মজাদার গরুর মাংসের টিকিয়া রেসিপি

মজাদার গরুর মাংসের টিকিয়া রেসিপি

কুরবানির ঈদ মানেই গরুর মাংস দিয়ে বানানো নানা রকম পদে টেবিল ভরে থাকবে। এই সময়ে অন্যান্য আইটেম এর সাথে যদি খাবার টেবিলে টিকিয়া না থাকে, তাহলে কিন্তু অনেকেরই মনটা খারাপ হয়ে যায়। আসলে ছোট বড় সকলেরই প্রিয় একটা খাবার এই গরুর মাংসের টিকিয়া। বাংলাদেশের সব পরিবারেই টিকিয়া বানানো হয়ে থাকে। তবে রাধুনী ভেদে টিকিয়ার রেসিপিতে কিন্তু কম বেশি ভিন্নতা থেকেই যায়। আজ আমি একদম ট্রাডিশনাল গরুর মাংসের টিকিয়া বানাবার পদ্ধতি আপনাদের সাথে শেয়ার করতে চলেছি।

গরুর মাংসের টিকিয়া বানানো কিন্তু অত বেশি সহজ নয়। এটি বেশ সময় সাপেক্ষ একটি রেসিপি। সেই সাথে শ্রম সাপেক্ষও বটে। বেশ কয়েকটি ধাপে ধাপে এই গরুর মাংসের টিকিয়া বানানো হয়ে থাকে। তবে এই গরুর মাংসের টিকিয়া বানাবার একটা বেশ বড় সুবিধাও আছে। সেই সুবিধাটা হল গরুর মাংসের টিকিয়া বানাবার পুরো প্রসেসটা আগে থেকে রেডি করে রাখা যায়। এবং সেটি ডিপ ফ্রিজে এক মাস থেকে দুই মাস যাবত সংরক্ষণ করেও রেখে দেয়া যায়। এরপর যখন প্রয়োজন হবে তখন ঝটপট এই টিকিয়ার রেডি করা মাংস বের করে টিকিয়ার শেপে গড়ে ভেজে নেয়া যায়। এজন্য বাসায় হটাত মেহমান এলে কিংবা হটাত কখনো কাবাব খেতে ইচ্ছা হলে এই গরুর মাংসের টিকিয়ার মত ভাল খাবার আর কিই বা হতে পারে বলুন।

গরুর মাংসের টিকিয়া বানাবার জন্য বেশ কিছু উপকরণের দরকার হয়। আসুন কি কি উপকরণ কি কি পরিমাণে ব্যবহার করে এই গরুর মাংসের টিকিয়া বানানো যায় তা জেনে নেই। সেই সাথে মজাদার গরুর মাংসের টিকিয়া আসলে কিভাবে, কোন কোন ধাপে এবং কি পদ্ধতিতে বানাতে হবে তাও জেনে নেই।

গরুর মাংসের টিকিয়া বানাবার জন্য যা যা লাগবে

  • গরুর মাংস ১/২ কেজি
  • ছোলার ডাল ১ কাপ
  • মিহি করে কুচি করে রাখা পেঁয়াজ ১/২ কাপ
  • পেঁয়াজ বাটা ৪ টেবিল চামচ
  • রসুন বাটা ৩ টেবিল চামচ
  • আদা বাটা ৩ টেবিল চামচ
  • কাঁচা মরিচ বাটা ১ চা চামচ
  • হলুদ গুড়া ১ চা চামচ
  • লাল মরিচ গুড়া ১ চা চামচ
  • ভাজা জিরা গুড়া ১ চা চামচ
  • ভাজা ধনে গুড়া ১ চা চামচ
  • লবণ পরিমাণ মত
  • চিনি ১/২ চা চামচ
  • গরম মশলা বাটা ১ চা চামচ
  • পানি পরিমাণ মত

