যত্ন নিন হাত-পায়েরও

যত্ন নিন হাত-পায়েরও

মুখের তুলনায় হাত-পায়ের যত্ন তুলনামূলকভাবে সবসময়েই কম নেওয়া হয়, আর এজন্য মুখের তুলনায় হাত ও পায়ের রং কালো দেখা যায়। তাছারা হাত-পায়ের ব্যবহার আমাদের শরীরের অন্যান্য অর্গান গুলোর তুলনায় অনেকাংশেই বেশি। আমরা প্রতিদিনই দুই হাতে অনেক ধরনের কাজ করি এবং দুই পায়ের কাজ তো আছে হাঁটাহাঁটি করা। তাই আমাদের নিয়মিত হাত ও পায়ের যত্ন নেওয়া প্রয়োজন। নিয়মিত যত্ন নিলে আপনার হাত ও পা থাকবে নরম, কোমল ও মসৃণ। কিন্তু সেই যত্ন অবশ্যই হতে হবে যথাযথ আর এই যত্ন কীভাবে নিবেন তা নিয়েই আমার আজকের এই লিখা। চলুন জেনে নিই কিছু সহজ টিপস

১। পা সুন্দর রাখতে চাইলে একটি পাত্রে কুসুম গরম পানি ও সামান্য লেবুর রস মিশিয়ে ২০ মিনিট পা ভিজিয়ে রাখুন। এতে আপনার পায়ের সানবার্ন ও পায়ে থাকা দূর্গন্ধ দুর হবে এবং পা ফর্সা হবে।

২। কনুইয়ের খসখসে ও কালো ভাব দূর করতে বাদাম তেল ও তিলের তেল একসাথে মিশিয়ে কনুই ম্যাসাজ করতে পারেন। এক্ষেত্রে লেবুর খোসা ঘসলেও ভাল ফল পেতে পারেন।

৩। রোদে পোড়া দাগ বা সানবার্ণ দূর করতে টক দইয়ের প্যাক বিশেষ উপকারী। সমপরিমাণে শশার পেস্ট ও টক দই মিশিয়ে প্যাক বানিয়ে হাত-পায়ে লাগিয়ে নিন। নিয়মিত ব্যবহারে এটি আপনার হাত-পায়ের ত্বকে গ্লো নিয়ে আসবে।

৪। রাতে ঘুমানোর আগে হাত-পায়ে ভালো মানের ময়েশ্চারাইজার লাগিয়ে ঘুমালে সকালে পাবেন কোমল ও নমনীয় ত্বক।

৫। মোটা দানার চিনি ও লেবুর রস একসাথে করে পেস্ট বানিয়ে দুই হাতে ঘষুন ১০-১৫ মিনিট। তারপর হালকা গরম পানিতে ধুয়ে ফেলুন। হাত-পায়ের মৃত কোষ ও লেগে থাকা ময়লা সব পরিষ্কার হয়ে যাবে।

৬। হাত ও পায়ের নিয়মিত অলিভ অয়েল অথবা আমন্ড অয়েল ব্যবহার করুন। সাথে চাইলে দু-তিন ফোঁটা এসেন্সিয়াল অয়েল ও যোগ করে নিতে পারেন। এটি আপনার হাত-পায়ের ত্বক খসখসে হবেনা। থাকবে কোমল ও মসৃণ।

৭। হাত-পা যাদের শুষ্ক হয়ে যায় তারা কোকোয়া বাটার বা শিয়া বাটার সমৃদ্ধ ভাল লোশন ব্যবহার করতে পারেন নিয়মিত। চাইলে সাথে দু-তিন ফোঁটা এসেন্সিয়াল অয়েল ও যোগ করে নিতে পারেন। এতে ভাল কাজ দেবে।

এবার চলুন যেনে নিই কিছু প্যাক বানানোর পদ্ধতি –

বেসন ও মিল্ক পাউডারের প্যাক

৪-৫ টেবিল চামচ বেসন নিন। সাথে যোগ করুন ২ টেবিল চামচ গুঁড়ো দুধ আর সমপরিমান মধু। এবার উপকরনগুলো একসাথে মিশিয়ে প্যাক তৈরী করে হাত-পা এবং চাইলে শরীরের অন্যান্য স্থানে লাগিয়ে রাখুন কমপক্ষে ২০ মিনিট। নিয়মিত ব্যবহারে এটি ত্বক কোমল মসৃণ ও উজ্জ্বল করবে।

