মজাদার ও একেবারেই ভিন্ন স্বাদ এর চিংড়ি বাহার রেসিপি

মজাদার ও একেবারেই ভিন্ন স্বাদ এর চিংড়ি বাহার রেসিপি

মাছে ভাতে বাঙ্গালি কথাটা কিন্তু এমনি এমনি চালু হয়নি। এই কথাটা চালু হবার প্রধাণ কারণই হচ্ছে বাঙ্গালি জাতির মাছের প্রতি ভালবাসা। মাছ যে পদ্ধতিতেই রান্না করা হোক না কেন, বাঙ্গালি তা খুব খুশি মনেই খেয়ে নেবে। আর যদি একটু অন্যভাবে রান্না করা হয় তাহলে তো কথাই নেই। খাবার টেবিলে পরিবেশন করতে দেরি হতে পারে। কিন্তু তা চোখের নিমিষে শেষ হয়ে যেতে দেরি হবে না। আজ আমি আপনাদের সাথে এমনি একটি মাছ এর রেসিপি শেয়ার করতে চলেছি। আজকের রেসিপি একেবারেই ভিন্ন ধরণের একটি মাছের রেসিপি। এবং সেই সাথে এটি অত্যন্ত সুস্বাদুও বতে। আমার আজকের এই মজাদার ও একেবারেই ভিন্ন স্বাদের রেসিপিটির নাম হচ্ছে চিংড়ি বাহার।

আমরা এমনিতেই মাছ খেতে পছন্দ করি। আর তার উপরে যদি চিংড়ি মাছ হয় তাহলে তো কথাই নেই। চিংড়ি মাছ পছন্দ করেন না এমন কোন বাংলাদেশি আপনি অনেক খুজলেও কোথাও খুজে পাবেন কিনা সন্দেহ। ছোট থেকে বড়, সব বয়সের সব ধরণের মানুষেরাই এই মাছটি খুবই পছন্দ করে খেয়ে থাকেন। এমনকি যারা খুব একটা মাছ খেতে চান না তার কিন্তু চিংড়ি মাছ দেখলে মানা করেন না। বরং বেশ মজা নিয়েই খেয়ে নেন। আবার বাচ্চাদের ক্ষেত্রে দেখা যায় যে তারা খুব সহজে মাছ জাতীয় খাবার খেতে চায় না। কিন্তু যে সকল বাচ্চারা একেবারেই মাছ খেতে চায় না তার কিন্তু চিংড়ি মাছটা খুব মজা করেই খেয়ে নেয়। তাই খাবারে অনীহা আছে এমন বাচ্চাদেরকে মাছ খাওয়ানোর খুব ভাল একটা উপায় হতে পারে এই চিংড়ি বাহার।

আসলে চিংড়ি এমন একতা মাছ যেটা আপনি যেভাবেই রান্না করুন না কেন খেতে ভাল লাগবে। যে কোন সাইজের চিংড়িই আপনি ব্যবহার করুন না কেন তা কিন্তু খেতে ভাল লাগবেই লাগবে। চিংড়ি মাছের নিজস্ব স্বাদটাই এত ভাল যে এর সাথে সামান্য কিছু সাধারণ উপকরণ যোগ করেই অসাধারণ একতা রেসিপি তৈরী করে ফেলা যায়। আর সেখানে যদি আপনি কিছু ভিন্ন ধরণ এর উপকরণ ব্যবহার করেন তাহলে তো কথাই নেই।

চিংড়ি বাহার বানাবার জন্য যে যে উপকরণ দরকার হবে

চিংড়ি বাহার বানাবার জন্য আমাদের খুব বেশি ধরণ এর উপকরণ কিন্তু দরকার হবে না। আমাদের হাতের কাছে যে সকল উপকরণ পরে থাকে সেগুলো ব্যবহার করেই কিন্তু এই চিংড়ি বাহার রেসিপিটি তোইরী করা হয়েছে। আসুন কি কি উপকরণ ব্যবহার করে এই চিংড়ি বাহার বানাতে হবে তা জেনে নেয়া যাক। আর সে সাথে এই উপকরণ গুলো আসলে কত টুকু পরিমাণে দরকার হবে তাও জেনে নেই চলুন।

