সুস্বাদু কলার থোড়

কলার থোড় আমাদের সকলের পছন্দের একটি খাবার। কলার থোড় মানে কলার ফুল কে তো আমরা সবাই চিনি। গাছে কলা বড় হতে শুরু করলে কলার থোড় টি কেটে ফেলা হয়। গ্রাম বাংলার যত বাঙালী রান্না রয়েছে তার মধ্যে কলার থোড়ের রান্না টি খুব জনপ্রিয়। যারা এটি খেয়েছেন তারা জানেন এটি কতটা সুস্বাদু। এছাড়া ও কলার থোড়ে রয়েছে প্রচুর পরিমানে ভিটামিন এবং প্রোটিন যা আমাদের শরীরের জন্য খুবই উপকারী।  যাই হোক, আজ আপনাদের জন্য নিয়ে এলাম কলার থোড়ের মজার একটি রেসিপি – সুস্বাদু কলার থোড়। এই রান্না টি করা খুবই সহজ এবং এটি খেতেও খুবই মজাদার। তাহলে চলুন আর অযথা দেড়ি না করে মজাদার এই রেসিপি টি রান্না করতে কি কি লাগবে এবং এটি কিভাবে রান্না করতে হবে একে একে দেখে নেয়া যাক।

প্রয়োজনীয় উপকরণ :

  • কচি থোড় – ১ টি
  • গোবিন্দভোগ চাল ( পানিতে ভিজিয়ে রাখা) – ২৫০ গ্রাম
  • কাজু বাদাম বাটা – ১ চা চামচ
  • কিশমিশ – ১ চা চামচ
  • আদা বাটা – ১ চা চামচ
  • কাঁচা মরিচ চেরা – ৬-৭ টি
  • নারকেল কোরানো – হাফ কাপ
  • হলুদ গুড়ো  – হাফ চা চামচ
  • জিরা গুঁড়ো – হাফ চা চামচ
  • সাদা জিরা – হাফ চা চামচ
  • ধনিয়া গুঁড়ো – হাফ চা চামচ
  • জায়ফল ও জয়িত্রি গুঁড়ো – হাফ চা চামচ
  • কাশ্মীরি লাল মরিচ গুঁড়ো – হাফ চা চামচ
  • আস্ত গরম মশলা ও গুঁড়ো – হাফ চা চামচ করে
  • ঘি – ১ টেবিল চামচ
  • সয়াবিন তেল – পরিমান মত
  • লবন – স্বাদ মত

 

রন্ধন প্রণালী :

  • থোড় ছিলে ও পরিষ্কার করে নিয়ে চিকন চিকন  করে কেটে নিতে হবে। তারপর  লবন ও হলুদ মিশিয়ে এর পানিতে ভিজিয়ে রাখতে হবে প্রায় ৩০ থেকে ৪০ মিনিট এর মত।
  • আধা ঘন্টা পরে থোড় টা ওই পানিতেই ভালো ভাবে সেদ্ধ করে নিতে হবে। এবারে একটি কড়াইতে সমান পরিমাণ তেল এবং  ঘি গরম করে নিয়ে তাতে আস্ত গরম মশলা ও সাদা জিরা দিয়ে ফোড়ন দিতে হবে।
  • একটু পরে ফোড়ন থেকে  ঘ্রাণ বের হতে  শুরু করলে তখন কাজু বাদাম বাটা ও কিশমিশ দিয়ে দিন।
  • তারপর ওই মিশ্রনে এক এক করে আদা বাটা, কাঁচামরিচের ফালি, জিরার গুঁড়ো, ধনিয়ার গুঁড়ো, হলুদ গুড়ো এবং লবণ  দিয়ে ভাল ভাবে কষাতে হবে।
  • তারপর এতে দিয়ে দিন কুরিয়ে রাখা নারকেল ।  ঠিক এই সময়  আগে থেকে ভিজিয়ে রাখা  চাল টাও দিয়ে দিন। তারপর এতে  থোড় সিদ্ধ দিয়ে ভালো করে মিশিয়ে নিয়ে  খুব ভাল মতো  কষাতে হবে ।
  • কষানো হয়ে গেলে এর উপরে অল্প অল্প  পানির ছিটে দিন এবং চুলার আঁচ কমিয়ে দিয়ে কিছুক্ষণ রান্না করুন।
  • যতক্ষণ চাল টা সিদ্ধ না হয়ে যায় ততক্ষণ রান্না করতে হবে। চাল টা ভালো ভাবে সেদ্ধ হয়ে গেলেই মজাদার থোড়ের রান্নাটা রেডি হয়ে যাবে।
  • সব শেষে আঁচ থেকে নামিয়ে নিয়ে  সামান্য পরিমানে কুড়ানো নারকেল উপরে ছড়িয়ে দিয়ে গরম গরম ভাতের সাথে পরিবেশন করুন সুস্বাদু কলার  থোড়।

কলার থোড় তো আমরা অনেকেই খেয়েছি। কিন্তু এভাবে রান্না করে খেয়েছেন কি? যদি না খেয়ে থাকেন তবে আজই বানিয়ে ফেলুন সুস্বাদু কলার থোড়ের এই মজাদার রান্নাটি আর এটি অবশ্যই গরম ভাতের সাথে পরিবেশন করবেন, তবেই এর আসল টেস্ট টা বুঝতে পারবেন।http://কলার থোড়ের মজার একটি রেসিপি – সুস্বাদু কলার থোড়।

মন্তব্যসমূহ

আমি একজন শিক্ষার্থী। নতুন কিছু সম্পর্কে জানতে ও শিখতে ভালোবাসি এবং অন্যদের সাথে সেটা শেয়ার করতে ভালো লাগে।

মন্তব্য করুন