আমন্ড ও নারকেলের দুধের প্যাক

১ টেবিল চামচ আমন্ড/ কাঠবাদাম পেস্ট ও ১ কাপ নারকেলের দুধের সঙ্গে পরিমাণমতো বেসন মিশিয়ে প্যাক তৈরি করে নিন। হাত-পায়ে লাগিয়ে কিছুক্ষণ রেখে ভালো করে আলতো ভাবে ম্যাসাজ করে ধুয়ে ফেলুন। এই প্যাকটি সপ্তাহে ১ থেকে ২ দিন এই প্যাক ব্যবহারে হাত ও পায়ের আর্দ্রতা বজায় থাকবে। এবং এটি ব্যবহারের সঙ্গে সঙ্গে ত্বক হয়ে উঠবে উজ্জ্বল ও মসৃণ।

ব্রাউন সুগার ও এলোভেরার প্যাক

৪ টেবিল চামচ ফ্রেশ এলোভেরা পাল্প বা জেলের সাথে ২ টেবিল চামচ ব্রাউন সুগার ও ১ টেবিল চামচ গোলাপ পাপড়ির রস মিশিয়ে একটি প্যাক/স্ক্রাব তৈরি করে নিন। এটি ত্বকে লাগিয়ে রাখুন ৫ মিনিট তারপর আলতো ভাবে কয়েক মিনিট ম্যাসাজ করে ধুয়ে ফেলুন। এটি হাত-পায়ের মৃত কোষ দূর করার সাথে সাথে ত্বকে অনেক প্রয়োজনীয় পুষ্টি উপাদান যোগ করবে। ত্বকে আনবে উজ্জ্বল আভা। রুক্ষ ত্বকে আনবে প্রাণের ছোঁয়া।

কমলার খোসা ও চালের গুঁড়ার প্যাক

২ টেবিল চামচ কমলার খোসা বাটার সঙ্গে সমপরিমান চালের গুঁড়া ও প্রয়োজনে পরিমান মত গোলাপজল মিশিয়ে একটি প্যাক তৈরি করে হাত-পায়ে লাগাতে পারেন। শুকিয়ে যাওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করে তারপর আলতো ভাবে ম্যাসাজ করে ধুয়ে ফেলুন। নিয়মিত ব্যবহারে এটি ত্বকে গ্লো নিয়ে আসবে।

ডিমের কুসুম ও ওটসের প্যাক

১ টি ডিমের কুসুম, ১ চা-চামচ অলিভ অয়েল ও ৩ টেবিল চামচ ওটমিল/ওটস ক্রাশ করে একসাথে মিশিয়ে পেস্ট করে ১৫ মিনিট হাত ও পায়ে লাগিয়ে রাখুন। প্যাক শুকিয়ে গেলে মধু মেশানো দুধ দিয়ে ভালোভাবে হাত ও পা ম্যাসাজ করে নিন। যাঁদের হাত ও পা অতিরিক্ত শুষ্ক, গ্লো নেই/প্রাণহীন দেখায় তাঁদের জন্য এই প্যাক খুবই কার্যকর। পাশাপাশি এটি ত্বকে উজ্জ্বলতা ও আনবে।

এছারাও হাত-পায়ের যত্নের জন্য মাসে অন্তত দুবার বাড়িতে অথবা ভালো কোনো পার্লারে গিয়ে এক্সপার্টের তত্ত্বাবধানে ম্যানিকিউর ও পেডিকিউর করা উচিত।



মন্তব্যসমূহ

হ্যান্ডিক্রাফটের কাজের প্রতি অগাধ ভালবাসা।প্রচুর ক্রাফটিং করি। আর বিউটি নিয়েও একটু ঘাটাঘাটি করি তাই ক্রাফট এন্ড বিউটি নিয়েই টুকটাক লিখার চেষ্টা করি।

মন্তব্য করুন