ভিন্ন স্বাদের কিন্তু ভীষণ মজার হায়দ্রাবাদি চিকেন কারি

ভিন্ন স্বাদের কিন্তু ভীষণ মজার হায়দ্রাবাদি চিকেন কারি

হায়দ্রাবাদি চিকেন বিরিয়ানির নাম আমরা বোধ হয় সকলেই শুনেছি। বিশেষ করে আজকাল বিভিন্ন বাংলা রেস্টুরেন্তের জনপ্রিয়তার যুগে এই নামটি তো সর্বত্রই পরিচিত। যে কোন বিরিয়ানির হোটেলে আজকাল স্পেশাল আইটেম হিসেবে হায়দ্রাবাদি চিকেন বিরিয়ানির নাম অবশ্যই থাকে।কিন্তু আমাদের মধ্যে অনেকেই হয়ত হায়দ্রাবাদি চিকেন কারি নামতা খুব একটা শুনেননি। এর পিছনে যথেষ্ঠ কারণও আছে। এই খাবারটি আসলে আমাদের দেশে এখনো অত বেশি প্রচলিত হয়ে আরেনি। এটি আসলে আমাদের পার্শবর্তি দেশ ভারতের অতি জনপ্রিয় একটি নন ভেজ খাবার। হায়দ্রাবাদি বিরিয়ানির মত এই হায়দ্রাবাদি চিকেন আমাদের দেশের রেস্টুরেন্ট গুলোতে এখনো অতটা প্রচলিত না হলেও ভারতের বিভিন্ন প্রদেশের হোটেল গুলোতে, বিশেষ করে মোগলাই খাবারের হোটেল গুলোতে এই হায়দ্রাবাদি চিকেন কারি খুবই জনপ্রিয় একটি খাবার হিসেবে পরিচিত। আর চিকেন প্রেমী যে কোন ভারতীয়কে জিজ্ঞাআ করলে এক কথায় তার এই খাবারটিকে এক নম্বরে স্থান দিতে কখনোই পিছপা হবেনে না। আজ আমি এই জনপ্রিয় হায়দ্রাবাদি চিকেন কারি রেসিপি আপনাদের সাথে শেয়ার করতে চলেছি।

আসলে আমাদের দেশের মানুষের মাঝে নন ভেজ আইটেম গুলোর মধ্যে চিকেন খুবই জনপ্রিয় একটি উপকরণ। ছোট বড় প্রায় সব বয়সের মানুষই এই চিকেন খেতে কিন্তু যঠেষ্ঠ পছন্দ করে থাকেন। আর তাছারা গরু কিংবা খাসির মাংসে কোলেস্টেরল এর মাত্রা অনেক বেশি থাকে। ফলে স্বাস্থ্যগত কারণেও অনেকের পক্ষে এগুলো খাওয়া সম্ভব হয়ে ওঠে না। তাই মাংস বলতে আমাদের সকল বাঙ্গালির কাছেই চিকেন এর জনপ্রিয়তা একটূ বেশিই বলা যেতে পারে। তাই বাঙ্গালির ঘরে ঘরে অতি কমন একটি খাবার এর নাম এই চিকেন। কিন্তু রোজ রোজ একই ভাবে চিকেন রান্না করা হলে আস্তে আস্তে চিকেন থেকে পরিবারের সদস্যদের আকর্ষণ উঠে যেতে পারে। তখন কিন্তু খাবার টেবিলে চিকেন দেখলেই সকলে বোর হয়ে উঠবে। খাবার টেবিলে এই বোরডম দূর করার জন্য আমাদের উচিত সাধারণ এই চিকেনকেই একটু ভিন্ন ভাবে উপস্থাপন করা। এতে করে খাবারে স্বাদ বদল আসবে। সেই সাথে আসবে খাবারে রুচি। আর ভিন্ন ধরণ এর চিকেন রেসিপি হিসেবে এই হায়দ্রাবাদি চিকেন কারি আসলেই অনবদ্য একটি অপশন হতে পারে।

