ঘরেই বানান মিষ্টির দোকানের মত মজাদার ছানার সন্দেশ

ঘরেই বানান মিষ্টির দোকানের মত মজাদার ছানার সন্দেশ

আমাদের দেশের সব মিষ্টির দোকানে একটা কমন মিষ্টি থাকবেই থাকবে। সেটা হচ্ছে ছানার সন্দেশ। আর এই সন্দেশেরও বিভিন্ন রকম প্রকার ভেদ আচে। এই যেমন কাঁচাগোল্লা, সরপুরিয়া, নরমাল সন্দেশ, আম সন্দেশ, গুড়ের সন্দেশ আরো কত কি? তবে একদম অথেনটিক সাধারণ ছানার সন্দেশই কিন্তু সব থেকে বেশি জনপ্রিয়। আর এটিই সব দোকানে পাওয়া যায়। সেটা গলির মোড়ের ছোট খাটো মিষ্টির দোকানই হোক কিংবা শহরের সব থেকে বড় মিষ্টির দোকান। ছানার সন্দেশ পাওয়া যাবেই। এর কারণও আছে। কারণটি হচ্ছে এই মিষ্টির জনপ্রিয়তা। ছোট বড় সকল মিষ্টি প্রেমী মানুষেরাই এই ছানার সন্দেশ অনেক পছন্দ করে খেয়ে থাকেন। এই জনপ্রিয় ছানার সন্দেশ যদি আপনি বাসায় বানাতে পারেন তাহলে কিন্তু মন্দ হয় না। আপনার বাসার সকলেই একদম তাক লেগে যাবে। আসুন আজ কিভাবে ঘরে বসেই মিষ্টির দোকানের স্বাদে ছানার সন্দেশ বানাতে হবে তা শিখে নেয়া যাক।

এখন অনেকেই অনেক ভাবে সন্দেশ বানিয়ে থাকেন নিজের বাড়িতে। এমনকি ইচ্ছা হলে গুড়া দুধ দিয়েও সন্দেশ বানানো যেতে পারে। কিন্তু মিষ্টির দোকেনের সুপ্রাচীণ রেসিপি ফলো করে যেই সন্দেশ বানানো হয় তার স্বাদের সাথে কিন্তু অন্য কোন স্বাদের তুলনাই চলে না। আজ আমি আপনাদের সাথে সেই অথেনটিক সন্দেশ রেসিপিই শেয়ার করব। এটি খাটি গরুর দুধ থেকে ছানা বের করে তারপর বানানো হয়ে থাকে। এজন্য এর স্বাদ অনেক অনেক বেশি ভাল, রিচ আর ক্রীমি হয়ে থাকে। আর খাটি গরুর দুধ থেকে বানানো হয় বলে এটির পুষ্টি গুণও অনেক বেশি থাকে। যেটা বাচ্চাদের জন্য অনেক উপকারি ভূমিকা রাখতে পারে। এজন্য যে সমস্ত বাচ্চারা দুধ খেতে চায় না, তাদেরকে আপনি এই ছানার সন্দেশ বানিয়ে দিতে পারেন। ওরা অনেক খুশি হয়েই খেয়ে নেবে।

ছানার সন্দেশ বানাতে কিন্তু খুব বেশি উপকরণ এর দরকার হয় না। হাতে গোণা অল্প কয়টি উপক্রণ দিয়েই এটি ঘরে বানিয়ে নেয়া যায়। তবে ছানার সন্দেশ কয়েকটি ধাপে বানাতে হয়। আসুন ছানার সন্দেশ বানাবার উপকরণ সমূহ ও ধাপ গুলো সম্পর্কে জেনে নেয়া যাক।

ছানার সন্দেশ বানাতে যে যে উপকরণ দরকার হবে

ছানা বানাতে যা যা লাগবে

  • গরুর দুধ ২ লিটার
  • লেবুর রস ৪ চা চামচ

সন্দেশ বানাতে যা যা লাগবে

  • ছানা দেড় কাপ
  • কনডেন্স মিল্ক ১ কাপ
  • চিনি ১/২ কাপ
  • ঘি ২ টেবিল চামচ
  • এলাচ ১টি
  • কিশমিশ কিংবা বাদাম সাজাবার জন্য

ছানার সন্দেশ যে পদ্ধতিতে বানাতে হবে

ছানা যে পদ্ধতিতে বানাতে হবে

ছানার সন্দেশ বানাবার জন্য প্রথমেই ছানা বানিয়ে নিতে হবে। অনেকে অবশ্য মিষ্টির দোকান থেকে কাঁচা ছানা কিনে তারপর ছানার সদেশ তৈরী করে থাকেন। তবে কিছু কিছু মষ্টির দোকানি বেশি লাভের জন্য ছানার মধ্যে গুড়ো দুধ কিংবা ময়দা মিশিয়ে বিক্রি করে থাকে। তখন ঐ ছানা দিয়ে সন্দেশ বানাতে গেলে তা কখনোই ভাল হয় না। এই জন্য খুব ভাল হয় যদি আপনি সন্দেশ বানাবার জন্য বাসাতেই টাটকা ছানা বানিয়ে নিতে পারেন।

