ভিন্ন ধরণের সহজ ও সরল চিকেন বিরিয়ানি রেসিপি

ভিন্ন ধরণের সহজ ও সরল চিকেন বিরিয়ানি রেসিপি

বাঙ্গালি মাত্রই ভোজন রসিক। আর এই ভোজন রসিক বাঙ্গালির প্রিয় খাবারের তালিকায় সবার উপরে স্থান পায় বিরিয়ানির নাম। একারণেই তো বাংলাদেশের অলিতে গলিতে ছোট বড় হাজারটা বিরিয়ানির হোটেল সব সময় চোখে পড়ে। বড় বড় রাস্তা গুলো তো বটেই, ছোট খাটো রাস্তার মোড়েও আজ কাল বিরিয়ানির দোকান দেখতে পাওয়া যায়। আর এই সব দোকানের মধ্যে লেগে থাকা ভীড় দেখলেই বোঝা যায় এই সব বিরিয়ানির দোকান গুলো কতটা চালু। এই সব দোকানের ভীড় আর জনপ্রিয়তা দেখেই যে কেউ আমাদের বিরিয়ানি প্রিতী অনুমান করে নিতে পারবে। এই বিরিয়ানি খেতে যতটা মজার, এটি বানাবার প্রক্রিয়া ঠিক ততটাই কঠিন ও সময় সাপেক্ষ। বিশেষ করে এই সকল বিরিয়ানির হোটেল গুলোতে যে প্রক্রিয়াতে বিরিয়ানি রান্না করা হয়ে থাকে তার প্রক্রিয়া আগের দিন রাত থেকেই শুরু হয়ে যায়। এই সব ঝামেলার জন্যই অনেকে বাসায় বিরিয়ানি রান্না করতে চান না। আজ আমি এই সব ঝামেলা ছাড়াই কিভাবে চিকেন বিরিয়ানি সহজে বানানো যায় তা শেয়ার করব।

বিরিয়ানি আসলে অনেক ভাবেই বানানো যায়। চিকেন, বিফ আর মাটন বিরিয়ানি আমাদের দেশে সব থেকে বেশি জনপ্রিয়। হোটেল গুলোতে সাধারণত এই তিন ধরণের বিরিয়ানিই বানানো হয়ে থাকে। এগুলো ছাড়াও অনেকে ডিম, মাছ কিংবা সবজি দিয়েও বিরিয়ানি বানিয়ে থাকেন। তবে এই সব ধরণের বিরিয়ানির মধ্যে সব থেকে বেশি জনপ্রিয় হচ্ছে চিকেন বিরিয়ানি। আপনি ইচ্ছা হলে বাসায় বসেও কিন্তু বেশ সুন্দর করে চিকেন বিরিয়ানি বানাতে পারেন। আপনার হয়ত মনে হচ্ছে যে বাসায় চিকেন বিরিয়ানি বানানো বেশ ঝামেলার একতা কাজ। কিন্তু আসলে ব্যাপারটা মোটেও তা নয়। আপনি ইচ্ছা হলে খুব সহজ পদ্ধতিতে এবং খুব অল্প সময় এর মধ্যেই বাসায় চিকেন বিরিয়ানি বানিয়ে নিতে পারবেন। আর এর জন্য দরকার কিছু বুদ্ধিমান টিপস আর ট্রিক্স। আজ আমি আপনাদের সাথে এরকম সহজ সরল অথচ একটু ভিন্ন স্বাদের চিকেন বিরিয়ানির রেসিপি শেয়ার করতে চলেছি।

আসুন জেনে নেই কিভাবে আপনি বাসায় অনেক কম সময় ব্যয় করে এই সহজ, সরল ও ভিন্ন স্বাদের চিকেন বিরিয়ানি বানাতে পারবেন।