পুর এর জন্য যা যা লাগবে

  • মিহি করে কুচি করে রাখা পেঁয়াজ ৪ টেবিল চামচ
  • মিহি করে কুচি করে রাখা আদা ১ টেবিল চামচ
  • মিহি করে কুচি করে রাখা কাঁচা মরিচ ১ চা চামচ
  • লবণ খুব সামান্য
  • লেবুর রস ১/২ চা চামচ
  • ভাজা জিরা গুড়া ১/৪ চা চামচ
  • কালো গোল মরিচ গুড়া ১/৪ চা চামচ

টিকিয়া বানাতে আর যা যা লাগবে

  • ডিমের সাদা অংশ ২টি
  • সয়াবিন তেল ডুবো তেলে ভাজার জন্য

গরুর মাংসের টিকিয়া যে পদ্ধতিতে বানাতে হবে

১ম ধাপ

প্রথমেই ছোলার ডাল রেডি করে নিতে হবে। এর জন্য ছোলার ডাল প্রথমেই ভাল করে ধুয়ে পরিস্কার করে নিতে হবে। এরপর এটি সারা রাত ভিজিয়ে রাখতে হবে। একটা জিনিস অবশ্যই মনে রাখতে হবে। সিদ্ধ করার পূর্বে ছোলার ডাল যেন অবশ্যই কমপক্ষে আট থেকে দশ ঘন্টা ভেজানো থাকে। ডাল আট থেকে দশ ঘন্টা ভেজানো থাকার পর এর থেকে পানি ঝরিয়ে নিতে হবে।

২য় ধাপ

গরুর মাংস ভাল ভাবে ধুয়ে সাফ করে নিতে হবে। এরপর এই মাংস গুলো ছোট ছোট টুকরা করে কেটে নিতে হবে। গরুর মাংস গুলো চেষ্টা করবেন বেশ ছোট ছোট করে পিস করে নিতে। এতে করে পরবর্তি সময়ে মাংস ও ডাল এর মিশ্রণ বেটে নিতে সুবিধা হবে। নতুবা মাংসের পিস যদি বড় বড় থাকে তাহলে তা বাটতে খুব অসুবিধা হয়। এবং পুরোপুরি মিহি করে বাটাও সম্ভব হয়ে ওঠে না। আর অবশ্যই সম্পূর্ণ সলিড গরুর মাংসের পিস নিতে হবে গরুর মাংসের টিকিয়া বানাবার জন্য। মাংসের মধ্যে যেন চর্বি কিংবা হাড় না থাকে। তাহলে টিকিয়া ভাল হবে না।

৩য় ধাপ

এই বার একটা প্রেশার কুকারে অল্প সয়াবিন তেল, ভিজিয়ে রাখা ছোলার ডাল ও গরুর মাংস নিতে হবে। এর সাথে লবণ ও মিহি করে কুচি করে রাখা পেঁয়াজ যোগ করতে হবে। এরপর এই গরুর মাংসের সাথে পেঁয়াজ বাটা, রসুন বাটা, আদা বাটা আর কাঁচা মরিচ বাটা যোগ করতে হবে। সেই সাথে হলুদ গুড়া, লাল মরিচ গুড়া, ভাজা জিরা গুড়া ও ভাজা ধনে গুড়াও যোগ করে দিতে হবে। এই সময় ইচ্ছা হলে খুব সামান্য পরিমাণ চিনি যোগ করা যেতে পারে। তবে অনেকেই আছেন যারা ঝাল ঝাল স্বাদ এর খাবার এর মধ্যে চিনি যোগ করাটা একদমই পছন্দ করেন না। আপনিও যদি সেই দলের হয়ে থাকেন তবে চিনি যোগ না করলেও চলবে। তবে আমার মনে হয় যে কোন কাবাব জাতীয় খাবারে সামান্য একটূ চিনি যোগ করলে এর মশলা গুলোর ফ্লেভার আরো ভাল ভাবে বের হয়ে আসে। এজন্য আমি টিকিয়ার মধ্যে খুব সামান্য পরিমাণ চিনি যোগ করে থাকি।

