একটু ভিন্ন ধরণ এর পিয়াজু রেসিপি

একটু ভিন্ন ধরণ এর পিয়াজু রেসিপি

দেখতে দেখতে রমযান মাস কিন্তু আমাদের দোড় গোড়ায় একদম চলে এসেছে বললেই চলে। এই রমযান মাসে সারা দিন রোজা রাখার পর সন্ধ্যার ইফতার মন মত না হলে যেন সারা দিনটাই মাটি হয়ে যায়। আর এই সন্দ্যার ইফতারে আমাদের বাঙ্গালিদের একটা খাবার কিন্তু না হলে একদমই চলে না। সেটি হচ্ছে মজাদার ও মচমচে পিয়াজু। আপনি যত রকম এর আর যত ধরণ এর ইফতারই বানান না কেন, ইফতার এর টেবিলে পিয়াজু না থাকলে কিন্তু বাসার প্রতিটা সদস্যের মন একদম খারাপ হয়ে যাবে। তাই আমাদের দেশের রমযান মাসে ইফতার এর টেবিলে যে কয়টি খাবার অতি অবশ্যই থাকতে হবে তার মধ্যে ছোলা, খেজুর আর শরবত এর সাথে পিয়াজুর নামও কিন্তু প্রায় সব সময়ই এসে যায়। তবে বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই আমরা ঘুরে ফিরে সেই একই ভাবে পিয়াজু বানিয়ে থাকি। কিন্তু আজ আমি আপনাদের সাথে একদম ভিন্ন ধরন এর একটি পিয়াজু রেসিপি শেয়ার করতে চলেছি যেটা আপনার বাসার সবারই পছন্দ হবে গ্যারান্টিড।

আমি আজ আপনাদের সাথে যেই পিয়াজু রেসিপি শেয়ার করতে চলেছি সেটি আমরা ট্রাডিশনাল ভাবে যে পিয়াজু বানিয়ে থাকি তা থেকে বেশ আলদা রকম ভাবে বানানো হয়ে থাকে। আসলে ট্রাডিশনাল ভাবে আমরা যখন বাড়িতে পিয়াজু বানিয়ে থাকি তখন মূলত আমরা কাঁচা মসুর ডাল বাটা ব্যবহার করে থাকি। এমনকি ইফতার বানাবার দোকান গুলোতেও কিন্তু পিয়াজু বানাবার জন্য মসুর ডাল বাটাই ব্যবহার করা হয়ে থাকে। তবে কিছু কিছু দোকান আছে তারা ইফতার এর জন্য পিয়াজু বানাবার সময় মসুর দাল বাটা ব্যবহার করে না। বরং মসুর ডাল এর বদলে তারা মুগ ডাল বাতা ব্যবহার করে থাকে। আর এই মুগ ডাল বাতা ব্যবহার করার কারণে তাদের পিয়াজু থেকে অন্য রকম একটা স্বাদ আর সুগন্ধ পাওয়া যায়। স্বাভাবিক ভাবেই অন্য যে কোন ইফতার এর দোকানের থেকে তাদের বিক্র বেশি হয়ে থাকে।

আমরা অনেক সময়ই ভাবি সাধারণ একতা পিয়াজুর মধ্যে এই সব বাবুর্চিরা এই রকম অসাধারণ স্বাদ কিভাবে যোগ করে থাকেন। আসুন আজ আপনাদেরকে এই সিক্রেটটাই জানিয়ে দেই।

