বাসায় বানান ক্যারামেল সস

বাসায় বানান ক্যারামেল সস

ইন্টারনেটের কল্যাণে দেশ বিদেশের ভিন্ন ভিন্ন রেসিপি এখন আমাদের হাতের মুঠোয়। তাই একটু ভিন্ন স্বাদের ভিন্ন দেশের রেসিপি ট্রাই করার জন্য এখন আর নামী দামী রেস্টুরেন্ট গুলোতে ছুটতে হয় না। অযথা খরচ করতে হয় না এক গাদা টাকা। এখন ইচ্ছা করলেই যে কোন রেসিপিই যখন খুশি ঘরের কিচেনে বসেই বানিয়ে নেয়া যায়। তবে এই সব ভিন্ন দেশের রেসিপি তৈরী করতে কিছু ভিন্ন ধরণের উপকরণ এর দরকার হয় মাঝে মাঝে। এই সব উপকরণ সাধারণত আমাদের দেশে তৈরী হয় না। ফলে এই বিদেশ থেকে আমদানীকৃত সাধারণ উপকরণ গুলো কিনতে বেশ কিছু টাকা অযথাই খরচ হয়ে যায়। এরকমই একটি উপকরণ হচ্ছে ক্যারামেল সস।

এখন এই সুপার শপের দৌরাত্নের সময় কালে ক্যারামেল সস খুজে পাওয়া তেমন একটা কঠিন কোন ঘটনা নয়। তবে ভাল মানের ক্যারামেল সস খুজে পাওয়াটা একটু কঠিনই বটে। তাছাড়া এই সব প্রোদাক্ট আমাদের দেশে অত বেশি প্রচলিত নয় তাই এই সব প্রোদাক্ট গুলোর ডেট এক্সপায়ার হয়ে যাবার একটা ভয় থেকেই যায়। তাই খুব ভাল হয় যদি আপনি বাসাতে বসেই একটা ভাল স্বাদের ক্যারামেল সস বানিয়ে নিতে পাড়েন।

এত সব ভূমিকার পর আপনার মনে হতে পারে আমি এত কষ্ট করে ক্যারামেল সস বানাব কেন? আসলে কি কাজে লাগে এই ক্যারামেল সস। আমাদের মনে একটা ভ্রান্ত ধারণা আছে যেসস মানেই সেটা ঝাল খাবারে ব্যবহার করা হবে। কিন্তু দেশ বিদেশের নানা রকম ডেজার্ট বানাতেও যে বিভিন্ন রকম সস এর দরকার হয় তা হয়ত অনেকেই জানেন না। এরকমই একটি সস হচ্ছে ক্যারামেল সস যেটা শুধু মাত্র ডেজার্ট বানাবার জন্যই কাজে লাগে। বভিন্ন কেক, মিল্ক শেক কিংবা কফি বানাবার সময় যদি পরিমাণ বুঝে একটু ক্যারামেল সস যোগ করা যায় তাহলে এর স্বাদ ও গন্ধ খুবই সুন্দর হয়ে যায়।

ক্যরামেল সস বানাতে খুব বেশি উপকরণ এর দরকার পড়ে না। মাত্র চার থেকে পাঁচটি উপকরণ দিয়ে খুব সহজেই এই ক্যারামেল সস বানিয়ে নেয়া যায়। আসুন ক্যারামেল সসের উপকরণ ও বানাবার পদ্ধতি জেনে নেয়া যাক।

ক্যারামেল সস বানাতে যে যে উপকরণ দরকার হবে

  • ব্রাউন সুগার ১ কাপ
  • লবণ ১/২ চা চামচ
  • মাখন ৩ টেবিল চামচ
  • ভ্যানিলা এসেন্স ১/৪ চা চামচ
  • হেভি ক্রীম ১ কাপ

ক্যারামেল সস যে পদ্ধতিতে বানাতে হবে

১ম ধাপ

ক্যারামেল সস বানানোর পদ্ধতিটা আসলে খুবই সহজ। প্রথমে একটা মিডিয়ম সাইজ এর সস প্যান নিতে হবে। এই সস প্যান এর মধ্যে প্রথমে বাটার দিতে হবে। বাতার গলে গেলে এর মধ্যে সব টুকু ব্রাউন সুগার যোগ করে দিতে হবে। খুব কম আঁচে দুই মিনিট থেকে তিন মিনিট নাড়া চাড়া করে রান্না করতে হবে। এতে করে ব্রাউন সুগার গলতে শুরু করবে এবং ক্যারামেলাইজড হতে শুরু করবে। আর এভাবে বাটার এর মধ্যে ব্রাউন সুগার আগে থেকে গলিয়ে নিলে ক্যারামেল সস এর রণ আরো বেশি সুন্দর ও গাড় হয়।