হায়দ্রাবাদি চিকেন কারি বানাবার জন্য যে যে উপকরণ দরকার হবে

হায়দ্রাবাদি চিকেন কারি যেহেতু আমাদের দেশিয় কোন খাবার নয়। তাই এটি বানাবার জন্য উপকরণও আমাদের দেশিয় চিকেন রান্নার উপকরণ থেকে বেশ আলাদা। সেই সাথে এই রান্নাটি করার জন্য উপকরণ এর পরিমাণও সাধারণ চিকেন রান্না থেকে একটু বেশি। কিন্তু তার মানে এই না যে হায়দ্রাবাদি চিকেন কারি রান্না করার এই উপকরণ গুলো আমাদের দেশে পাওয়া যায় না। এই রেসিপির জন্য যে সকল উপকরণ ব্যবহার করা হয়ে থাকে তার সব গুলো উপকরণই আমাদের দেশে খুজে পাওয়া যায়। এবং এই সব গুলো উপকরণই যথেষ্ঠ সহজলভ্য। এই রান্নাটি করার জন্য যে সকল উপকরণ ব্যবহার করা হয়ে থাকে তার বেশির ভাগ উপকরণ বেশির ভাগ সময়ে আমাদের বাসার রানা ঘরে কিংবা ফ্রিজের মধ্যেই থাকতে পারে। আর যদি তা নাও থাকে তবুও কোন সমস্যা নেই। আপনি আপনার আশে পাশের কিছু ভাল দোকানে খুজলেই এই রান্নার জন্য ব্যবহৃত সব গুলো উপকরণই খুজে পাবেন। একনি আর দেরি না করে এই উপকরণ গুলি যোগাড় করে ফেলুন। আর বানিয়ে নিন ভীষণ মজার ও ভিন্ন স্বাদের হায়দ্রাবাদি চিকেন কারি।

তাহলে আসুন আর দেরি নাকরে কি কি উপকরণ ব্যবহার করে এই হায়দ্রাবাদি চিকেন কারি বানাতে হয় তাজেনে নেয়া যাক। সেই সাথে এই উপকরণ গুলো ঠিক কত টুকু পরিমাণে ব্যবহার করতে হবে তাও জেনে নেই চলুন।