পিয়াজু রেসিপি বানাতে যে যে উপকরণ দরকার হবে

আমি আজ আপনাদের সাথে পিয়াজু বানাবার জন্য যে ভিন্ন ধরণ এর রেসিপি শেয়ার অরব তাতে খুব বেশি ভিন্ন ধরণ এর উপকরণ কিন্তু আমাদের দরকার হবে না। আমাদের সাধারণ পিয়াজু বানাবার জন্য যে সকল উপকরণ আমরা ব্যবহার করে থাকি সাধারণত সেই সকল উপকরণ দিয়েই এই ভিন্ন স্বাদ এর পিয়াজু বানানো হবে। তবে সেই সকল উপকরণ এর সাথে সম্পূর্ণ ভিন্ন যেই উপকরণটি ব্যবহার করা হবে সেটি হচ্ছে মুগ ডাল। আর এই মুগ ডাল ছাড়া আরো বেশ কয়েকটি উপকরণ ব্যহার করা হবে এই পিয়াজুর স্বাদ বৃধি করার জন্য। তাহলে আসুন দেরি না করে কি কি উপকরণ ব্যবহার করে আসলে এই ভিন্ন ধরণ এর পিয়াজু বানাতে হবে তা জেনে নেয়া যাক। সেই সাথে এই উপকরণ গুলো মোটামুটি কত টুকু পরিমাণে ব্যবহার করতে হবে তারও একটা পরিমাপ আপনাদের জানিয়ে দেই চলুন।

মিহি করে কুচি করে রাখা পেঁয়াজ ১ কাপ

মুগ ডাল ১ কাপ

লবণ পরিমাণ মত

মিহি করে কুচি করে রাখা রসুন ১ চা চামচ

মিহি করে কুচি করে রাখা কাঁচা মরিচ ২ চা চামচ

মিহি করে কুচি করে রাখা টমেটো ১ টেবিল চামচ

মিহি করে কুচি করে রাখা ধনে পাতা ২ চা চামচ

মিহি করে কুচি করে রাখা পুদিনা পাতা ১ চা চামচ

ভাজা জিরা গুড়া ১ চা চামচ

ভাজা ধনে গুড়া ১ চা চামচ

কালো গোল মরিচ গুড়া ১ চা চামচ

ভাজা গরম মশলা গুড়া ১ চা চামচ

কর্ণফ্লাওয়ার ১ চা চামচ

চালের গুড়া ১ চা চামচ

বেসন পরিমাণ মত

সাদা তেল ডুবো তেলে ভাজার জন্য

ভিন্ন স্বাদ এর পিয়াজু রেসিপি বানাবার সম্পূর্ণ পদ্ধতি

ভিন্ন স্বাদ এর এই পিয়াজু বানাতে খুব বেশি সময় কিন্তু দরকার হয় বা। সব কিছু হাত দিয়ে ভাল ভাবে মেখে সাদা ডুবো তেলে ভেজে নিলেই কিন্তু পিয়াজু রেডি। আর মুগ ডাল গলে যাবার জন্য মসুর দালের থেকে কম সময় দরকার হয়। এই কারণে এই ভিন্ন স্বাদ এর পিয়াজু রান্না করতে সাধারণ ত্রাডিশনাল পিয়াজু থেকে কিন্তু কম সময় এর দরকার হয়। তবে চটপট করে এই ভিন্ন স্বাদ এর পিয়াজু বানাবার জন্য আগে থেকে কিছু প্রস্তুতি নিয়ে রাখতে হয়। এই যেমন সব্রকম প্রয়োজনীয় মশলা ও পিয়াজ কুচি করে রাখা, কিংবা মুগ ডাল সঠিক নিয়মে বেটে রাখা ইত্যাদি। এই কাজ গুলো যদি আমরা সকাল সকাল করে রাখতে পারি তাহলে ইফতারের সময় এই ভিন্ন স্বাদ এর মুগ ডাল এর পিয়াজু বানাবার জন্য খুব বেশি সময় এর কিন্তু দরকার আমাদের হবে না। তাহলে আসুন দেরি না করে এই ভিন্ন স্বাদ এর মুগ ডাল এর পিয়াজু বানাবার ধাপ গুলো একে একে জেনে নেয়া যাক।

