গ্রাফিক্স ডিজাইনের খুঁটিনাটি

ডিজিটাল বাংলাদেশে গ্রাফিক্স ডিজাইনের চাহিদা দিন দিন বেড়েই চলেছে। যেকোনো সেক্টরে গ্রাফিক্স ডিজাইনার প্রয়োজন হয়-ই এবং গ্রাফিক্স ডিজাইনারদের মোটা অংকের বেতন দেওয়া হচ্ছে। আর এই কারণে অনেকেই এটাকে নেশার পাশাপাশি পেশা হিসেবেও নিচ্ছে।

তো আপনিও কি পেশা হিসেবে নিতে চাচ্ছেন এটা? কিন্তু বুঝতে পারছেন না কিভাবে এগোবেন?
তাহলে আজকের এই লেখাটা আপনার জন্য…

 

গ্রাফিক ডিজাইন কিঃ

চিত্রলেখ বিষয়ক শিল্পকর্মকেই গ্রাফিক ডিজাইন বা Graphic design বলা হয়ে থাকে। সহজভাবে বলতে গেলে টেক্ট বা নকশা ব্যবহার করে সুন্দর এবং মানসম্মত চিত্রকর্ম তৈরি করাকে গ্রাফিক ডিজাইন বলা হয়ে থাকে। আরও সহজভাবে বলতে গেলে বলতে হয় আপনি নিশ্চই প্রথম আলো বা অন্য কোন সংবাদ মাধ্যমে বিভিন্ন ধরনের চিত্র দেখতে পান,বিভিন্ন কোম্পানির এড দেখতে পান ।এই যে চিত্রগুলো আপনি দেখতে পান এই চিত্রগুলোকেই বলা হচ্ছে গ্রাফিক ডিজাইন। আগের যুগে যে চিত্রকর্মগুলো শিল্পীরা হাতে একে তৈরি করত এখন সেইসব জিনিস তৈরি করা হচ্ছে কম্পিউটারের কিছু অসাধারন সফটওয়্যার দিয়ে।এতে করে চিত্রগুলোকে আরও বাস্তবসম্মত করা সম্ভব হচ্ছে।কিছু সময় উপযোগী গ্রাফিক ডিজাইন সফটওয়্যার হচ্ছে-adobe photoshop cs, adobe illustrator cs, quark xpress etc.

 

বর্তমান বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে গ্রাফিক ডিজাইনঃ

আমরা সাধারনত অপ্রয়োজনীয় কাজে সময় ব্যয় করে থাকি তারপর যখন পিছিয়ে পড়ি তখন করার কিছু থাকে না।আমরা ইচ্ছে করেই কোন কিছুকে গুরুত্ব দেই না। গ্রাফিক ডিজাইন ,থ্রি ডি এনিমেশন এর মত বিষয় গুলো আমাদের জানা থাকলে আমরা বেকারত্বের অন্ধকার থেকে রেহাই পেতাম। আমাদের আর হতাশার দীর্ঘশ্বাস ফেলতে হত না।হতাশা কাটাতে আপনার একটি কম্পিউটার+ইন্টারনেট হলেই যথেষ্ট শুধু থাকতে হবে আপনার দৃঢ় সংকল্প তাহলেই আপনি সব বাধাকে পিছনে ফেলে সামনের উজ্বল আলো দেখতে পারবেন।এই মুহুর্তে বাংলাদেশ সহ সারা বিশ্বে গ্রাফিক ডিজাইনারের চাহিদা ব্যাপক। তাই আপনি যদি একটু চেষ্টা করেন তাহলে মাত্র কয়েকমাসের ভিতরেই গ্রাফিক্স ডিজাইন আয়ত্বে এনে নিজেকে বদলে দিতে পারেন।একজন ভালমানের গ্রাফিক ডিজাইনার মাসে এক-দেড় লক্ষ টাকা ইনকাম করেন এ রকম উদাহরণ খুঁজলে অনেকগুলো পাওয়া যাবে।

কি কাজে লাগে?

