৩ টি ভিন্ন স্বাদের আলুর দম রেসিপি

আলুর দম খেতে কে না পছন্দ করে। এটি সবার খুব প্রিয় একটি প্রচলিত খাবার কারন আলু একটি খুব সহজ লভ্য সবজি এবং দামেও খুবই সস্তা। আলুর দম দুই বাংলার মানুষের কাছে খুবই জনপ্রিয় একটি মজাদার  রেসিপি। তাই আজ আপনাদের জন্য নিয়ে এলাম ৩ টি আলাদা স্বাদের আলুর দম রেসিপি। তাহলে চলুন আর কথা না বাড়িয়ে দেখে নেয়া যাক ৩ টি আলাদা স্বাদের আলুর দম তৈরি করতে কি কি প্রয়োজনীয় উপকরণ লাগবে এবং কি কি পদ্ধতি অবলম্বন করে ৩ রকম আলুর দম তৈরি করা যাবে। এখানে এক এক করে ৩ টি রেসিপি দেয়া হলো –

১. অন্য রকম কাশ্মীরী আলুর দম রেসিপি :

প্রয়োজনীয় উপকরণ :

বড় আলু – ৭ /৮ টি
পেয়াজ কুচি – ২ কাপ পরিমাণ
আদার টুকরা – ১ ইঞ্চি পরিমান
রসুন – ৬/৭ কোয়া
টমেটো কুচি – ২ কাপ পরিমান
কাজু বাদাম – ২ টেবিল চামচ
জিরা গুঁড়ো – ২ চা চামচ
ধনে গুঁড়ো – ২ চা চামচ
গরম মশলা গুড়া – হাফ চা চামচের কম বা সিকি চা চামচ
আস্ত জিরা – ১ চা চামচ
শুকনো মরিচ – ৫/৬ টি
তেজপাতা – ২/৩ টি
টক দই – ১ কাপের ৪ ভাগের ১ ভাগ
হলুদ গুঁড়ো – ১ চা চামচ
মরিচ গুঁড়ো – হাফ চা চামচ
কাশ্মীরী মরিচ গুঁড়ো – ১ বা দেড় চা চামচ
কাসুরি মেথি – ২ টেবিল চামচ
চিনি – ১ চা চামচ
লবন – পরিমাণ মত

কাশ্মীরী আলুর দম রান্না করার জন্য যে যে পদ্ধতি গুলো অনুসরণ করতে হবে :

১ম ধাপ :

সবার প্রথমে আলু গুলোকে ছিলে নিয়ে কাঁটা চামচ বা ছুরি দিয়ে একটু কেঁচে নিন। এরপর আলু গুলোকে ভালো করে পানিতে সেদ্ধ করে নিন যাতে নরম হয়ে যায়। এবার পিঁয়াজ এবং
টমেটো গুলোকে মোটা করে কুচি করে নিন। তারপর ২ টেবিল চামচ কাজু বাদামের সাথে ২ টেবিল চামচ পরিমান পানি দিয়ে পেস্ট তৈরি করে নিন।

২য় ধাপ:

এবারে ফ্রাইংপ্যান বা কড়াইতে কিছুটা তেল গরম করে নিন । এই তেলে দিন আস্ত জিরা এবং তেজপাতা । তারপর এতে কুচি করা পিঁয়াজ গুলো দিয়ে হালকা সোনালি করে ভেজে তুলুন। তারপর আদা ও রসুন পাটায় থেঁতো করে দিয়ে দিন কড়াইয়ের তেলে। এবারে দিন অল্প একটু চিনি ও লবণ । এইভাবে রসুনের বেরেস্তা হবার প্রক্রিয়া ভালো করে হবে।

৩য় ধাপ:

এখন তেলে দিয়ে দিন হলুদের গুঁড়ো, মরিচের গুঁড়ো, কাশ্মীরী মরিচের গুঁড়ো এবং আস্ত শুকনা মরিচ, আরো দিয়ে দিন কাজু বাদামের পেস্ট, টমেটোর কুচি এবং পরিমান অনুযায়ী লবন। এবারে চুলার মাঝারি আঁচে নেড়েচেড়ে সব কিছু মিশিয়ে নিন ৪ থেকে ৫ মিনিট এর মত।

৪র্থ ধাপ:

তারপর আগের কষানো মসলায় দিয়ে দিন জিরা গুঁড়ো, ধনিয়ার গুঁড়ো এবং পরিমান মত গরম মশলা গুঁড়ো। এবার পাত্র টি ঢেকে দিয়ে রান্না করুন প্রায় ১০ – ১৫ মিনিট। মসলা গুলো যদি আঠা আঠা হয়ে আসে তাহলে প্রয়োজনে আরেকটু পানি দিতে পারেন।

৫ম ধাপ :

সেদ্ধ আলু গুলোকে ছোট ছোট টুকরা করে কেটে নিন। তারপর হলুদের গুঁড়ো, মরিচের গুঁড়ো এবং কাশ্মীরী মরিচের গুঁড়ো দিয়ে ভালো ভাবে মেখে নিন।

