মজাদার ও ভিন স্বাদ এর নাস্তা কর্ণ চাট রেসিপি

মজাদার ও ভিন স্বাদ এর নাস্তা কর্ণ চাট রেসিপি

আমাদের দেশের মানুষেরা ভোজন রসিক হিসেবে বেশ পরিচিত। আর এই কারণেই আমাদের দেশে রাস্তা ঘাটে যেখানে সেখানে আপনি খাবার দোকান দেখতে পাবেন। এই সব রাস্তার দোকান গুলোর মধ্যে বিভিন্ন রকম এর খাবার পাওয়া যায়। তবে এই সব খাবার গুলোর মধ্যে বিভিন্ন ধরণ এর চাট কিংবা নাস্তার আইটেম গুলোই কিন্তু সব থেকে বেশি বিক্রি হয় বলে আমার ধারণা। রাস্তার আশে পাশে গরে ওঠা এই সব ছোট খাটো দোকান গুওতে আপনি হাজার রকম এর ভ্যারাইটি দেখতে পাবেন। তার মধ্যে একটি খাবার হচ্ছে চাট। আমাদের দেশের স্ট্রীট ফুডের দোকান গুলোতে নানা রকম চাট কিনতে পাওয়া যায়। এই যেমন ধরুণ, আলু চাট, ছোলা চাট কিংবা মুড়ী চাট। তবে আমি আজ এই কম্ন চাট রেসিপি গুলোর মধ্যে কোনটাই আপনাদের সাথে শেয়ার করব না। আমি আজ একদমই ভিন্ন ধরণ এর একটি চাট রেসিপি আপনাদের সাথে শেয়ার করতে চলেছি। এটি হচ্ছে মজাদার কর্ণ চাট কিংবা ভুট্টার চাট রেসিপি।

আসলে আমাদের দেশ থেকে আমাদের পার্শবর্তি দেশ ভারতে চাট জাতীয় খাবার এর জনপ্রিয়তা আরো বেশি। বিভিন্ন রকম ভাবে ভিন্ন ভিন্ন উপকরণ ব্যবহার করে তাদের দেশের স্ট্রিট ফুড এর দোকান গুলোতে চাট বানানো হয়ে থাকে। এরই মধ্যে একটি হচ্ছে এই কর্ণ চাট কিংবা ভুট্টার চাট। এই কর্ণ চাট কিন্তু অত্যন্ত হেলদি একটি খাবার। অন্যান্য চাট জাতীয় খাবার এর মত এই খাবারটি বানাবার সময় তেল এর ব্যবহার খুব একটা করা হয় না বললেই চলে। শুধু মাত্র সিদ্ধ কর্ণ আর অন্যান্য কিছু আস্ত মশলা ও গুড়া মশলা এবং কিছু হার্বস এর সমন্বয় ঘটিয়ে এই মজাদার নাস্তার আইটেম বানানো হয়ে থাকে। তাই আপনি যদি সুস্বাদু অথচ অনেক পুষ্টিকর কোন নাস্তার আইটেম খোজ করে থাকেন তাহলে এই কর্ণ চাট আপনার জন্য একদম পারফেক্ট একটি রেসিপি হতে পারে। আর তাছাড়া এই খাবারটি অত্যন্ত চটপটা আর ঝাল মশলা মিশ্রিত খুব সুস্বাদু একটি খাবার। তাই এটি বানালে বাসায় ছোট বড় সকলেই খুব পছন্দ করেই এই কর্ণ চাট খাবে তাতে কোন সন্দেহ নেই।

কর্ণ চাট বানাবার জন্য যে যে উপকরণ দরকার হবে

কর্ণ চাট খুব সাধারণ একটি রান্না। তাই এই রান্নাটি করার জন্য উপকরণও খুব সাধারণই দরকার হবে। আমাদের আশে পাশে কিংবা আমাদের রান্না ঘরের মধ্যেই যে সকল মশলা পাতি থাকে তাই দিয়েই কিন্তু মজাদার এই কর্ণ চাট বানিয়ে নেয়া যায়। আর বাকি থাকে কর্ণ। কর্ণ বা ভুট্টা যখন সিজনে থাকে তখন তো আপনি রাস্তা ঘাটেই অজস্র ভুট্টা বিক্রি করার জন্য দাঁড়ানো ঠালা গাড়ি কিংবা ভ্যান গাড় দেখতে পাবেন। আর যদি ভুট্টার সিজন শেষ হয়ে যাবার পর আপনার এই কর্ণ চাট খেতে ইচ্ছা করে তাহলেও কিন্তু খুব একটা সমস্যা নেই। কারণ এখন বাজারে প্রায় সব দোকানেই কম বেশি ক্যানড ভুট্টা কিনতে পাওয়া যায়। আর তা না হলে বিভিন্ন সুপার শপ তো আছেই। এই সব সুপার শপে আপনি সহজেই ক্যানড ভুট্টা কিনতে পারবেন। আর সহজেই বানিয়ে নিতে পারবেন এই মজাদার ও স্বাস্থ্যকর কর্ণ চাট। আসুন দেরি না করে এই কর্ণ চাট বানাবার জন্য আমাদের কি কি উপকরণ দরকার হবে তা জেনে নেই। সেই সাথে এই উপকরণ গুলো ঠিক কত টুকু পরিমাণে ব্যবহার করতে হবে তাও জেনে নেয়া যাক চলুন।

