রূপচর্চায় নারিকেল দুধের কিছু চমকপ্রদ ব্যবহার

রূপচর্চায় নারিকেল দুধের কিছু চমকপ্রদ ব্যবহার

নারিকেল আমাদের প্রিয় একটি ফল। রান্নার বিভিন্ন কাজে নারিকেলের ব্যবহারের কথা আমরা সবাই জানি। নারিকেল তেলের মাধ্যমের চুলের যত্ন নেয়ার কথাও সবার জানা। এবং আমরা কমবেশি সবাই জানি নারিকেলের দুধ কি। নারিকেল দুধ ত্বক ও চুলের বিভিন্ন সমস্যা দূর করার পাশাপাশি সৌন্দর্য রক্ষায়ও সমানভাবে কার্যকর। চুল ও ত্বকের নানা সমস্যা খুব সহজেই দূর করা সম্ভব শুধুমাত্র নারিকেলের দুধের ব্যবহারে। তবে চলুন জেনে নেয়া যাক নারিকেল তেলের এমনই দারুণ সব ব্যবহার সম্পর্কে।

তো চলুন প্রথমেই জেনে নেয়া যাক কিভাবে নারিকেল দুধ বানাতে হয়ঃ ১/২ কাপ কোড়ানো নারিকেল ১ কাপ পরিমাণ গরম পানিতে এক থেকে দের ঘন্টা ডুবিয়ে রাখুন। পানি গুলি দুধের মতো হয়ে গেলেই নাররিকেল গুলো ছেকে দুধের মতো পানিগুলো থেকে আলাদা করেফেলতে হবে। এই দুধের মতো সাদা পানিগুলোই হল নারিকেলের দুধ।

আবার চলুন জানি ত্বক ও চুলের যত্নে এর কিছু ব্যবহারঃ

★ নারিকেল দুধের সঙ্গে মধু ও আমন্ড বাটা/পাউফার মিশিয়ে মুখে লাগিয়ে রাখুন। কিছুটা শুকানোর পর হালকা করে পাঁচ মিনিট সার্কুলার মুভমেন্টে ম্যাসাজ করে মুখ ধুয়ে নিন। ত্বকের মরা কোষ দূর হয়ে ত্বক পরিষ্কার হবে। ত্বকে আসবে ন্যাচারান গ্লো।

★ অনেকের চুল সহজেই ড্যামেজড হয়ে যায় বা রুক্ষ ও শুষ্ক হয়ে যায়। সপ্তাহে ২দিন গোসলের আগে নারিকেল দুধ স্কাল্পে ও চুলে ম্যাসাজ করলে চুল মসৃণ ও ময়েশ্চারড হয়। নারিকেল দুধ চুলে প্রয়োজনীয় ময়েশ্চার সরবরাহ করতে সিদ্ধহস্ত। তাই অনায়াসেই ড্রাই চুলের যত্নে ব্যবহার করতে পারেন।

★ নারিকেল দুধ মাথায্র ত্বক/স্কাল্পে তেলের মতো করে দিয়ে আধা ঘন্টা রেখে শ্যাম্পু করে নিলে চুল পরা কমে যায় আর নতুন চুল গজানো শুরু করে। সপ্তাহে অন্তত ২-৩ দিন ব্যবহার করুন। কয়েকমাস নিয়মিত ব্যবহার করেই ফলাফুল দেখুন নিজ চোখে।

★ নারিকেল দুধ ত্বকের মৃতকোষ দূর করতে বেশ কার্যকর। এতে থাকা ফ্যাটি এসিড ত্বকের মৃতকোষ দূর করে। এজন্য নারিকেল দুধ ও চিনি সমপরিমাণ মিশিয়ে মুখে লাগিয়ে নিন। এরপর হালকা ম্যাসাজ করে মুখ ধুয়ে ফেলুন। ত্বকের মৃত কোষ দূর হবে। ত্বক পরিষ্কার ও সতেজ থাকবে।

★ অকালে চুল পাকা এখনকার সময়ে আরেকটি বড় সমস্যা। যারা এই সমস্যার মধ্যে আছেন তারা নারিকেল তেল, আমলা পেস্ট এবং নারিকেলের দুধ সমান পরিমাণে নিয়ে চুলের গোড়ায় লাগিয়ে ৩০-৪০ মিনিট রেখে শ্যাম্পু করে ফেলবেন। নিয়মিত এই প্যাক ব্যবহার করলে চুল পাকা সমস্যা কমবে। পাশাপাশি এটি চুল ঠিক মতো বাড়তে সাহায্য করে।

★ ত্বকের মেকআপ রিমুভ করতেও নারিকেল দুধ অনায়াসে ব্যবহার করতে পারন। এ ক্ষেত্রে বাটিতে নারিকেল দুধ নিয়ে এতে তুলার বল ভিজিয়ে তা দিয়ে আলতোভাবে মুছে মুছে মেকআপ তুলে নিন। নারিকেল তেলও মেক রিমুভার হিসেবে প্রসিদ্ধ ও বহুল ব্যবহৃত একটি উপকরণ।