চিংড়ি মেরিনেট করার জন্য যা যা উপকরণ দরকার হবে

চিংড়ি ১০ থেকে ১২টি

আদা বাটা ১ চা চামচ

রসুন বাটা ১ চা চামচ

হলুদ গুড়া ১/২ চা চামচ

লাল মরিচ গুড়া ১ চা চামচ

লবণ পরিমাণ মত

ভাজা পাঁচফোড়ন গুড়া

চিনি খুব সামান্য

মূল রান্না করার জন্য আর যে যে উপকরণ দরকার হবে

সাদা তেল ৩ টেবিল চামচ

ঘি ১ চা চামচ

মিহি করে কুচি করে রাখা পেঁয়াজ ৩ টেবিল চামচ

মিহি করে কুচি করে রাখা টমেটো ২ তেবিল চামচ

নারকেল বাটা ২ টেবিল চামচ

ভাজা জিরা গুড়া ১ চা চামচ

কালো গোল মরিচ গুড়া ১ চা চামচ

লবণ পরিমাণ মত

পানি অল্প পরিমাণ

টমেটো সস ১ চা চামচ

চিংড়ি বাহার বানাবার সহজ পদ্ধতির ধাপ সমূহ

আগেই বলে নিয়েছি যে চিংড়ি বাহার খুব সহজে বানানো যায়। আপনি হয়ত এর টেস্ট খেয়ে বুঝতেই পারবেন না যে এটি এত সহজে বানানো হয়েছে। তবে এই সহজ রেসিপিটিও কিন্তু একাধিক ধাপ অতিক্রম করে বানাবার দরকার হয়। আসলে এই রান্নাটি করার আগে চিংড়ি গুলো কিছুক্ষণ মেরিনেট করে রাখার দরকার হয়। এই মেরিনেশন প্রসেসটা কিন্তু খুব বেশি সময় নেয় না। মাত্র দশ মিনিট থেকে বারো মিনিট সময় ধরে চিংড়ি মাছ গুলো মেরিনেট করে রাখলেই হবে। এর থেকে বেশি সময় চিংড়ি মেরিনেট করে রাখার কোন দরকারই নেই। এই কারণে এই রান্নাটা শেষ করতে আপনার খুব একটা সময় লাগবে না বললেই চলে। আসুন চিংড়ি বাহার রান্না করার ধাপ গুলো একে একে জেনে নেয়া যাক।

১ম ধাপ

চিংড়ি গুলো খোসা ছাড়িয়ে ভাল করে পরিস্কার করে নিতে হবে। আপনি এই রেসিপির জন্য যে কোন সাইজের চিংড়ি মাছ ব্যবহার করতে পারেন। তবে আমার মতে মাঝারি সাইজের চিংড়ি দিয়ে এই রান্নাটি করতে পারলে সব থেকে বেশি ভাল হয়। এতে করে এই চিংড়ি বাহার খেতে সব থেকে বেশি ভাল লাগবে।

একটা পাত্রে চিংড়ি মাছ গুলো নিয়ে নিতে হবে। এর সাথে আদা বাটা, রসুন বাটা, লাল মরিচ গুড়া, হলুদ গুড়া আর লবণ মেখে নিতে হবে। এই সময় আর একটি ভিন্ন ধরণ এর উপকরণ চিংড়ি মাছ গুলোর সাথে যোগ করতে হবে। সেই উপকরণটি হচ্ছে অল্প পরিমাণে ভাজা পঁচফোড়ন এর গুড়া। এই উপকরণটি আমাদের জন্য একটু নতুন ধরণের। আসলে শুকনো পাঁচফোড়ন একটা শুকনা ফ্রাইং প্যানে চার মিনিট থেকে পাঁচ মিনিট মিডিয়াম আঁচে ভেজে নিতে হবে। এর পরে এই ভাজা পাঁচফোড়ন কিছু সময় রেখে ঠান্দা করে নিতে হবে। ভাজা পাঁচফোড়ন ঠান্ডা হয়ে রুম টেম্পারেচারে আসলে এটিকে মিহি করে গুড়া করে নিতে হবে। ব্যাস রেডি ভাজা পাঁচফোড়ন এর গুড়া। এই মশলাটি যে শুধু চিংড়ি বাহার বানাবার জন্য ব্যবহার করতে হবে তা কিন্তু নয়। যে কোন ডাল কিংবা ভাজিতেও রান্না শেষে এই পাঁচফোড়ন গুড়া ছড়িয়ে দিলে খেতে দারুণ লাগবে।

চিংড়ি মাছ এর সাথে সব গুলো মেরিনেট এর উপকরণ খুব ভাল ভাবে মেখে নিতে হবে। চিংড়ি মাছ গুলো এই অবস্থায় রেখে দিতে হবে দশ মিনিট থেকে পনেরো মিনিট। ব্যস মেরিনেশন রেডি। আপনি ইচ্ছা হলে মেরিনেট করা চিংড়ি মাছ গুলো ফ্রিজেও রেখে দিতে পারেন। এতে করে মেরিনেশন প্রসেওস আরো ভাল হবে।