ভুট্টা সিদ্ধ করার জন্য উপকরণ সমূহ

ভুট্টা ১টি কিংবা ১ ক্যান

পানি ২ কাপ

লবণ পরিমাণ মত

কর্ণ চাট বানাবার উপকরণ সমূহ

সিদ্ধ ভুট্টা ১ কাপ

মিহি করে কুচি করে রাখা পেঁয়াজ ২ টেবিল চামচ

মিহি করে কুচি করে রাখা টএটো ২ চা চামচ

মিহি করে কুচি করে রাখা ক্যাপসিকাম ২ চা চামচ

মিহি করে কুচি করে রাখা কাঁচা মরিচ ১ চা চামচ

মিহি করে কুচি করে রাখা ধনে পাতা ১ চা চামচ

মিহি করে কুচি করে রাখা পুদিনা পাতা ১ চা চামচ

চাট মশলা পাউডার ১ চা চামচ

ভাজা লাল মরিচ গুড়া ১/৪ চা চামচ

লেবুর রস ২ চা চামচ

তেঁতুলের রস ১ চা চামচ

লবণ পরিমাণ মত

বিট লবণ এক চিমটি

সাজাবার জন্য দরকারি উপকরণ সমূহ

ঝুরি ভাজা ২ টেবিল চামচ

মিহি করে কুচি করে রাখা ধনেপাতা ১/২ চা চামচ

মিহি করে কুচি করে রাখা পুদিনা পাতা ১ চাচামচ

ভাজা জিরা গুড়া ১/২ চা চামচ

কর্ণ চাট যে পদ্ধতিতে বানাতে হবে

এই স্বাস্থ্যকর ও অতিব সুস্বাদু চাট রেসিপিটি বানানো এওদ্মই সহজ। এবং এটি বানাবার জন্য সময়ও অনেক কম দরকার হয়। আপনার হাতে মাত্র আধা ঘন্টা সময় থাকলেই হল। আপনি চটপট এই নাস্তাটি সবার জন্য বানিয়ে নিতে পারবেন। আর যদি আপনি আগে থেকে কর্ণ সিদ্ধ করে রেখে দিতে পারেন তাহলে তো কথাই নেই। আরো কম সময়ের মধ্যেই এই মজাদার কাহারটি রেডি হয়ে যাবে। আগে থেকে কর্ণ সিদ্ধ করে রাখলে হয়ত আপনার চার মিনিট থেকে পাঁচ মিনিট সর্বোচ্চ সময় লাগতে পারে। এর মধ্যেই আপনি চোখের নিমিষে এই কর্ণ চাট বানিয়ে নিতে পারবেন। আসুন দেরি না করে এই মজাদার কর্ণ চাট বানাবার ধাপ গুলো সম্পর্কে পর পর জেনে নেয়া যাক।

১ম ধাপ

প্রথমেই ভুট্টা সিদ্ধ করে নিতে হবে। এর জন্য প্রথমে হাড়িতে পানি ও লবণ দিতে হবে। পানি ফুটে উঠলে এর মধ্যে ভুট্টা গুলো দিয়ে দিতে হবে। ভুট্টা সম্পুর্ণ সিদ্ধ না হওয়া পর্যন্ত সিধ করতে হবে। তারপরে চুলা বন্ধ করে ভুট্টা গুলো একটা ঝাঝরিতে ঢেলে পানি ঝরাতে দিতে হবে। এর পরে পরবর্তি ধাপে কর্ণ চাট বানাতে হবে। আপনি ইচ্ছা হলে এই ভাবে ভুট্টা সিদ্ধ করে সকাল বেলাতে কিংবা আগে থেকে ফ্রিজে রেখে দিতে পারেন। এর পরে যখন কর্ণ চাট বানানো শুরু করবেন তখন অনায়াসেই এই সিদ্ধ ভুট্টা গুলো দশ সেকেন্ডের জন্য মাইক্রো ওয়েভে গরম করে নিলেই এগুলো কর্ণ চাট বানাবার জন্য রেডি হয়ে যাবে।

২য় ধাপ

এই বার একটা পাত্রে আগে থেকে মিহি করে কুচি করে রাখা পেঁয়াজ, ক্যাপ্পসিকাম, টমেটো, ধনে পাতা, পুদিনা পাতা আর কাঁচা মরিচ যোগ করতে হবে। হালকা করে এই সব গুলো উপকরণ একে অন্যের সাথে মিশিয়ে নিতে হবে। এর পরে এর মধ্যে সিদ্ধ করে রাখা কর্ণ যোগ করতে হবে। এর পরে একে একে লেবুর রস, তেঁতুলের রস, চাট মশলা, অল্প লবণ, বিট লবণ আর অল্প ভাজা লাল মরিস গুড়া যোগ করতে হবে। খুব ভাল করে এই সব উপকরণ এক সাথে মিশিয়ে দিতে হবে। খেয়াল রাখতে হবে যেন সব উপকরণ একই ভাবে সব কিছুর সাথে মিশে যায়।

৩য় ধাপ

সার্ভিং প্লেটে প্রথমে রেডি করে রাখা কর্ণ চাট সার্ভ করতে হবে। এর উপরে ঝুরি ভাজা ছড়ীয়ে দিতে হবে। সেই সাথে মিহি করে কুচি করে রাখা ধনে পাতা ও পুদিনা পাতা ছড়িয়ে দিতে হবে। এবং একই সাথে উপর থেকে হালকা করে ভাজা জিরা গুড়া ছড়িয়ে দিতে হএ। ব্যাস রেডি মজাদার ও স্বাস্থ্যকর কর্ণ চাট। এখন এক কাপ চা কিংবা কফির সাথে এক প্লেট কর্ণ চাট নিয়ে বসে পড়ুন। ব্যাস আপনার সন্ধ্যা একদম জমে যাবে।

মন্তব্যসমূহ

আমি সাদিয়া রিফাত ইসলাম। একজন মা , হোমমেকার এবং ব্লগার। ভালভাসি রান্না করতে, বই পড়তে এবং লেখালেখি করতে।

মন্তব্য করুন