কিছু টিপস সহ ফুলকো লুচি বানাবার কৌশল

কিছু টিপস সহ ফুলকো লুচি বানাবার কৌশল

আমাদের বাঙ্গালিদের অনেক পছন্দের একটি খাবার হচ্ছে লুচি। তবে সেই লুচিটি অবশ্যই ফুলকো হতে হবে। শক্ত, মচমচে কিংবা না ফোলা লুচি কিন্তু আমাদের একেবারেই পছন্দ নয়। তবে ফুলকো লুচি বানাতে গেলে সব সময় যে আমরা সফল হতে পারি তা কিন্তু নয়। বেশির ভাগ সময়েই দেখা যায় কিছু লুচি ফুলকো হচ্ছে, আবার কিছু লুচি হয়ে যাচ্ছে শক্ত। এর বিভিন্ন কারণ আছে। যেমন ময়ানের ভিন্নতা কিংবা তেলের তাপমাত্রার কম বেশি ইত্যাদি। এই সব নানা কারণে আমরা যখন লচি বানাতে যাই তখন অনেক ক্ষেত্রেই সেটা ফুলকো হয় না। আজ আমি আপনাদের এই সমস্যার কিছু সমাধাণ নিয়ে হাজির হয়ে গেছি। আজকে আমি আপনাদের সাথে ফুলকো লুচি বানাবার রেসিপি শেয়ার করব। সেই সাথে লুচি ফুলকো হবার কিছু টিপসও শেয়ার করব। আশা করি এই টিপস গুলো অনুসরণ করে লুচি বানাতে গেলে আপনার লুচিও সুন্দর ফুলকো হবে।

ফুলকো লুচি বানাতে যে যে উপকরণ দরকার হবে

  • ময়দা ১ কাপ
  • আটা ৪ টেবিল চামচ
  • সয়াবিন তেল কিংবা ঘি ২ টেবিল চামচ
  • লবণ পরিমাণ মত
  • চিনি ১/২ চা চামচ
  • উষম গরম পানি পরিমাণ মত

ফুলকো লুচি যেভাবে বানাতে হবে

১ম ধাপ

প্রথমে লুচি বানাবার জন্য খাবার পানি গরম করে নিতে হবে। পানি কিন্তু খুব বেশি গরম করা যাবে না। মোটামুটি হাত দিয়ে ছোয়া যায় এমন উষম গরম পানি নিতে হবে।

২য় ধাপ

এই বার একটা বড় পাত্রে ময়দা আর আটা নিতে হবে। এগুলোর মধ্যে পরিমাণ মত লবণ ও চিনি যোগ করতে হবে। আপনি অবশ্য ইচ্ছা হলে চিনি নাও যোগ করতে পারেন। চিনি নাদিলেও খুব একটা ক্ষতি হবেনা। হাত দিয়ে নেড়ে চেড়ে এই সমস্ত শুকনা উপকরণ এক সাথে মিশিয়ে নিতে হবে। এরপর এই মিশ্রণের মধ্যে সয়াবিন তেল দিতে হবে। ইচ্ছা হলে তেলের বদলে ঘিও যোগ করা যেতে পারে। এই বার হাত নেড়ে চেড়ে শুনা উপকরণের সাথে তেল মিশিয়ে নিতে হবে। এই কাজটা বেশ যত্ন নিয়ে করতে হবে। বেশ ভাল ভাবে মেশানোর পর দেখা যাবে ময়দার মশ্রণ বেশ ঝুরঝুরা মতন হয়ে গেছে। তখন মেশানো বন্ধ করতে হবে।

৩য় ধাপ

এই বার ময়দার ময়ানে অল্প অল্প করে উষম গরম পানি যোগ করতে হবে এবং হাত দিয়ে ময়ান দিতে হবে। বেহ কিছুক্ষণ ধরে ময়ান দিতে হবে। এতে করে ময়ানে বাতাস প্রবেশ করবে এবং লুচি বেশ মস্রিণ হবে। বেশ নরম ময়ান তৈরী করতে হবে। এ বার একটা পরিস্কার কাপড় ভিজিয়ে নিংড়ে নিতে হবে। ময়দার ময়ান এই ভেজা কাপড় দিয়ে ঢেকে দিতে হবে। ময়ান দেয়া ময়দা এই ভাবে ভেজা কাপড়ে ঢেকে রাখতে হবে আধা ঘন্টা। এর থেকে বেশি সময় রাখার দরকার নেই। এই সময়ের মধ্যে মাখানো ময়দা কিছুটা ফার্মেন্ট হবে। এবন আরো নরম হয়ে যাবে।