স্পেশাল মশলার জন্য উপকরণ

আস্ত কাজু বাদাম ৩ থেকে ৪টি

আস্ত পেস্তা বাদান ৩ থেকে ৪টি

আস্ত কাঠ বাদাম ৩ থেকে ৪টি

আস্ত চিনা বাদাম ৩ থেকে ৪টি

আস্ত শুকনা মরিচ ৩ থেকে ৪টি

আস্ত কালো গোল মরিচ ৩ থেকে ৪টি

আস্ত জায়ফল অর্ধেকটা

আস্ত জয়িত্রি ১/২ চা চামচ

আস্ত মৌরি ১/২ চা চামচ

আস্ত তেজপাতা ১ টি

আস্ত বড় এলাচ ১টি

আস্ত ছোট এলাচ ৩ থেকে ৪টি

আস্ত দারচিনি ১ টুকরা

আস্ত লবঙ্গ ২ থেকে ৩টি

ঘি ২ চা চামচ

চিকেন মেরিনেট করার জন্য যা যা উপকরণ দরকার হবে

চিকেন ১/২ কেজি

লেবুর রস ২ টেবিল চামচ

আদা বাটা ২ চা চামচ

রসুন বাটা ১ চা চামচ

লবণ পরিমাণ মত

মূল রান্না করার জন্য যে যে উপুরণ দরকার হবে

সাদা তেল ৩ তেবিল চামচ

ঘি ১ টেবিল চামচ

মিহি করে কুচি করে রাখা পেঁয়াজ ১ কাপ

আদা বাটা ১ চা চামচ

রসুন বাটা ১ চা চামচ

নারকেল বাটা ৩ তেবিল চামচ

পানি পরিমাণ মত

লবণ পরিমাণ মত

চিনি ১ চা চামচ

হলদ গুড়া ১ চা চামচ

লাল মরিচ গুড়া ১ চা চামচ

বেরেস্তা করে রাখা পেঁয়াজ ২ টেবিল চামচ

গোলাপ জল ১/২ চা চামচ

কেওড়া জল ১/২ চা চামচ

আস্ত কাঁচা মরিচ ৪ থেকে ৫টি

হায়দ্রাবাদি চিকেন কারি যে পদ্ধতিতে বানাতে হবে

উপকরণ এর লিস্ট দেখেই নিশ্চই বুঝতে পারছেন যে এই রান্নাটি করার জন্য অনেক কিছু গুছিয়ে রাখতে হবে। সেই সাথে এটি রান্না করার প্রক্রিয়াটাও স্বাভাবিক চিকেন রান্না থেকে একট দীর্ঘ। তবে আপনাকে শুরুতেই সব কিছু ধাপে ধাপে গুছিয়ে নিয়ে তার পরে এই রান্নাটা শুরু করতে হবে। তাহলে এই রানাটি করতে একটু সময় লাগলেও আপনার কোন কষ্ট হবে না। আর সেই সাথে আপনি যদি ধাপে ধাপে সঠিক পদ্ধতিতে এই হায়দ্রাবাদি চিকেন কারি রান্না করেন তাহলে এই রান্নার মধ্যে কোথাও ভুল হবার সম্ভাবনাও আর থাকবে না। ফলে খুব সহজেই আপনি এই জটিল রান্নাটি সেরে ফেলতে পারবেন। আসুন কি কি ধাপ অনুসরণ করে এই হায়দ্রাবাদি চিকেন কারি রান্না করতে হবে তা জেনে নেয়া যাক।

চিকেন মেরিনেট

প্রথমেই চিকেন মেরিনেট করে নিতে হবে। এর জন্য চিকেন এর সাথে আদা বাটা, রসুন বাটা, লেবুর রস ও লবণ যোগ করতে হবে। খুব ভাল করে মেখে নিতে হবে। এর পরে ফ্রিজে মেরিনেট করা চিকেন আধা ঘন্টার জন্য রেখে দিতে হবে।

স্পেশাল মশলা বানাবার নিয়ম

এই হায়দ্রাবাদি চিকেন কারি বানাবার জন্য একটা স্পেশাল মশলা বানিয়ে নিতে হয়। এই মশলা বানাবার পদ্ধতির কারণেই এই রান্নাতে অসাধারণ একটি স্বাদ যোগ হয়। এই স্পেশাল মশলাটি একটু অন্য ভাবে বানাতে হয় আসুন কি পদ্ধতিতে এই মশলা বানাবেন তা জেনে নেয়া যাক।

১ম ধাপ

প্রথমেই একতা ফ্রাইং প্যানে ঘি গরম করতে হবে। ঘি গরম হয়ে গেলে এর মধ্যে আস্ত বাদাম গুলো ভেজে তুলে রাখতে হবে। আস্ত বাদাম গুলো খুব বেশি সময় ভাজার দরকার নেই। মোটামুটি তিন মিনিট থেকে চার মিনিট ভেজে তুলে রাখলেই হবে। এই বার ঐ ঘী এর মধ্যেই আস্ত শুকনা মরিচ, আস্ত বড় এলাচ ও তেজপাতা ভেজে নিতে হবে। এগুলোও মোটামুটি চার মিনিট থেকে পাঁচ মিনিট ভাজলেই হবে। এরপরে বাকি যেই ছোট ছোট সাইজের মশলা গুলো আছে তা একসাথে ভেজে নিতে হবে। সব মশলা গুলো হালকা ভাজা হয়ে গেলে এর মধ্যে থেকে খুব সুন্দর একটা গন্ধ বের হবে। তখন চুলা বন্ধ করে দিতে হবে।

