৫ রকমের ব্যানানা মাফিন কেক রেসিপি

৫ রকমের ব্যানানা মাফিন কেক রেসিপি

অনেক সময় ঘরে কলা আনার পরে খাওয়া হয় না, এতে কলা অনেক পেকে যায়। যা পরে আর খেতে ইচ্ছা করে না। বেশিরভাগ সময় আমরা এই কলা ফেলে দিয়ে থাকি। এতে কিন্তু খাবারের অনেক অপছয় হয়, যেটা করা মোটেই ঠিক নয়। এই একটু বেশি পেকে যাওয়া কলা থেকেই মজাদার অনেক কিছু বানানো যায়, যেমনঃ কলার পিঠা যা গ্রাম-বাংলায় দারুন জনপ্রিয় বা বর্তমান সময়ে বাচ্চাদের খুব পছন্দের ব্যানানা মাফিন কেক। আসুন আজকে  তবে দেখে নিই কলা দিয়ে তৈরি দারুন স্বাদের ব্যানানা মাফিন কেক রেসিপি । তাও আবার ১ রকম নয় ৫ রকমের ব্যানানা মাফিন রেসিপি।বাচ্চারা তো মজা করে খাবেই সাথে বড়দেরও খুব পছন্দ হবে আজকের  ৫ রকমের ব্যানানা মাফিন রেসিপি।

ব্যাসিক ব্যানানা মাফিন  

বিভিন্ন রকমের মাফিন বানানোর আগে প্রথমেই জেনে নিতে হবে ব্যাসিক ব্যানানা মাফিন কিভাবে বানাতে হয়। এরপর এই ব্যাসিক রেসিপি অনুসরণ করেই বাকি রেসিপি তৈরি করতে হবে। তবে আর দেরি না করে জেনে নেই ব্যাসিক ব্যানানা মাফিন বানানোর উপায়।

 

উপকরণ

ময়দা – ১ +১/২ কাপ

পাকা কলা – ৩ টি

চিনি – ১ কাপ

বেকিং পাউডার – ১ চা চামচ

ডিম – ১টি (বড়)

তেল – ১/৩ কাপ

ভ্যানিলা এসেন্স – ১ চা চামচ

লবণ – ১/২ চা চামচ

প্রণালী

** একটা পাত্রে শুকনো উপকরণ যেমন – ময়দা, বেকিং পাউডার, লবণ একসাথে মিশিয়ে চালনি দিয়ে চেলে নিন।

** ডিম ও চিনি একত্রে বিটার দিয়ে বিট বা ব্লেন্ডার দিয়ে ব্লেন্ড করে নিন। চিনে গলে গেলে তেল টা ২বারে দিয়ে মিশিয়ে নিন। তেল দেয়ার পরে খুব বেশি স্পীডে বা বেশিক্ষণ ব্লেন্ডার বা বিটার চালানোর দরকার নেই।

** এবারে ডিমের মিশ্রণে ভ্যানিলা এসেন্স মিশাতে হবে।

** পাকা কলা খোসা ছাড়িয়ে কাঁটা চামচ দিয়ে ম্যাস করে নিন । ডিমের মিশ্রণে  ম্যাস করা কলা কাঁটা চামচ দিয়েই মিশিয়ে নিন।

** মাফিন ট্রেকে তেল বা বাটার দিয়ে গ্রিজ করে নিন। মাফিন ট্রের বদলে কাপকেকের লাইনারও ব্যবহার করা যেতে পারে।

** ওভেন বেকের জন্যঃ ওভেনকে ১৮০ ডিগ্রী তাপে প্রি-হিট করে নিন, এরপর বেক করুন ১৮০ ডিগ্রীতেই ১৫-২০ মিনিট।

চুলায় করার জন্যঃ একটা বড় পাতিলকে ঢাকনা দিয়ে ঢেকে ১০ মিনিট হাই আঁচে গরম করে নিন। এইসময়  গরম খাবার টেবিলে রাখার জন্য ব্যবহৃত একটা জালি পাতিলের ভেতর দিয়ে নিন। পাতিল গরম হয়ে গেলে মাফিন ট্রে জালির উপর বসিয়ে ঢেকে দিন। আর কাপ কেকের লাইনার ব্যবহার করলে জালির উপর একটা স্টিলের প্লেট বা ট্রে দিয়ে তার উপর লাইনার দিন। একসাথে কয়েকটা লাইনার ব্যবহার করা যাবে। চুলায় সময় লাগবে ২০-২৫ মিনিট। মাফিন দেয়ার পরে চুলার আঁচ কম করে দিতে হবে।

ওভেন বা চুলা যেভাবেই করেন না কেন ১০-১৫ মিনিট পরে একবার চেক করে নিবেন মাফিনের মাঝে কাঁঠি দিয়ে।