৪র্থ ধাপ

আধা ঘন্টা পরে ময়ান দেয়া ময়দার মিশ্রণ থেকে ছোট ছোট লেচি কেটে নিতে হবে। বেলুন ও পিড়েতে অল্প করে তেল মেখে নিতে হবে। এবং যেই পাত্রে লুচি বেলে রাখা হবে তাতেও অল্প করে তেল মেখে নিতে হবে। এতে করে লুচি বেলার সময় কিংবা বেলে রাখার সময় আটকে যাবে না। এই বার একটা একটা করে লেচি নিতে হবে এবংলুচির আকারে বেলে নিতে হবে। খুব বেশি মোটা করে বেলা যাবে না। আবার খেয়াল্ রাখতে হবে যেন রুটির  মত বেশি পাতলাও না হয়ে যায়।

৫ম ধাপ

সব গুলো লুচি বেলা হয়ে গেলে একটা কড়াতে সাদা তেল গরম করতে দিতে হবে। তেল কিন্তু খুব বেশি গরম করা যাবে না। মোটামুটি গরম হতে হবে। সাদা তেল মোটামুটি গরম হয়ে গেলে এতে একটা একটা করে লুচি ভেজে তুলে রাখতে হবে। লুচি ছেড়ে দিয়ে একটু অপেক্ষা করতে হবে। লুচির এক পিঠ হয়ে গেলে ঝাঝরি দিয়ে উলটে দিতে হবে। এরপর আবারো খুব অল্প সময় ভাজতে হবে। এরপর একটা প্লেটে তুলে নিতে হবে। গরম গরম সার্ভ করতে হবে।

ফুলকো লুচি বানাবার জরুরী কিছু টিপস এন্ড ট্রিকস

১ম টিপস

প্রথমেই বলে নেই এই রেসিপিতে ময়দার সাথে অল্প পরিমাণে আটা ব্যবহার করা হয়েছে। সাধারণত লুচি শুধু মাত্র ময়দা দিয়ে বানানো ময়ান দিয়ে তৈরী করা হয়ে থাকে। কিন্তু আমি এই রেসিপিতে আতার ব্যবহার করেছি। এর একটা কারণ আছে। আমরা যদি ময়দার ময়ানে অল্প পরিমাণে আটা মিশিয়ে নেই, তাহলে ঐ ময়ান দিয়ে বানানো লুচি অনেক বেশি নরম হয়। সেই সাথে লুচি অনেক সময় পর্যন্তও নরম থাকে। আর ময়ানে আটা ব্যবহার করা হলে লুচি ফুলে ওঠার সম্ভাবনাও বেশ খানিকটা বেড়ে যায়।

২য় টিপস

ময়ানে একটু চিনিও ব্যবহার করা হয়েছে। আসলে অনেক মনে করে থাকেন যে চিনি লুচি ফুলে উঠতে সাহায্য করে থাকে। এই ব্যাপারে আসলে সঠিক কিছু জানা যায়নি। তবে সাবধাণতার জন্য সামান্য পরিমাণে চিনি ব্যবহার করা যায়। এতে করে লুচির স্বাদেও আসলে তেমন কোন প্রভাব পরে না।

৩য় টিপস

৩য় টিপস হচ্ছে ময়দায় তেল বা ঘি ব্যবহার করা প্রসঙ্গে। অনেকের মধ্যে একটা ভ্রান্ত ধারণ আছে যে ময়দার ময়ানে যত বেশি তেল ব্যবহার করা হবে, লুচি কিংবা তত বেশি ফুলে উঠবে। এটি আসলে খুবই ভুল একটা ধারণা। ময়দার ময়ানে খুব বেশি তেল ব্যবহার করা হলে লুচি ফুলে হয়ত উঠবে। কিন্তু কিছুক্ষণ পরেই সেই লুচি একদম চুপসে যাবে। তাই এই রেসিপিতে যে পরিমাণ তেল ময়ানের মধ্যে ব্যবহার করতে বলা হয়েছে সেই পরিমাণেই ব্যবহার করতে হবে। এর থেকে বেশি কিংবা কম তেল ব্যবহার না করাই ভাল।

