ছোলা ডিম এর সালাদ

ছোলা ডিম এর সালাদ

রোজার মাসে আমাদের দেশের সব থেকে কমন খাবার হচ্ছে ছোলা। রোজ ইফতারের টেবিলে আর কোন খাবার থাকুক কিংবা নাই থাকুক, এক বাটি ছোলা আমাদের চাই ই চাই। তবে প্রতি দিন ইফতারের টেবিলে ছোলা সাধারণত আমরা ভুনা করে খেয়ে থাকি। কিন্তু সারা দিন রোজা রেখে আ খেয়ে থেকে তার পরে ঝাল মশলা আর তেল দিয়ে ভুনা করা এই ছোলা আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য কিন্তু মোটেই ভাল হতে পারে না। রোজ রোজ খালি পেটে এই ভাবে মশলাদার ছোলা ভুনা খেলে তা আমাদের জন্য ক্ষতির কারণ হয়ে দাড়াতে পারে। হতে পারে গ্যাস, পেট ব্যাথা সহ নানান রকম এর সমস্যা। কিন্তু তাই বলে কি রোজার মাসে আমরা ছোলা খাব না? কেন নয়। তবে একটু অন্য ভাবে। সামান্য একটু রদ বদল করে রান্না করলেই কিন্তু এই অস্বাস্থ্যকর ছোলাই খুব স্বাস্থ্যকর একটি খাবার হয়ে উঠতে পারে। সেরকমই একটি রেসিপিহচ্ছে মজাদার ছোলা ডিম এর সালাদ।

আসলে আমাদের মধ্যে একটা ভূল ধারণ আছে স্বাস্থ্যকর খাবার নিয়ে। সেটি হচ্ছে স্বাস্থ্যকর খাবার মানেই হচ্ছে স্বাদহীন খাবার। কিন্তু সব স্বাস্থ্যকর খাবার কিন্তু স্বাদহীন হয় না। যদি একটু বুদ্ধি খাটিয়ে আর একটু মনোযোগ দিয়ে রান্না করা হয়, তাহলে স্বাস্থ্যকর খাবারও অনেক টেস্টি হয়ে ওঠে। আর সেই সাথে এর পুশটি গুণের কারণে আমাদের দেহের জন্য সুফল বয়ে আনে বহু গুণে। এই কথাটিই খাটে আমার আজকের এই রেসিপির ক্ষেত্রে। এই রেসিপিটি খুবই সহজ একটি সালাদ রেসিপি। আসলে সালাদ বলতে আমরা বুঝি সাধারণ শসা, টমেটোর মিক্স যা কিনা ভাত কিংবা রুটির সাথে খাওয়া হয়। কিন্তু যদি সঠিক পরিমাণে সঠিক উপকরণ ব্যবহার করে বানানো যায় তবে এই সালাদ একটি ফুল মিল হিসেবেও পরিবেশন করা যেতে পারে। আজ আমি এমনি একটী সালাদের রেসিপি আপনাদের সাথে শেয়ার করতে চলেছি। এই রেসিপি হচ্ছে মজাদার ছোলা ডিম এর সালাদ।

আসলে সারা দিন ক্ষুধার্ত থাআর পর আমাদের উচিত স্বাস্থ্যকর ও পুষ্টিকর খাবার দিয়ে ইফতার খোলা। তাই ইফতারের জন্য একটি আদর্শ খাবার হতে পারে এই ছোলা ডিম এর সালাদ।