** যদি কাঁঠিতে কেকের মিশ্রণ না লেগে থাকে তবে বুঝতে হবে মাফিন হয়ে গেছে। হয়ে গেলেই সাথে সাথে চুলা থেকে নামিয়ে নিন। একটা তারের জালির উপর রেখে ঠাণ্ডা করে নিলে ভাল হয়।

** তৈরি হয়ে গেল ব্যাসিক বানানা মাফিন।

ভিন্ন ভিন্ন রকমের মাফিন বানানোর জন্য ব্যাসিক ব্যানানা মাফিনের রেসিপির সাথে কিছু উপকরণ মিশিয়ে বৈচিত্র্য আনা যেতে পারে। আর সেই উপকরনের সাথে মিলিয়েই মাফিনের নামকরন করা হয়। আসুন তবে আরও ৪ রকমের মাফিন বানানোর প্রক্রিয়া দেখে নেই।

চকলেট ব্যানানা মাফিন

ব্যাসিক মাফিনের রেসিপির সাথে ১ টেবিল চামচ কোকো পাউডার নিতে হবে। ময়দা, বেকিং পাউডারের সাথে কোকো পাউডারও একসাথে চালনি দিয়ে চেলে নিতে হবে।

ব্যানানা -ক্যারট মাফিন

এই মজার ও পুস্টিকর মাফিন বানানোর জন্য লাগবে ১/৪ কাপ মিহি গ্রেট করা গাজর। গাজর গ্রেট করার আগে অবশ্যই ধুয়ে -ছিলে নিতে হবে। গাজরের গায়ে মাটি লেগে থাকে তাই গাজর সব সময় ছিলে নেয়া দরকার।গ্রেট করা গাজর একটা পাতলা সুতি কাপড়ে কিছুক্ষন বেঁধে ঝুলিয়ে রাখতে হবে, এতে এর বাড়তি পানি ঝরে যাবে।  

ব্যাসিক বানানা মাফিনের রেসিপির সব উপকরণ মিশানোর পরে হালকা হাতে গ্রেট করা গাজর মিশিয়ে নিতে হবে।

ব্যানানা -চকলেট চিপস

চকলেটের তৈরি আরও একটা মজাদার মাফিন রেসিপি এটা। আগের চকলেট- বানানা মাফিন পুরোটাই চকলেটের ছিল আর এবার এটা তৈরি হবে চকলেট চিপস দিয়ে।

এর জন্য লাগবে ৪টেবিল চামচ চকলেট চিপস।

সব উপকরণ মিশানোর পরে একটা স্পেচুলা বা কাঠের চামচ দিয়ে ২ টেবিল চামচ চকলেট চিপস মিশিয়ে নিন।  বাকি ২ চা চামচ বেক করার আগে প্রত্যেক মাফিনের উপর কয়েকটা করে চকলেট চিপস দিয়ে দিন।

ব্যানানা – নিউট্রেলা মাফিন

নিউট্রেলা তো সব বাচ্চাদের এমনকি বড়দেরও খুব প্রিয়। এবারের মাফিন তৈরি হবে ব্যানানা ও সবার প্রিয় নিউট্রেলা দিয়েই। এরজন্য ৪ টেবিল চামচ পরিমান নিউট্রেলা একটা বাটিতে নিয়ে সাথে ১ চা চামচ পরিমান গরম মাখন দিয়ে মিশিয়ে নিন। এর ফলে নিউট্রেলা একটু পাতলা হবে ।মাফিনে দিতে সুবিধা হবে।

আগের মাফিনের মত ব্যাসিক ব্যানানা মাফিনের মিক্সার তৈরি করে মাফিন ট্রেতে মাফিন দিন, তার উপরে নিউট্রেলা দিন ১/২ চা চামচ করে। এরপর কাঠি বা ছুরির মাথা দিয়ে মিশ্রণটা একটু ঘুরিয়ে দিন, দেখুন কেমন সুন্দর ডিজাইন হয়েছে। বা মাফিন ট্রেতে অর্ধেক পরিমান মিশ্রণ দিয়ে তার উপর নিউট্রেলা দিন, উপরে আবার মাফিনের মিশ্রণ দিন। দুই ভাবেই করা যাবে এই ব্যানানা-নিউট্রেলা মাফিন। 

মন্তব্যসমূহ

নিজের পরিচয় দিতে গেলে সবার আগে বলব, আমি একজন মা। তার সাথে একজন হোমমেকার, শিক্ষক ও ব্লগার। লিখতে ভালবাসি। তার চাইতে ভালবাসি পড়তে, জানতে। এইতো! ছোট এক জীবনে অনেক কিছু, আলহামদুলিল্লাহ!!

মন্তব্য করুন