২য় ধাপ

বাটার এর মধ্যে ব্রাউন সুগার গলে গেলে এর মধ্যে ভ্যানিলা এসেন্স ও লবণ দিয়ে দিতে হবে। ভাল মত নেড়ে চেড়ে মিশিয়ে দিতে হবে। এই উপকরণ গুলো সব এক সাথে মিশে গেলে এর মধ্যে হেভি ক্রীম দিয়ে দিতে হবে। আস্তে আস্তে নেড়ে চেড়ে সব উপকরণ মিশিয়ে দিতে হবে। এই রান্নাটি করার সময় একটা ব্যাপার সব সময় মাথায় রাখতে হবে। আর তা হল অবশ্যই খুব কম আঁচে এই পুরো রান্নাটি শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত সম্পন্ন করতে হবে। তা না হলে যে কোন সময় ক্যারামেল সস পুড়ে যেতে পারে। আর ক্যারামেল সস দেখতে বেশ গাড় রঙ এর হয়। তাই পুড়ে যাবার রংটা হয়ত বোঝা যাবে না। কিন্তু খাবার সময় এই ক্যারামেল সস এর তেঁতো পোড়া স্বাদ এর জন্য পুরো খাবারটাই নষ্ট হয়ে যাবে। এজন্য পুরো রান্নাটা করার সময় কোন ভাবেই চুলার আঁচ বাড়ানো যাবে না।

আর তাছাড়া রান্নাটা করার সময় অবশ্যই পুরোটা সময় একটা খুনতি দিয়ে ক্যারামেল সস এর মিশ্রণটা নাড়া চাড়া করতে হবে। যদি নাড়া চাড়া বন্ধ করা হয় তাহলেও কিন্তু ক্যারামেল সস পুড়ে যেতে পারে।

৩য় ধাপ

এই রান্না টা শেষ করতে খুব বেশি সময় লাগার কথা না। এক বার ব্রাউন সুগার গলে গেলে বাকি সস ঘন হতে খুব বেশি সময় লাগে না। হেভি ক্রীম দেবার কিছু ক্ষণের মহ্যেই ক্যারামেল সস ঘন হতে শুরু করে দেয়। মোটামুটি পাঁচ মিনিট থেকে দশ মিনিট সময় লাগতে পারে ক্যারামেল সস ঘন হবার জন্য। ক্যারামেল সস এর ঘনত্ব আপনার মন মত হলে চুলা বধ করে দিতে হবে। তবে একটা বিষয় খেয়াল রাখতে হবে। ক্যারামেল সস ঠান্ডা হবার পর আরো একটু ঘন হয়ে যায়। তাই আপনি যে রকম ঘনত্বের ক্যারামেল সস চান তার থেকে সামান্য একটু পাতলা থাকা অবস্থায় চুলাটা বন্ধ করে দিতে হবে।

এরপর ক্যারামেল সস রুম টেম্পারেচারে আসা পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে। ক্যারামেল সস রুম টেম্পারেচারে আসলে একটা এয়ার টাইট বয়ামে ভরে নিতে হবে। এই ক্যারামেল সস যদি আপনি নরমাল ফ্রিজে রাখেন তবে এক সপ্তাহ পর্যন্ত ভাল থাকবে। আর যদি রেফ্রিজারেটরে রাখেন তবে মোটামুটি ছয় মাস থেকে সাত পর্যন্ত এটি ভাল থাকবে শুধু ব্যবহার করার আগে দুই থেকে তিন ঘন্টা সময় এর জন্য এটি ফ্রিজ থেকে বের করে নিতে হবে। এই সময় এর মধ্যে এই ক্যারামেল সসটি পুরোপুরি গলে যাবে। তখন আপনার রেসিপির প্রয়োজন মত যে কোন ধরণের ডেজার্টে এটি ব্যবহার করা যেতে পারে। এরপর আবারো একই ভাবে এয়ার টাইট বয়ামে বাকি ক্যারামেল সস টুকু নিয়ে রেফ্রিজারেটরে সংরক্ষণ করে রাখতে হবে।

 

 

মন্তব্যসমূহ

আমি সাদিয়া রিফাত ইসলাম। একজন মা , হোমমেকার এবং ব্লগার। ভালভাসি রান্না করতে, বই পড়তে এবং লেখালেখি করতে।

মন্তব্য করুন