কাঁচা আমের আমসত্ত্ব বানানোর প্রক্রিয়া

কাঁচা আমের আমসত্ত্ব বানানোর প্রক্রিয়া

বাজারে এখন কাঁচা আমে ভরপুর। কাঁচা আম আমাদের শরীরের জন্য খুব উপকারী। গরমকালে এই আম সহজলভ্য। কিন্তু কাঁচা আম তো আর সারাবছর পাওয়া যাবে না। তাই কাঁচা আম সংরক্ষণ করে রেখে দিলে সারা বছর এর স্বাদ নেয়া যাবে। কাঁচা আম সংরক্ষনের জন্য প্রায় সবাই কাঁচা আমের আচার বানিয়ে রাখেন।

তবে আচার বানানোর পাশাপাশি কাঁচা আমের আমসত্ত্বও করে আম সংরক্ষণ করা যাবে। এই কাঁচা আমের আমসত্ত্বও অনেক মজার। মনে পড়ে ছোটবেলায় স্কুল গেটের সামনে টক আমসত্ত্বের সেই অসাধারণ স্বাদের কথা। টক ও মসলাযুক্ত স্বাদের আমসত্ত্ব তৈরী হয় কাঁচা আম দিয়ে। পাকা আমের আমসত্ত্ব মিস্টি স্বাদের হয়। কাঁচা আমের আমসত্ত্ব বানানোর প্রক্রিয়াটি দেখে নিন।

উপকরণ

কাঁচা আম – ৪/৫টি

লবন- ১ চা চামচ

বিট লবন – ১/২ চা চামচ

পাঁচফোড়ন গুঁড়া – ১/২ চা চামচ

লাল মরিচের গুঁড়া – ১/২ চা চামচ (ঐচ্ছিক)

চিনি – ২/৩ টেবিল চামচ

পানি – ১/২ কাপ

প্রনালী   

প্রথম ধাপঃ আমসত্ত্বের মিশ্রণ তৈরি

** প্রথমে মাঝারী আকারের কয়েকটি আম নিয়ে নিন। আম ভালোভাবে ধুয়ে পানি ঝরিয়ে নিন।

** আমের খোসা ছিলে নিন। ছোট ছোট টুকরা করে নিন।  

** এখন কাটা আমের সাথে পানি দিয়ে অল্প আঁচে ঢেকে রান্না করুন। আম নরম হওয়া পর্যন্ত জ্বাল করুন। মাঝে মাঝে ঢাকনা খুলে আম নেড়ে দিতে হবে, যাতে সব আমে ঠিকমত জ্বাল পায়।

** আম সিদ্ধ হয়ে গেলে চুলা থেকে নামিয়ে ঠাণ্ডা করে নিন।

** এবারে ব্লেন্ডার দিয়ে সিদ্ধ আম ব্লেন্ড করে নিন।

** এখন একটা পাত্রে/ প্যানে ব্লেন্ড করা আম নিন। এরসাথে লবন, বিট লবন, পাঁচফোড়ন গুঁড়া, লাল মরিচের গুঁড়া, চিনি সব একসাথে মিশিয়ে নিন।  

** চুলায় আমের পাত্রটা বসিয়ে জ্বাল করতে হবে। একটা কাঠি বা নাড়ানি দিয়ে নেড়ে চেড়ে আমের সাথে মশলা ভালভাবে মিশিয়ে দিতে হবে।

** আমের মিশ্রণ ঘন হয়ে আসা পর্যন্ত নাড়তে হবে। যখন আমের মিশ্রণ একদম থকথকে হয়ে আসবে তখন নামাতে হবে।

দ্বিতীয় ধাপঃ কাঁচা আমের আমসত্ত্ব বানানোর প্রক্রিয়া

এই ধাপে আমের মিশ্রণ থেকে কিভাবে আমসত্ত্বটা বানাতে হবে তা দেখব।

** একটা ট্রে বা প্লেটে তেল মাখিয়ে নিতে হবে। সরিষার তেল হলে ভাল হয়। না পেলে সয়াবিন তেল হলেও হবে।

** এখন আমের মিশ্রণ থেকে অল্প অংশ একটি চামচের বা হাতের সাহায্যে ট্রেতে সমান করে বিছিয়ে নিন। হাতে বা চামচেও তেল মাখিয়ে নিতে হবে, এতে মিশ্রণটা লাগাতে সহজ হবে।

** এবারে কড়া রোদে শুকাতে দিতে হবে।

** আমের মিস্রনের বাকি অংশ একটি বাটিতে ঢেকে ফ্রিজে রেখে দিতে হবে।

** রোদে দেয়া আমসত্ত্ব শুকিয়ে এলে এরপর আর একবার দিয়ে আবার শুকিয়ে নিয়ে হবে। এভাবে ৪/৫ বার করে নিতে হবে।

** যদি কারও রোদের সমস্যা থাকে অর্থাৎ, রোদে দেয়ার পর্যাপ্ত ব্যবস্থা না থাকে তবে এই কাঁচা আমের আমসত্ত্ব চুলার নিচে দিয়েও শুকিয়ে নেয়া যাবে। রান্না করার সময় আমসত্ত্বের ট্রে চুলার নিচে রেখে দিলে, রান্না হতে হতে আমসত্ত্ব শুকিয়ে যাবে। তবে খেয়াল রাখতে হবে, পানি যেন না পরে আমসত্ত্বের উপরে।

** যখন সব আমের মিশ্রণ দেয়া হয়ে যাবে। এরপর খুব ভালভাবে ২/৩ দিন আরও রোদ বা চুলার নিচে রেখে কাঁচা আমের আমসত্ত্বটাকে শুকিয়ে নিতে হবে।

** পুরোপুরি আমসত্ত্ব শুকিয়ে গেলে ট্রে থেকে তুলে নিয়ে ছোট টুকরা করে কেটে বয়ামে ভরে রাখুন।    

মন্তব্যসমূহ

নিজের পরিচয় দিতে গেলে সবার আগে বলব, আমি একজন মা। তার সাথে একজন হোমমেকার, শিক্ষক ও ব্লগার। লিখতে ভালবাসি। তার চাইতে ভালবাসি পড়তে, জানতে। এইতো! ছোট এক জীবনে অনেক কিছু, আলহামদুলিল্লাহ!!

মন্তব্য করুন