চিকেন বিরিয়ানি বানাবার জন্য যে যে উপকরণ দরকার হবে

বিরিয়ানির ভাতের জন্য যে যে উপকরণ দরকার হবে

বাসমতি চাল কিংবা পোলাও চাল ২ কাপ

পানি সাড়ে ৩ কাপ

ঘি কিংবা বাটার ৩ টেবিল চামচ

লবণ পরিমাণ মত

চিনি ১ চা চামচ

আস্ত বড় এলাচ ১টি

আস্ত ছোট এলাচ ৩ থেকে ৪টি

আস্ত দারচিনি ১ টুকরা

আস্ত লবঙ্গ ৩ থেকে ৪টি

আস্ত কালো গোল মরিচ ৫ থেকে ৬টি

আস্ত তেজপাতা ১টি

বিরিয়ানি মশলা বানাবার জন্য যা যা লাগবে

আস্ত বড় এলাচ ৩টি

আস্ত ছোট এলাচ ৫ থেকে ৬টি

আস্ত দারচিনি ৩ টুকরা

আস্ত লবঙ্গ ৩ থেকে ৪টি

আস্ত জায়ফল ১টি

আস্ত জয়িত্রী ১ চা চামচ

আস্ত তেজপাতা ১টি

আস্ত শুকনা মরিচ ২ থেকে ৩টি

আস্ত কাবাব চিনি ১ চা চামচ

আস্ত কালো গ্ল মরিচ ১ চা চামচ

আস্ত সাদা গোল মরিচ ১/২ চা চামচ

আস্ত শাহি জিরা ১ চা চামচ

চিকেন রান্না করার জন্য যে যে উপকরণ দরকার হবে

চিকেন ১ কেজি

ঘি ২ টেবিল চামচ

সাদা তেল ১ টেবিল চামচ

টকদই ১ কাপ

বানানো বিরিয়ানি মশলা সম্পূর্ণ

মিহি করে কুচি করে রাখা পেঁয়াজ ১/২ কাপ

রসুন বাটা ৩ টেবিল চামচ

আদা বাটা ৩ তেবিল চামচ

মিহি করে কুচি করে রাখা টমেটো ২ চা চামচ

পানি পরিমাণ মত

লবণ পরিমাণ মত

চিনি ১ চা চামচ

হলুদ গুড়া ১/২ চা চামচ

লাল মরিচ গুড়া ২ চা চামচ

ভাজা জিরা গুড়া ১ চা চামচ

ভাজা ধনে গুড়া ১/৪ চা চামচ

পানি পরিমাণ মত

চিকেন বিরিয়ানি বানাতে আর যে যে উপকরণ দরকার হবে

আস্ত কাঁচা মরিচ ১০ থেকে ১২টি

পেঁয়াজ বেরেস্তা ৩ টেবিল চামচ

মিহি করে কুচি করে রাখা ধনে পাতা ৩ টেবিল চামচ

মিহি করে কুচি করে রাখা পুদিনা পাতা ৩ টেবিল চামচ

গোল গোল করে স্লাইস করে নেয়া লেবু ১টি

কেওড়া পানি ১ চা চামচ

গোলাপ পানি ১ চা চামচ

মিষ্টি দই দুই চা চামচ

চিকেন বিরিয়ানি যে পদ্ধতিতে বানাতে হবে

১ম ধাপ

প্রথমে বিরিয়ানি মশলা বানিয়ে নিতে হবে। এর জন্য একটা ফ্রাইং প্যানে সব রকম আস্ত মশলা নিয়ে নিতে হবে। এই সময়ে একটা ব্যাপারে খুব সতর্ক থাকতে হবে। আর তা হল ফ্রাইং প্যানে যেন কোন রকম পানি না থাকে। আর চুলার আঁচও একদম কম হতে হবে। কারণ এই চিকেন বিরিয়ানি বানাবার জন্য ব্যবহৃত আস্ত মশলা গুলো এক একতা এক এক সাইজের। একটা মশলা ভাজা হতে হতে আর একটা মশলা পুড়ে যাবার সম্ভাবনা থেকে যায়। তাই অবশ্যই সব গুলো মশলা খুব অল্প আঁচে ভেজে নিতে হবে। আর ভাজার সময় অনবরত খুনতি দিয়ে নাড়া চাড়া করতে হবে। বেশ কিছুক্ষণ ভাজার পর মশলা গুলো যখন বেশ মচমচে হয়ে যাবে তখন চুলা বন্ধ করে দিতে হবে। কিছু সসময় পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে। কিছু ক্ষণ পর যখন ভাজা আস্ত মশলা গুলো ঠান্ড হয়ে যাবে তখন ব্লেন্ডারে খুব মিহি করে গুড়া করে নিতে হবে। প্রয়োজন হলে শীল পাটাতেও বেটে নেয়া যেতে পারে। ব্যাস রেডি চিকেন বিরিয়ানির জন্য স্পেশাল বিরিয়ানি মশলা।

২য় ধাপ

এই বার বিরিয়ানির ভাত রেডি করে নিতে হবে। এর জন্য চুলার পানি বসাতে হবে। পানি ফুটে উঠলে এর মধ্যে ঘি কিংবা বাটার দিতে হবে। সেই সাথে লবণ ও চিনিও দিয়ে দিতে হবে। সেই সাথে আস্ত বড় এলাচ, ছোট এলাচ, দারচিনি, লবঙ্গ, তেজপাতাও এই সময়ে দিয়ে দিতে হবে। খুনতি দিয়ে নেড়ে চেড়ে মিশিয়ে দিতে হবে। এর পরে এর মধ্যে বাসমতি চাল যোগ করতে হবে। আপনি ইচ্ছা হলে এই সময়ে বাসমতি চালের বদলে পোলাও চালও ব্যবহার করতে পারেন। চুলার আঁচ কমিয়ে ঢাকনা দিয়ে ঢেকে দিতে হবে। চাল সিদ্ধ হয়ে গেলে চুলা বন্ধ ক্রে দিতে হবে এবং ঢাকনা খুলে দিতে হবে। আমরা আসলে ৮০% থেকে ৯০% সিদ্ধ ভাত চাই। একারণেই ঢাকনা খুলে দিতে হবে যাতে করে ভাত সিদ্ধ হবার প্রসেস বন্ধ হয়ে যায়।