১ম ধাপ

এই রান্নাটি করার জন্য মুগ ডাল রেডি করতেই সব থেকে বেশি সময় লাগে।তাই রান্না করার শুরুতেই এই মুগ ডাল রেডি করে  নেয়াটাই অব থেকে বুদ্ধিমান এর কাজ হবে। এই জন্য প্রথমে কাঁচা মুগ ডাল একটা শুকনা ফ্রাইং প্যানে খুব ভাল করে ভেজে নিতে হবে। এই সময় চুলার আঁচ একদম কম রাখতে হবে। এবং খুনতি দিতে এক ভাবে মুগ ডাল নাড়া চাড়া করতে হবে। তা না হলে মুগ ডাল হটাত করে পুড়ে যেতে পারে। মুগ দাল খুব বেশি সময় ধরে ভাজার দরকার নেই। মুগ ডাল থেকে খুব সুন্দর একটা গন্ধ বের হওয়া শুরু করলেই চুলা বন্ধ করে দিতে হবে। এর জন্যও খুব এবশি সময় আমাদের দরকার হবে না। মোটামুটি ৩ মিনিট থেকে ৪ মিনিট ভাজলেই মুগ ডাল থেকে সুন্দর খুশবু আসা শুরু করবে। তখন চুলা বন্ধ করে মুগ ডাল গুলো একটা পাত্রে নামিয়ে নিতে হবে।

২য় ধাপ

ভেজে নেয়া মুগ ডাল গুলো কিছু সময় রেখে দিতে হবে যাতে করে এই গুলো হালকা ঠান্ডা হতে শুরু করে। এর পরে পানি দিয়ে খুব ভাল করে ভাজা মুগ ডাল ধুয়ে সাফ করে নিতে হবে। মুগ ডাল ভাল করে সাফ করা হয়ে গেলে বেস হ খানিকটা পানি দিয়ে ভাজা মুগ ডাল গুলো ভিজিয়ে রাখতে হবে। মোটামুটি দুই ঘন্টা থেকে তিন ঘন্টা ভিজিয়ে রাখলেই হবে। এর থেকে বেশি সময় নিয়ে ভেজানোর দরকার নেই। এই সময় এর মধ্যেই মুগ ডাল গুলো পানির সাথে ভিজে নরম হয়ে যাবে। তখন ভেজানো মুগ ডাল থেকে পানি ঝরিয়ে নিয়ে এই গুলো বেশ মিহি করে বেটে নিতে হবে।

৩য় ধাপ

একটা পাত্রে মিহি করে কুচি করে রাখা পেঁয়াজ, রসুন, টমেটো ও কাঁচা মরিচ নিতে হবে। সেই সাথে মিহি করে কুচি করে রাখা ধনে পাতা ও পুদিনা পাতাও ন্তে হবে। এর সাথে পরিমণ মত লবণ যোগ করতে হবে। হাত দিয়ে খুব ভাল করে মাখাতে হবে। এতে করে এই মিশরণ এর মধ্যে হালকা পানি ছেড়ে দেবে। তখন একে একে ভাজা জিরা গুড়া, ভাজা ধনে গুড়া, কালো গোল মরিচ গুড়া ও ভাজা গরম মশলা গুড়াও যোগ করে দিতে হবে। খুব ভাল করে এই সকল মশলা একে অন্যের সাথে মেখে নিতে হবে।

৪র্থ ধাপ

এই বার এই মশলার মিশ্রণ এর মধ্যে আগে থেকে বেটে রাখা মুগ ডাল যোগ করতে হবে। ভাল মতন মেকেহে নিতে হবে। এর মধ্যে কর্ণফ্লাওয়ার ও চালের গুড়া যোগ করতে হবে। এই দুও উপকরণ যোগ করার কারণে এই পিয়াজু অনেক বেশি মচমচে হয়ে উঠবে। এর পরে প্রয়োজন অনুযায়ী বাইন্ডিং এর জন্য অল্প বেসন যোগ করতে হবে। মুগ ডাল বাটা এমনিতেই বাইন্ডিং এর কাজ করে। তাই বাইন্ডিং এর উপকরণ গুলো খুব বেশি ব্যবহার করার দরকার হবে না। অল্প করে ব্যবহার করলেই চলবে। এই বার এই সকল উপকরণ এক সাথে খুব ভাল ভাবে মেখে নিতে হবে। রেডি ভিন্ন স্বাদ এর পিয়াজুর জন্য ভিন্ন ধরণ এর ডো।