ছোলা ডিম এর সালাদ বানাবার জন্য যে যে উপকরণ দরকার হবে

ছোলা ডিম এর সালাদ খুবই স্বাস্থ্যকর একটি খাবার। সেই সাথে খুব সহজ খাবারও বতে। এর কারণ হচ্ছে এই খাবারটি বানানোর জন্য খুব বেশি উপকরণ আমাদের দরকার হবে না। হাতে গোণা কয়েকটি মুল উপকরণ দরকার হবে। আর সেই সাথে সালাদ ড্রেসিং বানাবার জন্য অল্প কয়েক ধরণ এর মশলা আর অন্যান্য কিছু উপকরণ দরকার হবে। এই সব উপকরণই এই রোজার সময় আমাদের রান্না ঘরে কিংবা ফ্রিজের মধ্যেই থাকে। আর যেই উপকরণ গুলো থাকে না সেগুলোও ইচ্ছা হলেই খুব সহজেই যে কোন দোকান থেকে যে কোন সময়ে কিনে নেয়া যেতে পারে। আসুন দেরি না করে এই ছোলা ডিম এর সালাদ বানাবার জন্য কি কি উপকরণ দরকার হবে তা জেনে নেই। সেই সাথে এই উপকরণ গুলো ঠিক কত টুকু পরিমাণে ব্যবফার করে এই খাবারটি তৈরী করতে হবে তাও জেনে নেয়া যাক চলুন।

ছোলা ১ কাপ

ডি ১টি

আলু ১টি

মিহি করে কুচি করে রাখা শসা ১/৪ কাপ

মিহি করে কুচি করে রাখা টমেটো ১/৪ কাপ

মিহি করে কুচি করে রাখা গাজর ১/৪ কাপ

মিহি করে কুচি করে রাখা ক্যাপসিকাম ১/৪ কাপ

মিহি করে কুচি করে রাখা কাঁচা মরিচ ১ চা চামচ

মিহি করে কুচি করে রাখা পেঁয়াজ ২ চা চামচ

মিহি করে কুচি করে রাখা ধনে পাতা ২ চা চামচ

মিহি করে কুচি করে রাখা পুদিনা পাতা ১ চা চামচ

লবণ পরিমাণ মত

পানি পরিমাণ মত

সালাদ ড্রেসিং এর জন্য যা যা দরকার হবে

লেবুর রস ২ চা চামচ

তেঁতুলের রস ১ চা চামচ

সরষের তেল ১/২ চা চামচ

বিট লবণ ১/২ চা চামচ

চিনি ১/২ চা চামচ

ভাজা শুকনা মরিচ গুড়া ১ চা চামচ

ভাজা কালো গোল মরিচ গুড়া ১ চা চামচ

ভাজা জিরা গুড়া ১ চা চামচ

ভাজা ধনে গুড়া ১/২ চা চামচ

ছোলা ডিম এর সালাদ যে পদ্ধতিতে বানাতে হবে

ছোলা ডিম এর সালাদ বানাবার পদ্ধতি খুবই সহজ। আর এই খাবারটি বানাতে খুব কম সময় এর দরকার হয়। আপনি যদি সব কিছু আগে থেকে গুছিয়ে রাখতে পারেন, তাহলে সব মিলিয়ে দুই মিনিট থেকে তিন মিনিট সময় এর মধ্যেই কিন্তু এই খাবারটি রান্না করে নেয়া সম্ভব। তবে এই খাবার এর উপকরণ গুলো গুছাতে একটু সময় লাগতে পারে। তবে সুবিধার ব্যাপার হচ্ছে এই সব উপকরণই আপনি আগে থেকে গুছিয়ে রাখতে পারবেন। ফলে সারা দিন রোজা রাখার পর যখন ইফতার করার সময় হবে তখন খুব সহজেই আর খুব একটা কষ্ট না করেই আপনি দারু একটি ইফতার আইটেম রেডি করে ফেলতে পারবেন। আসুন তাহলে দেরি না করে কিভাবে আর কোন কোন ধাপ অনুসরণ করে এই ছোলা ডিম এর সালাদ বানাতে হয় তা দেখে নেয়া যাক।

১ম ধাপ

প্রথমে আলাদের উচিত এই সালাদের জন্য ছোলা রেডি করে নেয়া। কারণ এই কাজটি করতেই সব থেকে বেশি সময় এর দরকার পড়ে। এর জন্য প্রথমে এক দিন আগে ছোলা বেশি করে পানির মধ্যে ভিজিয়ে রাখতে হবে। কম পক্ষে পাঁচ ঘন্টা থেকে ছয় ঘন্টা ছোলা গুলো পানিতে ভেজানো থাকতে হবে। এর পরে ছোলা গুলো থেকে পানি ঝরিয়ে খুব ভাল করে পরিস্কার করে নিতে হবে। এই ছোলা ডিম এর সালাদ বানাবার জন্য আমরা সিদ্ধ ছোলা ব্যবহার করব। তাই পরিমাণ মত পানি ও লবণ দিয়ে ছোলা গুলো ঠিকঠাক মত সিদ্ধ করে নিতে হবে। সিদ্ধ ছোলা গুলো থেকেও বাড়তি পানি ঝরিয়ে ফেলতে হবে। ব্যাস সালাদ বানাবার জন্য ছোলা সিদ্ধ রেডি।

