, চিনা বাদাম ও কাঠ বাদাম নিতে হবে। বাদাম গুলো সব সুন্দর করে ভেজে নিতে হবে। এই সময় চুলার আঁচ খুব বেশি বাড়ানো যাবে না। অল্প আঁচে তিন মিনিট থেকে চার মিনিট বাদাম গুলো ভেজে নিতে হবে। বাদাম গুলো ভাজা হয়ে গেলে একটা পাত্রে রেখে দিতে হবে ঠান্ডা হবার জন্য। কিছুক্ষণ পর ভেজে নেয়া বাদাম গুলো একটু ঠান্ডা হয়ে গেলে একটা ব্লেন্ডারে এই ভাজা বাদাম গুলো নিয়ে নিতে হবে। সেই সাথে ভিজিয়ে রাখা কিশমিশ যোগ করতে হবে। এরপর ভাল করে ব্লেন্ড করে নিলে রেডি স্পেশাল বাদাম পেস্ট। যদি দরকার হয় তবে ব্লেন্ড করার সময় সামান্য একটূ দুধ যোগ করা যেতে পারে। এতে করে বাদাম পেস্টটা একদম স্মুথ হবে।

কোরমা যেভাবে বানাতে হবে

১ম ধাপ

প্রথমেই মাছ ভেজে নিতে হবে। এর জন্য প্রথমে রুই মাছের পিস গুলোর গায়ে পরিমাণ মত লবণ ও হলুদ গুড়া মেখে নিতে হবে। এরপর একটা ফ্রাইং প্যানে সাদা তেল গরম করে এই মাছের পিস গুলো ভেজে নিতে হবে। খুব কড়া ভাবে রুই মাছের পিস গুলো ভাজা যাবে না। হালকা করে ভেজে নিতে হবে যাতে করে শুধু মাছটা নরম হয়ে সিদ্ধ হয়ে যায়। মাছের কোরমার মাছের পিস গুলো যদি শুরুতেই কড়া ভাবে ভাজা হয় তাহলে পরবর্তিতে কোরমার মশলা মাছের মধ্যে ভাল ভাবে ঢুকতে পারে না। ফলে কোরমার ঝোল অনেক টেস্টি হলেও মাছের পিস গুলো কিন্তু অতটা টেস্টি হয় না। এজন্য নুন ও হলুদ মাখানো রুই মাছের পিস গুলো দুই পাশে দুই মিনিট থেকে তিন মিনিট করে ভেজে নিলেই হবে। এরপর চুলা বন্ধ করে মাছ গুলো একটা প্লেটে তুলে রাখতে হবে।

২য় ধাপ

এরপর একটা পাত্রে সয়াবিন তেল ও ঘি নিয়ে চুলায় গরম করতে দিতে হবে। সাদা তেল ও ঘি গরম হয়ে গেলে এর মধ্যে মিহি করে কুচি করে রাখা পেঁয়াজ যোগ করতে হবে। পেঁয়াজ কুচি হুব ভাল ভাবে লাল লাল করে ভেজে নিতে হবে। পেঁয়াজ কুচি যখন ভাজা হয়ে গোল্ডেন ব্রাউন কালার হয়ে যাবে তখন এর মধ্যে পেঁয়াজ বাটা যোগ করে দিতে হবে। সেই সাথে আদা বাটা ও রসুন বাটাও যোগ করে দিতে হবে। খুব ভাল মত এই মশলা গুলো কষাতে হবে।

বাটা মশলা গুলো যখন কষে গিয়ে তেল উপরে ভেসে উঠবে তখন এর মধ্যে মিহি করে কুচি করা টমেটো দিয়ে দিতে হবে। টমেটো গলে যাওয়া পর্যন্ত ভাজতে হবে। এরপর এর মধ্যে হলুদ গুড়া ও লাল মরিচ গুড়া যোগ করতে হবে। একই সঙ্গে ভাজা জিরা গুড়া ও ভাজা ধনে গুড়াও যোগ করে দিতে হবে। বেশ ভাল মত সব মশলা কষিয়ে নিতে হবে। যদি দরকার হয় তবে মশলা কষানোর জন্য সামান্য একটু পানি যোগ কড়া যেতে পারে। তবে খুব বেশি পানি যোগ করা যাবে না। তাহলে রুই মাছের বাদামি কোরমার স্বাদ একটু পানসে হয়ে যেতে পারে।

মশলা গুলো কষে যখন এর মধ্যেকার কাঁচা কাঁচা ভাব একদম চলে যাবে তখন এর মধ্যে বাদাম বাটা যোগ করে দিতে হবে। সেই সাথে দুধও যোগ করে দিতে হবে। দুধ ফুটে উঠলে পরিমাণ মত লবণ, চিনি যোগ করে দিতে হবে। ভাল মত মিশিয়ে নিতে হবে। এরপর এই দুধের মধ্যে আগে থেকে ভেজে রাখা রুই মাছের পিস গুলো সুন্দর করে বসিয়ে দিতে হবে। বেশি নাড়া চাড়া করা যাবে না। তাহলে মাছ ভেঙ্গে যেতে পারে। এরপর চুলার আঁচ একদম কমিয়ে দিতে হবে। উপর থেকে বেরেস্তা করে রাখা পেঁয়াজ ও আস্ত কাঁচা মরিচ ছড়িয়ে দিতে হবে। ঢাকনা দিয়ে ঢেকে দিতে হবে। এই ভাবে দশ মিনিট থেকে বারো মিনিট রান্না করতে হবে। এরপর চুলা বন্ধ করে পছন্দ মত একটা সার্ভিং বোলে ঢেলে গরম গরম সার্ভ করতে হবে মজাদার রুই মাছের বাদামি কোরমা।

 

মন্তব্যসমূহ

আমি সাদিয়া রিফাত ইসলাম। একজন মা , হোমমেকার এবং ব্লগার। ভালভাসি রান্না করতে, বই পড়তে এবং লেখালেখি করতে।

মন্তব্য করুন