বর্তমান যুগ তথ্যপ্রযুক্তির যুগ। তথ্যপ্রযুক্তির এই যুগে আপনি যত আপডেট থাকবেন আপনার জন্য ততই মঙ্গলজনক।আপনি নিশ্চই জানেন বাংলাদেশের বর্তমান বেকারত্ব সম্পর্কে।এই অবস্থায় এটি হতে পারে আপনার জন্য একটি  দারুন উপায়। গ্রাফিক ডিজাইন বিভিন্ন কাজে লাগে।যেসব ক্ষেত্রে গ্রাফিক ডিজাইনকে কাজে লাগানো যায় তার সম্ভাব্য কিছু বিষয় তুলে ধরার চেষ্টা করছি।

 

সংবাদপত্রঃ

Newspaper বা সংবাদপত্র হচ্ছে একটি বিশাল কর্মক্ষেত্র। একটি ভালমানের সংবাদপত্রের প্রতিষ্ঠানে অনেক লোকের একইসঙ্গে কর্মের ব্যবস্থা হয়ে থাকে।একটি সংবাদ পত্রে অনেক ধরনের চিত্রমূলক বা গ্রাফিক ডিজাইন সম্পর্কিত কাজ থাকে।যেমন ধরুন কার্টুন,এড,ব্যাঙ্গাত্বক চিত্র ইত্যাদি নানা ধরনের কাজের ক্ষেত্র।সংবাদমাপত্র হল একটি সুবিশাল মাধ্যম তাই এখানকার পেশার সন্মানটাও অনেক বেশী।

 

ওয়েব ডিজাইনঃ

দিন যাচ্ছে  ওয়েব ডিজাইনিংয়ের জনপ্রিয়তা বাড়ছে।কারন যুগ ধীরে ধীরে মোড় ঘুরাচ্ছে অনলাইনের দিকে।ধীরে ধীরে সব বড় বড় ব্যবসা  প্রতিষ্ঠান,কোম্পানী,শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান তাদের সেবাসমূহ অনলাইনের মাধ্যমে দেশ দেশান্তরে ছড়িয়ে দেবার চেষ্টা করছে।আর এ জন্য তাদের দরকার হচ্ছে একটি সুন্দর ওয়েবসাইট। প্রতিযোগীতায় টিকে থাকতে সবাই তাদের ওয়েবসাইটকে মনমাতানো করার চেষ্টা করছে।আর এ কাজ করার জন্য তাদের দরকার হচ্ছে একজন প্রফেশনাল এবং ভালমানের ওয়েব ডিজাইনার।কাজেই চিন্তা করে দেখুন সারা বিশ্বে কতগুলো প্রতিষ্ঠান রয়েছে এবং প্রতিনিয়ত বেড়েই চলেছে।দিন যাচ্ছে ওয়েব ডিজাইনিংয়ের কাজ বাড়ছে।এই সুবর্ন সম্ভাবনাকে অনেকে কাজে লাগাচ্ছে। তাই আপনিও এ সম্ভাবনাকে কাজে লাগাতে পারেন।

লোগো ডিজাইনঃ

Logo ডিজাইন হল বিভিন্ন কোম্পানীর একটি পরিচিতি বা চিহৃ। যেমন- f নামের ডিজাইন করা চিত্রটি দেখলে আমরা বুঝে নিই যে এটি ফেসবুকের চিহৃ। লেগো ডিজাইন একটি খুব দামী ও সন্মানজনক পেশা।এই কাজ করে প্রচুর পরিমানে আয় করা সম্ভব।শুধু ভালভাবে এগুলোর ডিজাইন করা শিখলে কাজ পাওয়া সম্ভব। কাজ আপনি ইন্টরনেটেই খুজে পাবেন।শুধু লেগো ডিজাইনের জন্যই আপনি আলাদা মার্কেটপ্লেস খুজে পাবেন।

 