ছানা বানাবার জন্য চুলায় প্রথমে গরুর দুধ জ্বাল দিতে হবে। দুধ চার মিনিট থেকে পাঁচ মিনিট ফুটিয়ে নিতে হবে। এরপর চুলা বন্ধ করে দিতে হবে। জ্বাল দেয়া দুধের মধ্যে এই বার লেবুর রস যোগ করে দিতে হবে। আপনার কাছে লেবুর রস না থাকলে এর বদলে ভিনেগারও যোগ করা যেতে পারে। লেবুর রস কিংবা ভিনেগারের এসিডের জন্য দুধ ফাটতে শুরু করবে। এই সময়ে সবাই একটা ভুল করেন দুধ নাড়া চাড়া করেন। এই কাজটা করা যাবে না। এই ভাবে দুধ ও লেবুর রসের মিশ্রণ চার মিনিট থেকে পাঁচ মিনিট রেখে দিতে হবে।

কিছুক্ষণ পর দেখবেন দুধ কাটতে শুরু করেছে। তখন একটা পরিস্কার ও পাতলা মসলিন কাপরের উপর এই দুধটা ঢেলে দিতে হবে। এবং সেই সাথে সাধারণ পানি দিয়ে এই ছানাটা ঐ কাপড়ের উপর একটু ধুয়ে নিতে হবে। এতে করে ছানা থেকে লেবুর রস কিংবা ভিনেগারের গন্ধ একদম চলে যাবে। এবং হাত দিয়ে চেপে ছানা থেকে পানি বের করে দিতে হবে। এই বার ছানা টূকু এই কাপড়ে বেধে ঝুলিয়ে রাখতে হবে যাতে করে বাকি যেই সামান্য পানি টুকু ছানার মধ্যে আছে তা যেন ঝরে যায়। এই ভাব এক ঘন্টার জন্য ছানা কাপড়ে বেধে ঝুলিয়ে রাখতে হবে। এতে করে ছানার পানি পুরোটুকু ছানা থেকে আলাদা হয়ে যাবে। দুই লিটার দুধ থেকে মোটামুটী দেড় কাপ মত ছানা পাওয়া যাবে। এই ছানা দিয়েই পরবর্তি ধাপে সন্দেশ বানাতে হবে।

সন্দেশ যে পদ্ধতিতে বানাতে হবে

১ম ধাপ

একটা বড় প্লেটে প্রথমে শুকনো ছানা নিতে হবে। এর মধ্যে চিনি মিশাতে হবে। এরপর হাত দিয়ে খুব ভাল ভাবে চিনি ও ছানা মথে নিতে হবে। দেখবেন মথতে মথতে ছানা আর চিনি মিশে গিয়ে বেশ নরম একটা মন্ড মত তৈরী হয়ে গেছে। তখন আর হাত দিয়ে মথতে হবে না।

২য় ধাপ

এই বার একটা বড় কড়াতে ঘি নিতে হবে। ঘি হালকা গরম হলে এতে এলাচ ফোড়ন দিতে হবে। এলাচ ফুতে উঠলে এর মধ্যে ছানা আর চিনির মিশ্রণ ঢেলে দিতে হবে। সেই সাথে যোগ করতে হবে কনডেন্স মিল্ক। যদিও অনেক আগে যখন সন্দেশ বানানো হত তখন কনডেন্স মিল্ক যোগ করা হত না। শুধু চিনি দিয়েই ছানার সন্দেশে মিষ্টতা আনা হত। কিন্তু আপনি যদি ছানার সন্দেশ বানাবার সময় একটু কনডেন্স মিল্ক যোগ করেন তাহলে এটির টেক্সচার আরো বেশি ক্রীমি হয়। তবে আপনি কনডেন্স মিল্ক দিতে না চাইলে কোন অসুবিধা নেই। এর বদলে সন পরিমাণে চিনি দিলেও হবে।

ঘি এর মধ্যে ছানা চিনি ও কনডেন্স মিল্কের মিশ্রণ খুব ভাল মত পাক দিতে হবে। এই সময় চুলার জ্বাল একদম কমিয়ে দিতে হবে। তা না হলে ছানা হটাত করে কিছু বুঝে ওঠার আগেই কড়াই এর নিচে লেগে যাবে এবং লাল হয়ে পোড়া পোড়া একটা ভাব চলে আসবে। তখন কিন্তু আপনার পুরো ছানার সন্দেশের টেস্টই নষ্ট হয়ে যাবে।

৩য় ধাপ

এই ভাবে বেশ কিছুক্ষণ পাক দেবার পর দেখবেন ছানার মিশ্রণ কড়ার গা থেকে আলগা হয়ে আসছে। এবং ছানা থেকে তেল ছাড়া শুরু হয়ে গেছে। তখন আরো দুই মিনিট থেকে তিন মিনিট ছানার মিশ্রণ পাক দিয়ে নিতে হবে। এরপর চুলা বন্ধ করে ছানার মিশ্রণ একটা প্লেটে ঢেলে নিতে হবে। এটি গরম থাকতে থাএতেইহাত দিয়ে সাবধানে প্লেতের উপর ছানার মিশ্রণ স্মান ভাবে বিছিয়ে দিতে হবে। এরপর একটু ঠান্দা হবার জন্য অপেখা করতে হবে। চার মিনিট থেকে পাঁচ মিনিট পর ছান্র মিশ্রণ একটু ঠান্ডা হয়ে গেলে এটি থেকে আপনার পছন্দ মত শেপে সন্দেশ কেটে নিতে হবে। উপর থেকে একটা করে কিশমিশ কিং বাদাম কুচি দিয়ে সাজিয়ে সার্ভ করতে হবে।

 

মন্তব্যসমূহ

আমি সাদিয়া রিফাত ইসলাম। একজন মা , হোমমেকার এবং ব্লগার। ভালভাসি রান্না করতে, বই পড়তে এবং লেখালেখি করতে।

মন্তব্য করুন