৪র্থ ধাপ

ময়দা ঝুরা ঝুরা করা নিয়ে অনেকেই কনফিউশনে থেকে থাকেন। অনেকে মনে করেন এই ধাপটা করা তেমন জরুরী কিছু না। এই কথা ভেবে সকলে একটা বড় ভুল করে ফেলেন লুচি বানাবার শুরুতেই। সেই ভুলটি হচ্ছে তারা ময়দার মধ্যে তেল দিয়ে প্রথমে মেখে নেন না। এক সাথে পানি আর তেল দিয়ে ময়ান দেয়া শুরু করেন। এতে করে লুচির ময়ান নরম তো হয়। কিন্তু পরবর্তিতে লুচি ভাজার সময় তা চুপসে মত যায়। এই কারণে ময়দার শুকনো মিশ্রণ অবশ্যই প্রথমে তেল দিয়ে বেশ কিছুক্ষণ ধরে মেখে নিতে হবে। এবং খেয়াল রাখতে হবে এই সময় ময়দার মিশ্রণ যেন শুকনো থাকে।

৫ম ধাপ

এই বার লুচির ময়ানে পানির ব্যবহার নিয়ে কিছু টিপস দেয়া যাক। প্রথমত ময়াদার ময়ানে কোন ভাবেই ঠান্ডা পানি ব্যবহার করা যাবে না। তাহলে লুচি একদম শক্ত হয়ে যাবে। আবার অনেক বেশি গরম পানি দিয়ে ময়ান দিলেও লুচি ভাল হবে না। এই জন্য হাত দিয়ে ধরা যায় এমন উষম গরম পানি দিয়েই ময়দাটা ময়ান দেয়া উচিত। আর কখনোই সব পানি একবারে দিয়ে দিতে যাবেন না। অল্প অল্প করে পানি দিতে হবে আর ময়দা মাখাতে হবে। কারণ এক বার যদি আপনি বেশি পানি দিয়ে ফেলেন তখন আবার নতুন করে ময়দা যোগ করতে হবে। এবং ময়ানে আটা, ময়দা ও তেলের অনুপাত নষ্ট হয়ে যাবে। ফলে ফুলকো লুচি হবে না।

৬ষ্ঠ টিপস

এই বার ফুলকো লুচি ভাজা নিয়ে কিছু টিপস দেই। প্রথমত অনেকেই যে ভুলটা করে ফেলেন তা হচ্ছে অনেক গরম তেলে লুচি ভাজতে দেন। এতে করে লুচি তেলে দেয়ার সাথে সাথেই মচমচে হয়ে যায়। তখন আর লুচি ফুলে না। এই জন্য তেল যখন গরম হয়ে মাঝারি উত্তাপে আসবে তখন লুচি দিতে হবে।

একবারে তেলের মধ্যে একটা লুচি দিতে হবে। লুচির এক পিঠ হবার সময় হাতা দিয়ে হালকা করে চেপে চেপে তেলের মধ্যে ডুবিয়ে দিতে হবে। এতে করে লুচি সুন্দর ভাবে ফুলে উঠবে। এক পিঠ ফুলে গেলে লুচি উলটে দিতে হবে। উলটো পিঠ খুব বেশি ভাজতে হবে না। ১০ সেন্ড থেকে পনেরো সেন্ড ভাজলেই হবে। তারপর তেল থেকে লুচি উঠিয়ে নিতে হবে।

৭ম টিপস

ফুলকো লুচি গুলো ভাজা হয়ে গেলে অবশ্যই একটা প্লেটের উপর টিশ্যু পেপার বিছিয়ে তারপর রাখতে হবে। কারণ ভাজা লুচির মধ্যে বেশ কিছুটা তেল রয়ে যায়। এই তেলের মধ্যে লুচি গুলো থাকলে কিছুক্ষণের মধ্যেই লুচি তেল চিপচিপে হয়ে চুপসে যাবে। টিশ্যু পেপার এই বাড়তি তেল শুষে নেবে। ফলে ফুলকো লুচি অনেকক্ষণ যাবত ফুলকো আর নরম থাকবে।

মন্তব্যসমূহ

আমি সাদিয়া রিফাত ইসলাম। একজন মা , হোমমেকার এবং ব্লগার। ভালভাসি রান্না করতে, বই পড়তে এবং লেখালেখি করতে।

মন্তব্য করুন