২য় ধাপ

ভাজা মসলা ও বাদাম গুলো কিছু সময় রেখে দিতে হবে যাতে করে রুম তেম্পারেচারে চলে আসে। এর পরে ব্লেন্ডারে সামান্য একটু পানি দিয়ে এই সব মসলা ও বাদাম এক সাথে মিহি করে বেতে বেটে নিতে হবে। এটি হায়দ্রাবাদি চিকেন কারি বানাবার জন্য স্পেশাল মশলা। এই মশলার উপকরণ গুলো আগে থেকে ঘি এর মধ্যে ভেজে নেয়া হয়। এবন তারপরে বাটা হয়। এই কারণে এর থেকে অসাধারন একটা খুশবু ও স্বাদ এই হায়দ্রাবাদি চিকেন কারির মধ্যে যোগ হয়।

মূল রান্না

১ম ধাপ

এই বার মূল রান্ন শুরু করতে হবে। এর জন্য প্রথমে সাদা তেল ও ঘি গরম করতে হবে। এই গুলো গরম হয়ে গেলে এর মধ্যে মিহি করে কুচি করে রাখা পেঁয়াজ যোগ করতে হবে। পেঁয়াজ লাল লাল করে ভাজা হয়ে গেলে এর মধ্যে আদা বাটা ও রসুন বাটা যোগ করে দিতে হবে। এই দুটি বাটা মশলা থেকে কাচা কাচা ভাব চলে গেলে এর মধ্যে লাল মরিচ গুড়া, হলুদ গুড়া ও নারকেল বাটা যোগ করতে হবে। খুব ভাল করে কষাতে হবে। দরকার হলে অল্প অল্প পানি যোগ করা যেতে পারে।

২য় ধাপ

মশলা গুলো খুব ভাল করে কষানো হয়ে গেলে মেরিনেট করে রাখা চিকেন যোগ করতে হবে। সেই সাথে অল্প করে লবণ ও চিনি যোগ করতে হবে। খুব ভাল করে কষাতে হবে। চিকেন মোটামুটি কষানো হয়ে গেলে আগে থেকে রেডি করে রাখা সেপ্সহাল মশলা যোগ করে দিতে হবে। আরো কিছু ক্ষণ কষিয়ে নিতে হবে। এর পরে পরিমাণ মত পানি দিয়ে ঢাকনা দিয়ে ঢেকে দিতে হবে। চুলার আঁচ কমিয়ে দমে রান্না করতে হবে। চিকেন প্রায় হয়ে আসলে উপর থেকে আস্ত কাঁচা মরিচ, কেওড়া জল, গোলাপ জল ও বেরেস্তা করে রাখা পেঁয়াজ ছড়িয়ে দিতে হবে। আবারো ঢাকনা দিয়ে দমে রান্না করতে হবে আরো তিন মিনিট থেকে চার মিনিট। এর পরে চুলা বন্ধ করে দিতে হবে। কিন্তু আরো দশ মিনিট থেকে পনেরো মিনিট এর জন্য ঢাকনা খোলা যাবে না। এর পরে একটা পছন্দ মত ডিশে ঢেলে সার্ভ করতে হবে মজাদার ও শাহি স্বাদের হায়দ্রাবাদি চিকেন কারি।

সাদা ভাত, পোলাও কিংবা বিরিয়ানি সব কিছুর সাথেই এই খাবারটি জমে যাবে এমনকি নান, রুটি কিংবা পরোটার সাথেও কিন্তু এই হায়দ্রাবাদি চিকেন কারি একেবারে পারফেক্ট ম্যাচ হতে পারে কোন রকম সন্দেহের অবকাশ ছাড়াই।

মন্তব্যসমূহ

আমি সাদিয়া রিফাত ইসলাম। একজন মা , হোমমেকার এবং ব্লগার। ভালভাসি রান্না করতে, বই পড়তে এবং লেখালেখি করতে।

মন্তব্য করুন