৫ম ধাপ

এই বার পিয়াজু বানাবার জন্য একটা বড় ফ্রাইং প্যানে বেশি করে সাদা তেল গরম করতে হবে। সাদা তেল গরম হয়ে গেলে এই গরম তেল থেকে খুব সাবধানএ এক চা চামচ তেল উঠিয়ে সেটি পিয়াজু বানাবার ডো এর মধ্যে মিশিয়ে দিতে হবে। এতে করে পিয়াজু অনেক বেশি মুচমুচে হবে এবং বেশি সময় পর্যন্ত এর মুচমুচে ভাব বজায় থাকবে। এই বার ডো থেকে অল্প অল্প করে মিশ্রণ উঠিয়ে পিয়াজুর শেপে গুড়ে নিতে হবে। এবং ডুবো গরম সাদা তেলে ডিপ ফ্রাই করে নিতে হবে। এই কাজটা করতে হবে মিডিয়াম আঁচে। তা না হলে দেখা যাবে যে পিয়াজু গুলো বাইরে থেকে মচমচে ও লালচে হয়ে ভাজা হয়ে গেছে। কিন্তু এর ভিতরে হয়ত কাঁচা থেকে যেতে পারে। তাই ভিতরে ও বাইরে সমান ভাবে ভাজার জন্য পিয়াজু গুলো খুব সুন্দর করে মিডিয়াম আঁচে একটু সময় নিয়ে ভেজে নিতে হবে। পিয়াজুর দুই পিঠ সুন্দর করে লালচে করে ভাজা হয়ে গেলে গরম তেল থেকে উঠিয়ে নিতে হবে। এর পরে ইফতারে গরম গরম পরিবেশন করতে হবে। দুই পিঠ ভাজার জন্য মোটামুটী চার মিনিট থেকে পাঁচ মিনিট করে সময় লাগতে পারে। এই সময়টা ধোয়্ররয ধরে একটু অপেক্ষা করতে হবে। তা না হলে পিয়াজু ভাল হবেনা।

এই ভিন্ন স্বাদ এর মুগ ডাল এর পিয়াজু কিন্তু ইফতার ছাড়াও অন্য সময়েও বেশ ভাল লাগে। বিশেষ করে সন্ধ্যার নাস্তার টেবিলে এক কাপ গরম গরম চা কিংবা কফির সাথেও টা হিসেবে এই মুগ ডাল এর ভিন্ন স্বাদ এর পিয়াজু বেশ ভালই চালিয়ে দেয়া সম্ভব। আর এর সাথে যদি ইচ্ছা হয় তবে তেঁতুল এর সস কিংবা টমেটোরচাটনি সার্ভ করা যেতে পারে। আবার ইচ্ছা হলে আপনি এটি সাধারণ টমেটো সস দিয়েও খেয়ে দেখতে পারেন। আসলে যেভাবেই খাওয়া হোক না কেন, এই ভিন্ন স্বাদ এর মুগ ডাল এর পিয়াজু যেভাবেই মুখরোচক লাগে। এক বার বানিয়ে খেয়েই দেখুন না। আপনার প্রশংসার ন্যা বয়ে যাবে ইফতার এর টেবিলে।

মন্তব্যসমূহ

আমি সাদিয়া রিফাত ইসলাম। একজন মা , হোমমেকার এবং ব্লগার। ভালভাসি রান্না করতে, বই পড়তে এবং লেখালেখি করতে।

মন্তব্য করুন