৬ষ্ঠ ধাপ:

রান্না করার পাত্রটি ভালো ভাবে ঢেকে রান্না করুন যাতে পিঁয়াজ এবং টমেটো কুচি গুলো একেবারে নরম হয়ে যায়। তারপর টক দইয়ের সাথে সামান্য একটু পানি মিশিয়ে একটি পেস্টের মতো করে নিন। এবারে চুলা টি বন্ধ করে দিন এবং ঝোল টা ঠাণ্ডা হতে দিন প্রায় ৫ মিনিট। তারপর এতে টক দই দিয়ে দিন । এরপর আগের মিশ্রণ এ আলুর টুকরা গুলো দিয়ে দিন এবং ভালো ভাবে মিশিয়ে নিন। এবার সবকিছু চুলায় দিয়ে ঢেকে রান্না করুন প্রায়  ১৫ মিনিট। সব শেষে উপরে দিয়ে দিন কাসুরি মেথি এবং অল্প একটু মাখন।

ব্যস তৈরি হয়ে গেলো মজাদার কাশ্মীরী আলুর দম। এবার এটি রুটি, লুচি বা পরোটার সাথে গরম গরম পরিবেশন করুন । আপনি চাইলে উপরে ধনে পাতা কুচি দিয়েও পরিবেশন করতে পারেন। আবার চাইলে দিতে পারেন কিছু টা ফ্রেশ ক্রিমও।

 

২. কষা আলুর দম রেসিপি :

প্রয়োজনীয় উপকরণ:

ভাল আলু – ১ কেজি
আদা বাটা – ২ চা চামচ
পেঁয়াজ বাটা – ২ টেবিল চামচ
রসুন বাটা ১ চা চামচ
পোস্ত বাটা – ১ চা চামচ
কাজু বাদাম বাটা – ১ চা চামচ
হলুদ গুড়া – দেড় চা চামচ
মরিচ গুঁড়ো – ১ চা চামচ
কাশ্মীরি মরিচের গুঁড়ো – ১ চা চামচ
চেরা কাঁচা মরিচ – ৭/৮ টি
ঘি – দেড় চা চামচ
গরম মশলার গুঁড়ো – হাফ চা চামচ
তেজপাতা – বড় ২ টি
আস্ত জিরা – হাফ চা চামচ
জিরা গুঁড়ো – ১ চা চামচ
টক দই – ২ টেবিল চামচ
সরিষার তেল – ২ টেবিল চামচ
টমেটো ২ টি – বড় বড় করে কুচি করে নিতে হবে
চিনি – ১ চা চামচ
লবন – স্বাদ মতো
ধনে পাতা কুচি – ২ টেবিল চামচ

কষা আলুর দম রান্না করার জন্য যে যে পদ্ধতি গুলো অনুসরণ করতে হবে :

১ম ধাপ :

সবার আগে আলু সেদ্ধ করে নিন ভালো ভাবে। এবার কড়াইতে পরিমান মত তেল গরম করে তাতে তেজপাতা ও আস্ত জিরা দিয়ে ফোড়ন দিন। তারপর পেঁয়াজ বাটা এবং রসুন বাটা দিয়ে একটু ভাজুন। একটু পর ভাজার গন্ধ বের হলে এতে টমেটো কুচি গুলো দিয়ে নাড়ুন। তারপর এতে একটু চিনি দিন।

২য় ধাপ:

সব ভাজা হয়ে গেলে আদা বাটা, কাজু বাদাম বাটা, পোস্ত বাটা , হলুদ গুড়া, মরিচ গুঁড়ো, কাশ্মীরি মরিচের গুঁড়ো, জিরার গুঁড়ো্ ও একটু ফেটানো টক দই দিয়ে কষাতে থাকুন যতক্ষণ পর্যন্ত না উপরে তেল ছেড়ে আসছে। এরপর এই কষানো মসলায় আলু গুলো দিয়ে দিন। এবার একটু পানি দিন। কিছু সময় পরে ফুটে গেলে এবং সব কিছু মাখা মাখা হয়ে এলে এতে ঘি,  কাঁচা মরিচের ফালি,  ধনে পাতা কুচি ও গরম মশলার গুড়া  ছড়িয়ে দিয়ে পরিবেশন করুন মজাদার কষা আলুর দম।

 

৩.  নিরামিষ ছোট আলুর দম রেসিপি :

প্রয়োজনীয় উপকরণ :

ছোট ছোট আস্ত আলু – ৫০০ গ্রাম,

টমেটো বড় বড় টুকরো করে কাটা  – ২ কাপ

টমেটো পেস্ট  – ২ চা চামচ,

ধনে পাতার পেস্ট –  ১ চা চামচ

আদা বাটা-   ১ চা চামচ,

টক দই – ২ চা  চামচ,

মরিচের গুঁড়ো –  ২ চা চামচ,

কাশ্মীরি মরিচের গুঁড়ো –  হাফ চা চামচ,

হলুদ গুঁড়ো  – ১ চা চামচ,

ধনে গুঁড়ো – ১ চা চামচ,

জিরা গুঁড়ো  – ১- চামচ,

ঘি-  ১ চা চামচ,

আস্ত তেজপাতা  – ২ টি,

আস্ত শুকনো মরিচ –  ২ টি,

লবঙ্গ –  ৩ /৪ টি

এলাচ  – ৩ /৪ টি,

দারচিনি বড় –  ১ টি,

লবন –  পরিমাণ মতো

সয়াবিন তেল বা সরিষার তেল – পরিমান মত

নিরামিষ ছোট আলুর দম তৈরি করতে যে যে পদ্ধতি গুলো অনুসরণ করতে হবে সেগুলো হলো –

 