২য় ধাপ

এই বার চুলায় একটা কড়াতে সাদা তেল ও ঘি দিতে হবে। তেল ও ঘি এর মিশ্রণ গরম হয়ে গেলে এর মধ্যে মিহি করে কুচি করে রাখা পেঁয়াজ যোগ করতে হবে। পেঁয়াজ কুচি বেশ সুন্দর করে লাল লাল করে ভেজে নিতে হবে। পেঁয়াজ কুচি গোল্ডেন ব্রাউন কালার হয়ে গেলে এর মধ্যে মেরিনেট করা চিংড়ি মাছ গুলো সাবধানে তুলে দিতে হবে। মেরিনেট করা মশলা গুলো রেখে দিতে হবে প্রে ব্যবহার করার জন্য। তেল এর মধ্যে চিংড়ি মাছ গুলো এপিঠ ওপিঠ করে লাল করে ভেজে নিতে হবে।

৩য় ধাপ

চিংড়ি মাছ এর দুই পিঠ লাল লাল করে ভাজা হয়ে গেলে এর মধ্যে মিহি করে কুচি করে রাখা টমেটো যোগ করতে হবে। টমেটো গলে না যাওয়া পর্যন্ত ভাজতে হবে। খুব বেশি সময় লাগবে না। দুই মিনিট থেকে তিন মিনিটের মধ্যেই টমেটো গলে যাবে। তখন মেরিনেট করে রাখা মশলা টুকু এর মধ্যে ঢেল দিতে হবে। বেশ ভাল করে কষাতে হবে।

মশলা গুলোর কাঁচা ভাব দূর হতে শুরু করলে এর মধ্যে নারকেল বাটা, টমেটো সস আর অল্প পরিমাণে লবণ যোগ করতে হবে। ভাল মত চিংড়ি মাছ এর সাথে কষাতে হবে। দরকার হলে অল্প অল্প করে সামান্য পানি যোগ করা যেতে পারে। এই সময়ে ভাজা জিরা গুড়া ও কালো গোল মরিচ গুড়াও যোগ করে দিতে হবে। অল্প পরিমাণে পানি যোগ করতে হবে। ঢাকা দিয়ে চার মিনিট থেকে পাঁচ মিনিট রান্না করতে হবে। ব্যাস রেডি মজাদার ও একদম ভিন্ন স্বাদ এর সহজ রেসিপি চিংড়ি বাহার।

মন্তব্যসমূহ

আমি সাদিয়া রিফাত ইসলাম। একজন মা , হোমমেকার এবং ব্লগার। ভালভাসি রান্না করতে, বই পড়তে এবং লেখালেখি করতে।

১ টি মন্তব্য
  1. Reply মজাদার ও ভিন্ন স্বাদের গুড়া চিংড়ির পাকোড়া | চটপট - এসো নিজে করি এপ্রিল ১৭, ২০১৯ তারিখে ৩:২২ অপরাহ্ন

    […] চিংড়ি মাছ এমনি একটি খাবার যেটা যে কোন ভাবেই রান্না করা হোক না কেন, সকলেই তা পছন্দ করবে। চিংড়ি মাছ পছন্দ করেন না এমন মানুষ সহজে খুজে পাওয়া যাবে না। এমনকি যে সকল মানুষ মাছ খেতে খুব একটা পছন্দ করেন না তারাও কিন্তু চিংড়ি মাছ খুব পছন্দ করেই খেয়ে থাকেন। আর মাছ প্রিয় মানুষ হলে তো কথাই নেই। চিংড়ি মাছ খেতে তাদেরকে বলতেও হয় না। নিজে থেকেই খেয়ে নেন। আর চিংড়ি মাছের রেসিপিরও কিন্তু কোন অভাব নেই। নানা ভাবে নানা পদ্ধতিতে আর নানা রকম এর উপকরণ ব্যবহার করে কিন্তু চিংড়ি মাছ রান্না করা যায়। তবে এত সকল রেসিপির মধ্যে বেশির ভাগই হয়ে থাকে বড় কিংবা মাঝারি সাইজ এর চিংড়ি মাছ ব্যবহার করে। কিন্তু আর একটি মজাদার চিংড়ি মাছ এর কথা আমরা সকলেই প্রায় ভুলে যাই। সেটি হচ্ছে গুড়া চিংড়ি। আজ সেই গুরা চিংড়ির একটি রেসিপি শেয়ার করব। রেসিপিটি হচ্ছে মজাদার ও ভিন্ন স্বাদের গুড়া চিংড়ির পাকোড়া। […]

মন্তব্য করুন