ম্যাগাজিনঃ

ম্যাগাজিন সম্পর্কে আমরা কমবেশী অনেকেই জানি।ম্যাগাজিন একটি পত্রিকারই সংস্করন।অনেক বড় মানের ম্যাগাজিন আছে।অনলাইন ম্যাগাজিন বলেন আর অফলাইন ম্যাগাজিন বলেন কাজ জানলে দুধরনের ম্যাগাজিনেই আপনি কাজ করতে পারবেন।এতে সন্মান ও অর্থ দুই পাওয়া যায়।কয়েকটি ম্যাগাজিনের নাম হল-সি নিউজ ,মাসিক মদীনা,রস আলো ইত্যাদি।

 

ফ্রিল্যান্সার মার্কেটপ্লেসঃ

বর্তমানের আলোচিত বিষয় হল ফ্রিল্যান্সিং। ফ্রিল্যাসিং বাংলাদেশের মূখ উজ্জ্বল করে তুলছে। দিন যাচ্ছে বাংলাদেশের ফ্রিল্যান্সাররা তাদের অবস্থান শক্ত করে তুলছে। ফ্রিল্যান্সিং বিশ্বে Bangladesh এখন একটি উজ্জ্বল নক্ষত্র। আপনি নিজেও ভালভাবে গ্রাফিক ডিজাইন শিখে ফ্রিল্যান্সিং এ নিজের ক্যরিয়ার পাকাপোক্ত করে তুলতে পারেন।

উল্লেখ্য যে এ কাজ করে বাংলাদেশী ফ্রিল্যান্সাররা মাসে লক্ষ টাকার বেশী ইনকাম করে থাকে এ উদাহরনও কম নেই।

 

লোকাল ডিজাইনিংঃ

আপনি ইচ্ছে করলে আপনার পরিচিতি বাড়িয়ে বিভিন্ন লোকাল কোম্পানীর গ্রাফিক্স ডিজাইনের কাজ করে দিতে পারেন। প্রথমে একটু সময় লাগবে তারপর যখন আপনার জনপ্রিয়তা বেড়ে যাবে তখন আর আপনাকে কেউ ঠেকাতে পারবে না।

তখন দেখবেন যে আপনার চাহিদা বেড়ে গেছে।দিন যাচ্ছে Computer নিয়ন্ত্রিত কাজ বেড়েই চলেছে।তাই আপনার করতে দোষের কি?

 

কাজের জন্য শিক্ষাগত যোগ্যতাঃ

Graphic design এমন একটি কাজ যেখানে শিক্ষাগত যোগ্যতা কোন বড় বিষয় না। এ কাজের মূলকথা হল কাজের যোগ্যতা।তাই এ কাজ ভালভাবে শিখে বিভিন্ন ধরনের কাজে নিজেকে ডেভলপ করাই বড় কথা। তবে আপনাকে যেটুকু লাগবে তা হল সফটঅয়্যারের অপশন গুলো ইংরেজীতে থাকে এগুলো আপনাকে ধরতে হবে।

 

এখন আপনি বলতে পারেন তাহলে কাজ কোথায় শিখব? বর্তমান যুগে কাজ শেখার জায়গার অভাব নেই। আপনি অনলাইন অর্থাৎ ইন্টারনেটের মাধ্যমেও শিখতে পারবেন। অথবা আপনার জেলা বা উপজেলায় কোন প্রশিক্ষণ কেন্দ্র থাকলে সেখানেও শিখতে পারেন।

 

সূত্রঃ google

মন্তব্যসমূহ

কল্পবিলাসী আমি বাস্তবতা থেকে অজ্ঞাত নই। আমি সেই বিহঙ্গিনী যে ডানা ভর্তি ভালোবাসা নিয়ে পাখা মেলতে চাই চিলের সাথে সুদূর আকাশে.. ডানা ঝাপটিয়ে লিখে যেতে চাই স্বরচিত কল্পকথা ও মুক্তির মন্ত্র I

মন্তব্য করুন