আলুর দোপেয়াজা

সুস্বাদু ও ভিন্নধর্মী রেসিপি – আলুর দোপেয়াজা

এই পৃথিবীর সব  মানুষের মূল খাদ্য হিসেবে চাল, ভুট্টা আর গমের পর পরই আলুর অবস্থান। পৃথিবীর অনেক দেশেই প্রধান খাদ্য হিসেবে রুটি বা ভাতের পরিবর্তে আলু খাওয়ার প্রচলন আছে। তবে আমাদের দেশে দেখা যায় আলু এখন পর্যন্ত  পরিপূরক বা সহায়ক খাবার হিসেবেই খাওয়া হয়। ভাতের সঙ্গে আলুর ভর্তা অথবা যে কোন ধরনের  তরকারি রান্না করতে গেলে আলু না হলে যেন চলেই না। এটি সারা বছরই বাজারে পাওয়া যায় এবং দামেও খুবই সস্তা যে কোন সব্জির চাইতে।  আলু দেহের জন্য খুবই পুষ্টিকর। আলু দেহে  শর্করার জোগান দেওয়ার পাশাপাশি এটি  বিভিন্ন ধরনের ভিটামিন এবং বিভিন্ন খনিজ লবণের চাহিদা মেটায় সব সময়। এগুলো ছাড়াও, আলুতে প্রচুর পরিমানে  খাদ্য আঁশ থাকায় আলু খাবার হজম করতে খুব সহায়ক এবং এটি আমাদের  রক্তে শর্করার হার ঠিক রাখে। আসলে আলু এমন একটি সবজি যা যে কোন সবজি, মাছ বা মাংস, চপ, বড়া, পুরি ইত্যাদি যে কোন রেসিপি অনায়াসে রান্না করে খাওয়া যায়। আলুর দোপেয়াজা ও খুব সুস্বাদু  এবং একটি ভিন্নধর্মী রেসিপি

যাই হোক, আলুর গুণগান তো অনেক হোলো, এবার চলুন রেসিপি তে যাওয়া যাক, আজ আমি আপনাদের জন্য নিয়ে এলাম আলু দিয়ে তৈরি মজাদার একটি ভিন্নধর্মী রেসিপি – আলুর দোপেয়াজা ।  এই রেসিপি টি তৈরি করতে এতই সহজ যে আপনি যে কোন সময় এটি তৈরি করে খেতে পারবেন। আর আলুর দোপেয়াজা  তৈরি করতে খুবই অল্প কিছু উপকরণ এর দরকার হয় যা কিনা সব সময় বাসা তেই থাকে। তাই যে কোন সময় আপনি এটা বানিয়ে নিতে পারেন খুব সহজেই। তাহলে চলুন দেখে নেয়া যাক আলুর দোপেয়াজা  তৈরি করতে কি কি প্রয়োজনীয় উপকরণ গুলো লাগবে এবং কি কি পদ্ধতি অনুসরণ করে খুব কম সময়ে আপনারা মজাদার আলুর দোপেয়াজা  রান্না করতে পারবেন।

আলুর দোপেয়াজা তৈরি করতে যা যা প্রয়োজনীয় উপকরণ লাগবে :

  • পেঁয়াজ  – পৌনে এক কেজি
  • আলু – হাফ কেজি
  • সয়াবিন তেল – ৩ টেবিল-চামচ,
  • হলুদের গুঁড়া – হাফ চা-চামচ
  • মরিচ গুঁড়া – হাফ চা-চামচ,
  • গরম মসলার গুঁড়া – হাফ চা-চামচ,
  • হিং – খুব সামান্য বা এক চিমটি
  • আদা বাটা অথবা আদা  কুচি – হাফ চা-চামচ,
  • রসুন বাটা বা রসুন কুচি – হাফ চা চামচ
  • ধনিয়া গুঁড়া – হাফ চা-চামচ,
  • লবণ – স্বাদ অনুযায়ী
  • কমলার রস অথবা লেবুর রস –  হাফ চা-চামচ,
  • পাকা টমেটো – মাঝারি সাইজের ২ টি,
  • পেঁয়াজ পাতা কুচি  – হাফ কাপ অথবা নিজের পছন্দ অনুযায়ী
  • চিনি – সামান্য একটু বা এক চা চামচের চার ভাগের ১ ভাগ।