১ম ধাপ –

প্রথমে আস্ত আলু গুলোর খোসা না ছাড়িয়ে পানি দিয়ে ভালো ভাবে ধুয়ে নিতে হবে। তারপর প্রেশার কুকারে পানি আর  স্বাদ মতো লবণ দিয়ে আলু গুলো সিদ্ধ করে নিতে হবে। তারপর প্রেসার কুকারে ৩ থেকে ৪ টি সিটি দিলেই আলু গুলো নামিয়ে নিতে হবে। আপনি যদি কড়াই তে সেদ্ধ করতে চান তাহলে একটু বেশি সময় লাগবে। কিছু সময় পরে আলু গুলো ঠান্ডা হলে খোসা ছাড়িয়ে নিতে হবে।

 

২য় ধাপ –

তারপর কড়াই তে অল্প পরিমানে তেল দিয়ে খোসা ছাড়ানো আলু গুলো  ভালো ভাবে ভেজে একুটি পাত্রে নামিয়ে রেখে দিতে হবে। আলু নামিয়ে নেওয়ার পরে ওই কড়াই তেই আবার পরিমান মতো তেল দিতে হবে। তেল গরম হয়ে যাওয়ার পর এতে এক এক করে তেজপাতা, শুকনো মরিচ,  লবঙ্গ , এলাচ, দারচিনি দেয়ার পর বড় বড়  করে কেটে রাখা  টমাট্যো দিয়ে ২ থেকে ৩ বার এ পাশ ও পাশ নাড়া চাড়া করার পর এতে আদা বাটা, টমেটোর পেস্ট, ধনে পাতার পেস্ট, মরিচ গুঁড়ো, হলুলের গুঁড়ো, কাশ্মীরি মরিচের গুঁড়ো, জিরার গুঁড়ো, ধনে গুঁড়ো আর টক দই দিয়ে বেশ কিছুক্ষণ নাড়ার পর আগে থেকে ভেজে রাখা আলু সব গুলো দিয়ে দিতে হবে।

৩য় ধাপ –

সব মসলা দেয়া শেষে আলু আর মশলা গুলো ভালো ভাবে মিশে গেলেই এতে পানি দিয়ে দিতে হবে। আলু যেহেতু আগেই সিদ্ধ করা ছিল তাই বেশি পানি দেবার দরকার নেই। পানি পুরো টাই নির্ভর করবে আলু কত টুকু সিদ্ধ তার ওপর। আস্ত আলু গুলো সাইজে কিছুটা ছোটোও হতে পারে আবার একটু বড় ও হতে পারে। তারপর আলুতে পানি দেয়ার  পর স্বাদ মতো লবণ দিয়ে কিছু সময়ের জন্য ঢাকনা দিয়ে ঢেকে  দিতে হবে। আলু সিদ্ধ করার সময় এতে লবন দেওয়া ছিলো  তাই লবন টা দেয়ার সময় পরিমান বুঝে দিতে হবে। কিছুক্ষণ পর ঝোল ঘন হয়ে এলে উপরে ঘি ছড়িয়ে দিয়ে নামিয়ে নিতে হবে মজাদার  নিরামিষ ছোট আলুর দম।

 

আলুর দমের সাধারণ রেসিপি তো আমরা সবাই জানি। মাঝে মাঝে রান্না করে খাওয়াও হয় আলুর দম। কিন্তু সব সময় একই রেসিপি আর কতদিন ই বা ভালো লাগে। তাই মাঝে মাঝে যদি অন্য রকম রেসিপি রান্না করে খাওয়া যায় তাহলে তো মন্দ হয়না। তাই উপরের রেসিপি গুলো আপনিও আপনার বাসায় তৈরি করে খেতে পারেন যখন খুশি আর এই আলুর দম গুলো এত টাই সুস্বাদু যে মেহমান আসলেও আপ্যায়ন করতে কোন অসুবিধে হবে না। তাই আর দেরি না করে আজ রাতের ডিনারেই রান্না করে ফেলুন উপরের ৩ টি আলুর দমের রেসিপি থেকে যে কোন একটি আর উপভোগ করুন পরিবারের সবার সাথে।http://৩ টি ভিন্ন স্বাদের আলুর দম রেসিপি

 

মন্তব্যসমূহ

আমি একজন শিক্ষার্থী। নতুন কিছু সম্পর্কে জানতে ও শিখতে ভালোবাসি এবং অন্যদের সাথে সেটা শেয়ার করতে ভালো লাগে।

মন্তব্য করুন