★ এক কাপ নারিকেলের দুধের সঙ্গে আধা কাপ লেবুর রস ও ১ চা চামচ মধু মিশিয়ে চুলের গোড়ায়/স্কাল্পে ও চুলে লাগিয়ে ১ ঘণ্টা পর ধুয়ে ফেলতে হবে। এতে চুল হবে নরম ও সুন্দর।

★ ত্বক থেকে রোদে পোড়া দাগ বা সানট্যান দূর করতে নারিকেল দুধ বেশ কার্যকর ভূমিকা রাখে। এজন্য যেখানে ট্যান পরেছে সে যায়গায় নারিকেলের দুধ লাগিয়ে নিলে ত্বকে দাগ বসে যাওয়ার হাত থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। নিয়মিত ব্যবহারে ত্বকের রোদে পোড়া কালচে দাগ একেবারেই দূর হয়ে যায়। অনেক সময় মৃদু জ্বলুনি হয় টয়ানের ফলে। নারিকেল দুধ তাৎক্ষনিক ভাবে জ্বালাপোড়া অনূভুতিও দূর করতে সহায়ক।

★ আমরা জানি শীতে ত্বকের আর্দ্রতা ধরে রাখতে ময়েশ্চারাইজার খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি উপকরণ। গোসলের সময় কুসুম গরম পানিতে এক কাপ গোলাপের পাপড়ি পেস্ট, আধা কাপ গোলাপজল ও এক কাপ নারিকেল দুধ মিশিয়ে এই মিশ্রণ শরীরে মেখে ১৫-২০ মিনিট রেখে এরপর ধুয়ে ফেলুন।

★ অতিরিক্ত কেমিকেল যুক্ত প্রোডাক্ট ব্যবহারের ফলে এবং পর্যাপ্ত যত্নের অভাবে অনেক সময় ল্ইপ বয়সেই ত্বকে বয়সের ছাপ পড়ে যায়। এই সমস্যা থেকে খুব সহজেই মুক্তি পাওয়া সম্ভব শুধুমাত্র নারিকেলের দুধের ব্যবহারে। প্রতিদিন এটি ত্বকে আলতো ম্যাসাজ করে লাগিয়ে কিছুক্ষন রেখে ক্লিন করে নিবেন। ত্বকে বয়সের ছাপ, দাগ, রিংকেল ইত্যাদি থেকে মুক্তি পাবেন সহজেই।

★ ত্বকে মেছতার ছোপ ছোপ দাগ দূর করা যায় নারিকেল দুধ ব্যবহারে। ২ টেবিল চামচ নারিকেলের দুধের সাথে ১ চা চামচ হলুদ গুঁড়ো ও ১ চা চামচ মধু ভালো করে মিশিয়ে ত্বকে লাগিয়ে নিন। ১৫ মিনিট রেখে এর পর ধুয়ে ফেলুন। প্রতিদিন সময় করে ব্যবহার করলে কিছুদিনের মধ্যেই সমাধান পাবেন।

★ চুল ভেঙে যাওয়া, অতিরিক্ত চুল পড়া এবং চুলের রুক্ষতা সকলের খুবই স্বাভাবিক সমস্যা। আবহাওয়া জনিত কারনে, পারিপার্শিক দুষন ও প্রয়োজনীয় যত্নের অভাবে এ সমস্যা গুলো এখন বেশ প্রকট। এই সমস্যার সমাধান করা যায় নারিকেলের দুধের মাধ্যমে। শ্যাম্পু করার পর পুরো চুলে এবং স্কাল্পে নারিকেল দুধ ভালো করে ম্যাসাজ করে লাগাবেন। এরপর পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। এটি ডিপ কন্ডিশনার হিসেবে কাজ করে চুলে পুষ্টি যোগায় এবং চুলের নানা সমস্যার সমাধান করে।

★ ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধি করতেও এর জুড়ি মেলা ভার। এক্ষেত্রে নারিকেলের দুধ ব্যবহারে খুব দ্রুত বেশ ভালো ফলাফল পাবেন।নারিকেল দুধে ওটস ভিজিয়ে রেখে তা দিয়ে ত্বক স্ক্রাব করে নিন প্রতিদিন। পরিবর্তন নিজের চোখেই দেখুন।

মন্তব্যসমূহ

হ্যান্ডিক্রাফটের কাজের প্রতি অগাধ ভালবাসা।প্রচুর ক্রাফটিং করি। আর বিউটি নিয়েও একটু ঘাটাঘাটি করি তাই ক্রাফট এন্ড বিউটি নিয়েই টুকটাক লিখার চেষ্টা করি।

মন্তব্য করুন