 

মজাদার আলুর দোপেয়াজা রান্না করতে হলে যে পদ্ধতি গুলো অনুসরণ করতে হবে :

১ম ধাপ :

সবার প্রথমে আলু গুলো ভালো ভাবে ছিলে নিয়ে  কিউব সাইজ করে টুকরো করে কেটে ধুয়ে, পানি ঝরিয়ে নিন।তারপর পেঁয়াজ গুলো ও কিউব সাইজ করে কেটে নিয়ে একটা ফ্রাইং  প্যানে সয়াবিন  তেল দিয়ে হালকা বাদামি করে ভেজে নিয়ে আগে থেকে কেটে, ধুয়ে পানি ঝরিয়ে রাখা আলু গুলো দিয়ে দিন।

২য় ধাপ :

এবারে টমেটো গুলো কিউব করে নিয়ে এর সাথে  পেঁয়াজপাতা কুচি  কমলা  অথবা লেবুর রস এবং চিনি ছাড়া অন্য  সব মসলা গুলো দিয়ে দিন   আর এতে অল্প একটু পানি দিয়ে একটা ঢাকনা দিয়ে ভালো ভাবে  ঢেকে দিন। চুলায় কম আঁচ দিয়ে প্রায় ৮ থেকে ১০ মিনিট এর মত  রান্না করুন।

৩য় ধাপ :

৮ বা ১০ মিনিট পর ঢাকনা উঠিয়ে দেখুন আলু সিদ্ধ হয়েছে কি না। আলু গুলো সিদ্ধ হয়ে আসলে এবার এতে দিয়ে দিন টমেটো কিউব , পেঁয়াজ পাতা কুচি, কমলার রস বা লেবুর রস এবং অল্প একটু চিনি দিয়ে  ২ থেকে ৩ মিনিট এর মত রান্না করে চুলা থেকে নামিয়ে নিন। তারপর মজাদার আলুর দোপেয়াজা গরম গরম পরিবেশন করুন।

 

দেখলেন তো, কত সহজেই এবং কত সাধারণ ও অল্প কিছু উপকরণ দিয়ে তৈরি করা যায় এই মজাদার আলুর দোপেয়াজা। ডিম, মাছ বা মুরগির দোপেয়াজা তো অনেক খাওয়া হয় কিন্তু অনেক সময় দেখা যায় বাসায় হুট করে মেহমান চলে আসলে বা কিছু না থাকলে এই সাধারণ সবজি আলু দিয়েই অসাধারণ এই আলুর দোপেয়াজা রান্না  টি মুহুর্তেই করে ফেলা যায় এবং এই রেসিপি টি দিয়ে মেহমান আপ্যায়ন তো হবেই এর সাথে সকালের নাস্তা, দুপুরের লাঞ্চ এমনকি রাতের ডিনারেও খেতে পারবেন।  আর আলুর দোপেয়াজা রুটি, ভাত বা পোলাও সব কিছুর সাথেই খুব সুস্বাদু খেতে লাগে। তাই আর দেড়ি না করে আজই বানিয়ে ফেলুন মজাদার আলুর দোপেয়াজা।http://মজাদার একটি ভিন্নধর্মী রেসিপি – আলুর দোপেয়াজা ।

মন্তব্যসমূহ

আমি একজন শিক্ষার্থী। নতুন কিছু সম্পর্কে জানতে ও শিখতে ভালোবাসি এবং অন্যদের সাথে সেটা শেয়ার করতে ভালো লাগে।

মন্তব্য করুন