২য় ধাপ

একটা মাঝারি সাইজের আলু পরিমাণ মত লবণ দিয়ে সিদ্ধ করে নিতে হবে। সিদ্ধ আলু একটু ঠান্ডা করে নিতে হবে। এবং এর গা থেকে খোসা ছাড়িয়ে নিতে হবে। এর পরে আলুটি ছোট ছোট কিউব করে কেটে নিতে হবে।

একই ভাবে ডিম সিদ্ধ করে নিতে হবে। এবং ছোট ছোট কিউব করে কেটে নিতে হবে।

৩য় ধাপ

এই বার একটা বাটিতে সিদ্ধ ছোলা, আলু আর ডিম এর টুকরা নিয়ে নিতে হবে।  হালকা করে মিশিয়ে নিতে হবে। এর সাথে একে একে মিহি করে কুচি করে রাখা শসা, টমেটো, গাজর, ক্যাপসিকাম ও কাঁচা মরিচ যোগ করে দিতে হবে। সেই সাথে মিহি করে কুচি করে রাখা ধনে পাতা ও পুদিনা পাতাও যোগ করে দিতে হবে। হালকা করে একতা চামচ দিয়ে এই সব উপকরণ এক সাথে মিশিয়ে দিতে হবে। খেয়াল রাখতে হবে যেন মেশানোর সময় কোন উপকরণ ভেঙ্গে না যায়।

৪র্থ ধাপ

এই বার সালাদ ড্রেসিং রেডি করে নিতে হবে। এর জন্য একটা ছোট পাত্রে প্রথমে লেবুর রস, তেঁতুলের রস ও সরষের তেল নিয়ে নিতে হবে। এই তিনটি উপকরণ একটু ফেটে নিতে হবে কাটা চামচ দিয়ে যাতে করে একে অন্যের সাথে খুব ভাল ভাবে মিশে যেতে পারে। এর পরে এর মধ্যে বিট লবণ, চিনি, ভাজা শুকনা মরিচ গুরা, ভাজা জিরা গুড়া, ভাজা ধনে গুড়া ও ভাজা কালো গোল মরিচ গুড়া যোগ করতে হবে। খুব ভাল করে সব গুলো উপকরণ একে অন্যের সাথে মিশিয়ে নিতে হবে। ব্যাস রেডি ছোলা ডিম এর সালাদের জন্য মজাদার সালাদ ড্রেসিং। আসলে যে কোন সালাদ এর আসল স্বাদ নির্ভর করে এর ড্রেসিং এর উপর। সালাদ ড্রেসিং যত টেস্টি হয় সালাদের টেস্টোও ততই বেশি হয়ে থাকে। আর এই ছোলা ডিম এর সালাদের ক্ষেত্রেও এর স্বাদটা এই সালাদ ড্রেসিং এর উপর অনেকাওংশেই নির্ভরশিল।

৫ম ধাপ

এই রেসিপির আর তেমন কোন স্তেপ বাকি নেই। এই বার এই সালাদ ড্রেসিং টুকু সম্পুর্ণটাই আগে থেকে মিশিয়ে রাখা ছোলার মধ্যে দিয়ে দিতে হবে। হালকা হাতে সব কিছু এক সাথে মেখে নিতে হবে। ব্যাস রেডি মজাদার ছোলা ডিম এর সালাদ।

মন্তব্যসমূহ

আমি সাদিয়া রিফাত ইসলাম। একজন মা , হোমমেকার এবং ব্লগার। ভালভাসি রান্না করতে, বই পড়তে এবং লেখালেখি করতে।

মন্তব্য করুন