৩য় ধাপ

একটা পাত্রে টক দই নিতে হবে। এর মধ্যে আগে থেকে রেডি করে রাখা চিকেন বিরিয়ানি মশলা যোগ করতে হবে। সেই সাথে হলুদ গুড়া, লাল মরিচ গুড়া, ভাজা জিরা গুড়া আর ভাজা ধনে গুড়া যোগ করতে হবে। ভাল করে মিশিয়ে নিতে হবে।

এই বার একটা করাতে ঘি ও সাদা তেল গরম করতে হবে। এর মধ্যে মিহি করে কুচি করে রাখা পে&ইয়াজ যোগ করতে হবে। খুব ভাল করে লাল লাল করে পেঁয়াজ কুচি ভেজে নিতে হবে। পেঁয়াজ গোল্ডেন ব্রাউন কালার হয়ে গেলে এর মধ্যে রসুন বাটা, আদা বাটা ও মিহি করে কুচি করে রাখা টমেটো যগ করে দিতে হবে। খুব ভাল করে কষিয়ে নিতে হবে যাতে করে বাটা মশলা থেকে কাঁচা কাঁচা ভাব একদম চলে যায়। এর পরে এর মধ্যে রেডি করে রাখা টক দই এর মিশ্রণ ঢেলে দিতে হবে। খুব ভাল মতন এই মশলার মিশ্রণ কষিয়ে নিতে হবে টক দই র সাথে।

৪র্থ ধাপ

সব মশলা ভাল মত কষানো হয়ে গেলে এর মধ্যে চিকেন যোগ করতে হবে। সেই সাথে পরিমাণ মত লবণ ও চিনি যোগ করতে হবে। চিকেন খুব ভাল মতন কষিয়ে নিতে হবে। চিকেন থেকে এমনিতেই অনেক পানি বের হয়। তাছাড়া টক দই থেকেও পানি বের হবে। এই পানিতেই চিকেন সিদ্ধ হয়ে যাবে। তার পরেও যদি দরকার হয় তবে কিছুটা পানি যোগ করা যেতে পারে। চিকেন সিদ্ধ হয়ে গেলে চুলা বন্ধ করে দিতে হবে।

৫ম ধাপ

একটা ছোট পাত্রে মিষ্টি দই, কেওড়া পানি ও গোলাপ পানি নিতে হবে। ভাল মতন মিশিয়ে নিতে হবে।

৬ষ্ঠ ধাপ

এই বার বিরিয়ানি বানাবার আসল ধাপ অর্থাত দম দেবার পালা। এর জন্য একটা তলা ভারী হাড়িতে প্রথমে কিছুটা বিরিয়ানির ভাত ছড়িয়ে দিতে হবে। এর উপর দিএ হবে কিছুটা গ্রেভি সহ চিকেন। তার উপর যথাক্রমে পেঁয়াজ বেরেস্তা, আস্ত কাঁচা মরিচ, মিহি করে কুচি করে রাখা ধনে পাতা, মিহি করে কুচি করে রাখা পুদিনা পাতা ও মিষ্টী দই, গোলাপ জল ও কেওড়া জলের মিশ্রণ অর্ধেক করে ছড়িয়ে দিতে হবে। তার উপর দিতে হবে তিন থেকে চারটি লেবুর স্লাইস। এর উপর আআরো ভাতের লেয়ার দিয়ে একই ভাবে বাকি সব উপকরণ ছড়িয়ে দুয়ে আর একটি লেয়ার তৈরী করতে হবে। সব শেষে আর অল্প কিছু ভাত দিয়ে পুরো বিরিয়ানি ঢেকে দিতে হবে। এই ভাবে একদম মৃদু আঁচে ১০ মিনিট থেকে পনেরো মিনিট চিকেন বিরিয়ানি দমে রাখতে হবে। এর পর পছন্দ মত একটা সার্ভিং ডিশে সাজিয়ে চিকেন বিরিয়ানি সার্ভ করতে হবে। ইচ্ছা হলে উপর থেকে পুদিনা পাতা কুচি কিংবা ধনে পাতা কুচি দিয়ে সাজিয়ে দেয়া যেতে পারে।

এই বিরিয়ানির ভিন্নতা হচ্ছে দমে দেবার সময়ে মিহি করে কুচি করা ধনে পাতা, পুদিনা পাতা ও লেবুর স্লাইসের ব্যবহার। এই উপকরণ গুলোর ব্যবহারের কারণে এই চিকেন বিরিয়ানি এর মধ্যে অসাধারণ একতা ফ্লেভার তৈরী হয়। আপনারা সেটা খাওয়ার সময়েই বুঝতে পারবেন।

মন্তব্যসমূহ

আমি সাদিয়া রিফাত ইসলাম। একজন মা , হোমমেকার এবং ব্লগার। ভালভাসি রান্না করতে, বই পড়তে এবং লেখালেখি করতে।

মন্তব্য করুন