এই মশলা গুলোর সাথে অল্প পরিমাণে গরম মশলা বাটা যোগ করে দিতে হবে। গরম মশলা বাটার মধ্যে আছে সম পরিমাণ এলাচ, দারচিনি, লবঙ্গ ও কালো গোল মরিচ। এই সব কটি মশলা এক সাথে দুই থেকে তিন ঘন্টা ভিজিয়ে রাখতে হবে। তারপর মিহি করে বেটে নিতে হবে। সব মশলা গুলো ডাল ও গরুর মাংসের সাথে খুব ভাল ভাবে মেখে নিতে হবে। এরপর অল্প পরিমাণে পানি যোগ করতে হবে। তারপর প্রেশার কুকার বন্ধ করে দুইটি থেকে তিনটি সিটি না উঠা পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে।

৪র্থ ধাপ

ডাল ও গরুর মাংস সিদ্ধ হয়ে গেলে প্রেশার কুকার থেকে বের করে নিতে হবে। এরপর শীল পাটায় খুব মিহি ও মসৃণ করে এই ডাল ও গরুর মাংসের মিশ্রণ বেটে নিতে হবে। এই সময়ে একটা বিষয়ে খেয়াল রাখতে হবে। দেখবেন যেন কোন অবস্থায় ছোলা ডাল কিংবা গরুর মাংসের কোন দানা বা টুকরা আস্ত না থাকে। সম্পূর্ণ মিহি না হওয়া পর্যন্ত বেটে নিতে হবে। এই ডাল ও মাংসের মিশ্রণ শীল পাটায় বেটে নিলেই ভাল হয়। ব্লেন্ডারে এটি ঠিক মত বাটা সম্ভব হয় না।

৫ম ধাপ

এই বার পুর রেডি করে নিতে হবে। এর জন্য একটা বাটিতে মিহি করে কুচি করে রাখা পেঁয়াজ, আদা ও কাঁচা মরিচ নিতে হবে। এর সাথে সামান্য পরিমাণে লবণ ছড়ীয়ে দিতে হবে। এই বার হাত দিয়ে খুব ভাল ভাবে এই উপকরণ গুলো ডলে ডলে মেখে নিতে হবে। এই ভাবে মাখানোর ফলে পেঁয়াজ ও আদার মধ্যে থেকে রস ছেড়ে দেবে। এরপর এই মশলার মিশ্রণ এর মধ্যে ভাজা জিরা গুড়া, কালো গোল মরিচ গুড়া ও লেবুর রস মিশিয়ে নিতে হবে। ব্যাস পুর রেডি হয়ে গেল।

৬ষ্ঠ ধাপ

এই বার ডাল ও গরুর মাংসের মিশ্রণের মধ্যে ডিম এর সাদা অংশ মিশিয়ে দিতে হবে। খুব ভাল করে মেখে নিতে হবে। এই বার অল্প অল্প করে এই মিশ্রণ নিতে হবে। এর মধ্যে সামান্য একটু পরিমাণে পুর ভরে টিকিয়ার আকারে গরে নিতে হবে। এই ভাবে একে একে সব গুলো টিকিয়া আগে গড়ে নিতে হবে।

৭ম ধাপ

একটা বড় ফ্রাইং প্যানে সয়াবিন তেল গরম করতে দিতে হবে। সয়াবিন তেল গরম হয়ে গেলে এর মধ্যে একে একে সব গুলো টিকিয়া ছেড়ে দিতে হবে। মিডিয়াম আঁচে মোতামুটি তিন মিনিট থেকে চার মিনিট ভেজে নিতে হবে। এই সময়ের মধ্যে টিকিয়ার এক পিঠ ভাজা হয়ে যাবে। তখন টিকিয়া গুলো আস্তে করে উলটে দিতে হবে। টিকিয়ার উলটো পিঠও একই ভাবে তিন মিনিট থেকে চার মিনিট সময় নিয়ে মিডিয়াম আঁচে ভেজে নিতে হবে। এরপর একটা প্লেতে উঠিয়ে গরম গরম পরিবেশন করতে হবে মজাদার গরুর মাংসের টিকিয়া।

মন্তব্যসমূহ

আমি সাদিয়া রিফাত ইসলাম। একজন মা , হোমমেকার এবং ব্লগার। ভালভাসি রান্না করতে, বই পড়তে এবং লেখালেখি করতে।

মন্তব্য করুন